• Spa
  • চিরশ্রী মজুমদার
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

চুলের রক্ষায় ‘ক্যাপ্টেন স্পা’র্ক

দূষিত আবহাওয়া, দুশ্চিন্তা, জেল, মুজ়ের অত্যাচারে চুল নিস্তেজ হয়ে পড়েছে? তাকে দিন স্পা-এর জিয়নকাঠি

Spa
  • Spa

শীতকাল চুলের জন্য বড় যন্ত্রণাদায়ক। কনকনে ঠান্ডা, ধুলো ভরা শুকনো হাওয়ায় চুল নিষ্প্রাণ, ম্যাড়মেড়ে হয়ে যায়। মাথার চামড়ার মৃত কোষ উঠে দেখা দেয় খুশকি। অনেকেই চুলে গরম জল ঢালেন, তাড়াতাড়ি শুকোতে হেয়ার ড্রায়ারও ব্যবহার করেন। তাতে চুল আরও ঘায়েল হয়। ডগা ফাটে, চুল ঝরে। শুধু
তেল শ্যাম্পুর দৈনিক পরিচর্যায় এই ক্ষতি সামাল দেওয়া মুশকিল। এখানেই চাই হেয়ার স্পা-র স্পেশ্যাল কেয়ার।

স্পা কেন প্রয়োজন?

হেয়ার স্পা চুলের মৃতসঞ্জীবনী। রূপ-বিশেষজ্ঞের মতে, প্রতি বার স্পা-এর পর চুলের নতুন জন্ম হয়। স্পা চুলের স্বাস্থ্যরক্ষা করে, নষ্ট চুল মেরামত করে, নির্জীব চুলের প্রাণ ফিরিয়ে দেয়। চুলের ঔজ্জ্বল্য বাড়ে, টেক্সচার মোলায়েম হয়। চুল ঝলমলে হয়ে ওঠে। স্পা ট্রিটমেন্টে মস্তিষ্কের স্নায়ু উজ্জীবিত হয়, রক্ত সঞ্চালন বাড়ে। কোষের বিপাক হারও বাড়ে। ফলে চুলের গোড়া শক্ত হয়। চুল পড়া অনেক কমে।

স্ক্যাল্পের সংক্রমণও স্পা সারিয়ে দেয়। চুলকে ডিপ কন্ডিশনিং করে তার মূলে পুষ্টি জোগায়, অক্সিজেন চলাচল বাড়ায়। রুক্ষতা দূর হয় ও খুশকির সমস্যা একেবারেই কমে যায়। মাথার অতিরিক্ত তেলচিটে ভাব দূর করে, আবার এসেনশিয়াল অয়েলগুলোর ভারসাম্যও বজায় রাখে স্পা। রোমকূপ সাফাই করে ধুলোময়লা বার করে। তাই স্পা-এর পর মাথা অসম্ভব ফুরফুরে আর হালকা লাগে। চিরুনি চলে মসৃণ ভাবে। হাত বোলালেই ফারাকটা টের পাওয়া যায়। একঢাল রেশমি চুলে যে কোনও স্টাইল খুব সহজ হয়ে যায়। চুল ভাল রাখতে ও ভাল দেখাতে তাই স্পা হতেই পারে আপনার কেশসাথী।

কী ভাবে হয় হেয়ার স্পা

ক্লাব বা সালোঁয় হেয়ার স্পা করাতে গেলে প্রথমেই রূপ-বিশেষজ্ঞের সঙ্গে আপনার চাহিদা ও সমস্যাগুলো আলোচনা করে নিন। স্পা করতে অন্তত ঘণ্টাখানেক সময় লাগবে। শীতে অতক্ষণ ভিজে মাথায় থাকলে ঠান্ডা লাগতে পারে। তাই ঈষদুষ্ণ জল ব্যবহারে কোনও ক্ষতি হবে কি না, অ্যালার্জির ধাত আছে কি না, চুলের গঠন কী রকম... এই বিষয়গুলো নিয়ে থেরাপিস্টের সঙ্গে আগেভাগে কথা বলে নিন।

প্রথম ধাপে তিনি আপনার চুলের গঠন ও ধরন বুঝে বিশেষ শ্যাম্পু দিয়ে খুব ভাল করে চুল পরিষ্কার করে কন্ডিশনার লাগাবেন। এর পরে খানিকক্ষণ স্পা-ক্রিম বা প্যাক লাগিয়ে রাখতে হয়। প্রতিটি চুলে সমান ভাবে ওই ক্রিম লাগাবেন থেরাপিস্ট। কিছুক্ষণ পর স্ক্যাল্পের নানা প্রেশার পয়েন্ট সামলে থেরাপিস্ট মাসাজ করেন। অনেক সময়ে রক্ত সঞ্চালন বাড়ানোর জন্য ও স্ট্রেস কাটানোর জন্য তিনি কাঁধ-হাতের প্রেশার পয়েন্টও মাসাজ করতে পারেন। কোথাও ব্যথা-বেদনা থাকলে সেটা কিন্তু অবশ্যই বলে নেবেন। খুশকি না থাকলে কিছুক্ষণ চুলে ভাপ দেওয়া হয় (কোনও কোনও স্পা-এ স্টিম লাগে না)। তার পরে চুলটা পরিষ্কার করে ধুয়ে দেওয়া হয়। জল দেওয়ার সময়ই চুল কত চিকন হয়ে উঠেছে, আপনি নিজেই অনুভব করতে পারবেন। শেষে প্রোটিনসমৃদ্ধ তেল লাগানো হয়। এই তেল চিটচিটে নয়, বরং ঔজ্জ্বল্য বাড়ায়। তাই স্পা করেই অনায়াসে বাইরে বেরোতে পারবেন।

কত ধরনের স্পা

বিভিন্ন কসমেটিক্স ব্র্যান্ড স্পা-রেঞ্জ রেখেছে। আপনার চুলে কোনটা উপযুক্ত হবে, রূপ-বিশেষজ্ঞ বলে দেবেন। দু’-এক বার ট্রিটমেন্টের পরে নিজেই সেরা প্রডাক্টটা বুঝতে পারবেন। এ ছাড়া রয়েছে চুলের প্রয়োজন অনুযায়ী স্পেশ্যালাইজ়ড স্পা। যেমন খসখসে চুল চকচকে করার জন্য স্মুদনিং স্পা, পাতলা ফিনফিনে চুল ঘন দেখানোর জন্য ভলিউমনাইজ়িং স্পা, শুকনো লালচে হতে থাকা চুলের জন্য রিহাইড্রেটিং স্পা, খুশকি তাড়াতে অ্যান্টি-ড্যানড্রাফ স্পা (শীতে সবচেয়ে বেশি চাহিদা), অনুরূপ ভাবে অ্যান্টি-হেয়ারফল, অ্যান্টি-এজিং হেয়ার স্পা। সংবেদনশীল বা অতিরিক্ত শুকনো স্ক্যাল্পের জন্যও আলাদা স্পা থাকে। যাঁরা চুলে কেমিক্যাল ব্যবহার করেন, অর্থাৎ গ্লোবাল কালার বা হাইলাইট করেন, নিয়মিত মুজ়, স্ট্রেটনার, উত্তাপ-নির্ভর স্টাইলিং প্রডাক্ট ব্যবহার করেন, তাঁদের কালার-ব্লুমিং স্পা করাতে হয়। এতে চুল ফ্যাশনের ধকল সামলেও সুন্দর থাকে। আবার রংও ভাল ভাবে বসে।

স্পা-র বিশেষ গুণ

চুল খারাপ হওয়ার অন্যতম কারণ স্ট্রেস, টেনশন। স্পা কিন্তু দুরন্ত স্ট্রেসবাস্টার। পুষ্টি জোগানোর সঙ্গেই শরীর-মনে নরম প্রশান্তি ফিরিয়ে আনে স্পা। মন সতেজ হয়, চুল-ত্বক ভিতর থেকে লাবণ্যময় হয়ে ওঠে।

জেল্লা ফেরাতে স্পা যথেষ্ট?

স্পা কিছুক্ষণেই চুলের দ্যুতি ফিরিয়ে দেয় ঠিকই, কিন্তু স্পা করিয়ে চুলের যত্ন শেষ, ভাবলে চলবে না। যতই ঠান্ডা লাগুক, রোজ, নিদেনপক্ষে এক দিন অন্তর ভাল করে চুল ধুতেই হবে। নইলে আবার তেল ময়লা ঢুকে চুলের দফারফা করবে।

স্পা করার পরে কয়েক দিন চুল না ধোওয়ার ধারণা ভুল। পরদিন থেকেই তেল-শ্যাম্পু-মাসাজের রুটিনে ফিরুন।

সাধারণত মাসে একটা স্পা-ই যথেষ্ট। কিন্তু খুশকি, চুল পড়ার সমস্যায় বা যাঁরা কালারিং ইত্যাদি করান, তাঁদের দু’সপ্তাহে এক বার স্পা করা জরুরি। মাঝেমধ্যে ওজ়োন ট্রিটমেন্ট করালে জেল্লা দ্বিগুণ বাড়ে।

কনকনে ঠান্ডা জল না হোক, অন্তত শ্যাম্পু ধোওয়ার সময় ঘরের তাপমাত্রার জল ব্যবহার করুন।

নিজে করার জন্য স্পা-কিট পাবেন। এগুলিতে ক্ষণস্থায়ী ফল মেলে। পার্লারের মাসাজ, স্টিমের সুফল বাড়িতে নিজে নিজে পাওয়া মুশকিল। তাই সেগুলি নিজে না করে ভাল ব্র্যান্ডের শ্যাম্পু ও থেরাপিউটিক তেল কিনতে পারেন।

 মডেল: শ্রীময়ী

ছবি: তন্ময় সেন

েমকআপ: উজ্জ্বল দত্ত

লোকেশন: ল্যাকমে সালোঁ, শরৎ বসু রোড

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন