শীতকালে ত্বকের একটা সমস্যা মোটামুটি সবারই— শুষ্কতা। এ দিকে চলছে বিয়ের মরসুম। তাই ত্বক তো উজ্জ্বল দেখাতেই হবে!

হিমেল হাওয়া ও তার দোসর ত্বকে সাদাটে খসখসে আস্তরণকে জব্দ করতে পারে তিলের তেল। সকালে ঘুম থেকে উঠে খুব ভাল করে সারা গায়ে মাসাজ করে নিন এই তেল। আবার স্নানের আগে বা পরে করুন। এতে ত্বক থাকবে নরম। তিল তেল কিন্তু শুধু ত্বকই ভাল রাখে না, নানা রকম অ্যালার্জি থেকেও দূরে রাখে।

নারকেল তেল যখন মোমের সঙ্গে মেশে, তখন কিন্তু তা ত্বকের বেস্ট ফ্রেন্ড। গরম নারকেল তেলে ফেলে দিন খানিকটা মোম। মোম গলে গেলে, ওই তেল ভাল করে ত্বকে মাসাজ করুন। যে ঔজ্জ্বল্য আসবে তা আচ্ছা আচ্ছা ময়শ্চারাইজ়ারকেও ফেল করিয়ে দিতে পারে।

অলিভ অয়েল মাসাজও ত্বকের পক্ষে খুব ভাল। বার দুই থেকে তিন তেল মাসাজ করলে ত্বক নরম ও মসৃণ থাকবে।

ভাল কোনও কোম্পানির বডি বাটারও মাসাজ করতে পারেন। স্নানের পরে হালকা করে গা মুছে নিয়ে খুব ভাল করে বডি বাটার সারা গায়ে মাসাজ করুন। বিশেষ করে যাঁদের পা বা হাত ফাটার প্রবণতা আছে, তাঁদের জন্য তো বডি বাটার খুবই ভাল সমাধান।

একটি পাত্রে জল ফুটতে দিন। তার মধ্যে একটি ছোট বাটিতে অ্যালো ভেরা পাতা কুচি কুচি করে কেটে দিন। কিছুক্ষণ পরে পাতার রং বদলাবে এবং তার মধ্য থেকে জেল বেরিয়ে আসবে। থকথকে ওই জেল ত্বকের জন্য ভীষণ ভাল। প্রচণ্ড ঠান্ডাও আপনার ত্বকে কামড় বসাতে পারবে না।

নারকেল তেলের সঙ্গে
ভিটামিন ই ক্যাপসুল মিশিয়েও স্নানের আগে মাখতে পারেন।