প্রশ্ন: ভবিষ্যতে ফুড অ্যান্ড নিউট্রিশন নিয়ে পড়তে চাই। কোথায় পড়তে পারি? উচ্চশিক্ষা ও গবেষণা কোথায় করা যায়? কী ধরনের কাজের সুযোগসুবিধে রয়েছে?  অতনু আইচ, হলদিয়া

ফুড অ্যান্ড নিউট্রিশন এমনই একটি বিষয় যেটা শুধু নিজের নয়, দেশেরও কাজে লাগে। স্কুল স্তর থেকেই বিষয়টা পড়ানো হয়। ফলে কেউ যদি আগামী দিনে এই বিষয়ে কেরিয়ার গড়তে চায় তার হরেক সুযোগ রয়েছে। 

 

রাজ্য

স্নাতক স্তরে রাজ্যে বিভিন্ন কলেজেই ফুড অ্যান্ড নিউট্রিশন পড়ানো হয়। যেমন, কলিকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে—  

• ডিপার্টমেন্ট অব হোম সায়েন্স (কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব বিভাগ)

www.caluniv.ac.in/academic/department/Home-sc.html

• বিদ্যাসাগর কলেজ

www.vidyasagarcollege.edu.in

• নেতাজিনগর কলেজ ফর উইমেন

www.netajinagarcollegeforwomen.in

• উইমেন্স কলেজ, বাগবাজার

www.womenscollegekolkata.in

• জয়পুরিয়া কলেজ

www.sajaipuriacollege.in

• মহারানি কাশীশ্বরী কলেজ

www.mkc.ac.in

• বেহালা কলেজ

www.behalacollege.in/Home

• সিস্টার নিবেদিতা গভর্নমেন্ট জেনারেল ডিগ্রি কলেজ ফর গার্লস

http://snggdcg.ac.in

• বজবজ কলেজ

www.wbbudgebudgecollege.org

• টি এইচ কে জৈন কলেজ

http://thkjaincollege.ac.in  

ইত্যাদি

 

ওয়েস্ট বেঙ্গল স্টেট ইউনিভার্সিটির অন্তর্গত

• হীরালাল মজুমদার মেমোরিয়াল কলেজ ফর উইমেন

http://hmmcollege.ac.in

• রাষ্ট্রগুরু সুরেন্দ্রনাথ কলেজ, ব্যারাকপুর

https://brsnc.in

• সারদা মা গার্লস কলেজ, বারাসত

www.smgc.co.in

• সরোজিনী নাইডু কলেজ ফর উইমেন

www.sncwgs.ac.i• ইত্যাদি

 

কল্যাণী বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্তর্গত

• কাঁচরাপাড়া কলেজ 

www.kpcoll.net ইত্যাদি

 

• বর্ধমান, উত্তরবঙ্গ, বাঁকুড়া, বিদ্যাসাগর ইত্যাদি বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্তর্গত অনেক কলেজে বা বিশ্ববিদ্যালয়ে নিউট্রিশন পড়ানো হয়।

 

রাজ্যের বাইরে

উল্লেখযোগ্য প্রতিষ্ঠানগুলির মধ্যে রয়েছে—

• ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউট্রিশন, হায়দরাবাদ

www.ninindia.org

• অবিনাশী লিঙ্গম ইনস্টিটিউট ফর হোম সায়েন্স অ্যান্ড হায়ার এডুকেশন ফর উইমেন, কোয়েম্বত্তুর

http://avinuty.ac.in/maincampus

• এম এস ইউনিভার্সিটি, বডোদরা

http://www.msubaroda.ac.in/

• লেডি আরউইন কলেজ, বম্বে

www.ladyirwin.edu.in/index.aspx ইত্যাদি

 

যোগ্যতা

ফুড সায়েন্স বিষয়ে কিন্তু রসায়নের আধিপত্য রয়েছে। তাই কোনও ছাত্র বা ছাত্রীর দ্বাদশ শ্রেণির কম্বিনেশনে কেমিস্ট্রি থাকতেই হবে। ফিজ়িক্স, কেমিস্ট্রি থাকতে পারে, বায়োলজি বা নিউট্রিশন থাকলে আরও ভাল। ফুড অ্যান্ড নিউট্রিশন অনার্স-এর সঙ্গে পাস কোর্সেও কিন্তু কেমিস্ট্রি পড়তেই হবে। এতে ভবিষ্যতে গবেষণা করতে সুবিধে হয়। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফুড অ্যান্ড নিউট্রিশন বিভাগের অধ্যাপক শান্তা দত্ত (দে) বললেন, ‘‘বাংলা মাধ্যম থেকে পড়তে আসা অনেক ছাত্রছাত্রীরই প্রথম প্রথম ইংরেজিতে পড়তে অসুবিধে হয়। সুবিধেটা হল, এখন অনেক জায়গাতেই বাংলা মাধ্যমেও বিষয়টি পড়ানো হয়। কিন্তু আমি বলব, যারা বাংলা মাধ্যম থেকে এসেছে, তারা যত তাড়াতাড়ি ইংরেজিতে সড়গড় হতে পারবে তত ভাল। কারণ অধিকাংশ বই-ই ইংরেজিতে। তা ছাড়া উচ্চশিক্ষার সময়েও ইংরেজি ছাড়া গতি নেই। ফলে প্রথমে একটু কষ্ট হলেও ইংরেজির জ্ঞানটা তৈরি করে নিতে পারলে ছাত্রছাত্রীদেরই লাভ।’’ 

 

উচ্চশিক্ষা

যেখানে স্নাতকোত্তর পড়ানো হয়—

• ডিপার্টমেন্ট অব হোম সায়েন্স, কলিকাতা বিশ্ববিদ্যালয়

• উইমেন্স কলেজ

এটি সেল্ফ-ফাইনান্সড কোর্স।

• ওয়েস্ট বেঙ্গল ইউনিভার্সিটি অব হেলথ সায়েন্সের অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অব হাইজিন অ্যান্ড পাবলিক হেলথ

http://aiihph.gov.in/

• ওয়েস্ট বেঙ্গল ইউনিভার্সিটি অব হেলথ সায়েন্স

https://wbuhs.ac.in/

• রাষ্ট্রগুরু সুরেন্দ্রনাথ কলেজ

• ওয়েস্ট বেঙ্গল স্টেট ইউনিভার্সিটি

www.wbsubregistration.org

• বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়ের রেগুলার কোর্স ছাড়াও কিছু দূরশিক্ষার কোর্স করানো হয় কলকাতায়, মেদিনীপুরে। 

www.vidyasagar.ac.in

• ইন্দিরা গাঁধী ন্যাশনাল ওপেন ইউনিভার্সিটির দূরশিক্ষার স্নাতকোত্তর কোর্সটি পড়ানো হয় কেপিসি মেডিক্যাল কলেজ অ্যান্ড হসপিটাল-এ।

www.kpcmedicalcollege.org

• আইআইইএসটি, শিবপুর ইত্যাদি

 

গবেষণা

ফুড অ্যান্ড নিউট্রিশন একটা ইন্টারডিসিপ্লিনারি বিষয়। পাঠ্যক্রমে ফুড অ্যান্ড নিউট্রিশন ছাড়াও প্রাধান্য আছে ফিজিয়োলজি, বায়োকেমিস্ট্রি, মাইক্রোবায়োলজি এবং কেমিস্ট্রি-র মতো বিষয়গুলিরও। ফলে এই সব বিষয়ে পরে গবেষণার সুযোগ থাকেই। 

প্রতিষ্ঠানে গবেষণা করতে গেলে প্রথমত সর্বভারতীয় ইউজিসি নেট পরীক্ষা দিতে হয়। যারা নেট-এ উত্তীর্ণ হয় তাদের সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয় বা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিচালিত রিসার্চ এলিজিবিলিটি টেস্ট (রেট)-এর থিয়োরিটিকাল পরীক্ষা দিতে হয় না। তারা শুধু রেট-এর ভাইভা-তে বসে। কিন্তু যারা নেট পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে পারে না, তাদের রেট-এ থিয়োরি এবং ভাইভা, দুটোই দিতে হয়। দেশের অনেক প্রথম সারির গবেষণাগারেই গবেষণা করার সুযোগ থাকে। 

 

ডিপ্লোমা কোর্স

অধ্যাপক দত্ত (দে) জানালেন, বেশ কিছু প্রতিষ্ঠানে ডিপ্লোমা কোর্স আছে। ইগনু-তে একটি কোর্স রয়েছে। ওয়েস্ট বেঙ্গল হেলথ ইউনিভার্সিটিতে ডিপ্লোমা ইন ডায়টেটিক্স পড়ানো হয়। 

 

কাজ

কোর্স করার পরে ইন্ডিয়ান ডায়টেটিক অ্যাসোসিয়েশনের কাছে আবেদন করে পরীক্ষা দিয়ে রেজিস্টার্ড ডায়েটিশিয়ান হিসেবে কাজ করা যায়। রাজ্য সরকার ফুড প্রিজ়ারভেশন-এর উপর ডিপ্লোমা কোর্স করায়। সেটা করে নিজের মতো ব্যবসা করা যায়। ইন্টিগ্রেটেড চাইল্ড ডেভেলপমেন্ট প্রোজেক্ট-এ কাজ করা যায়। যেহেতু স্কুলে নিউট্রিশন পড়ানো হয়, ফলে এসএসসি দিয়ে স্কুলশিক্ষকতা করা যায়। কলেজ সার্ভিস কমিশন বা নেট (লেকচারারশিপ) দিয়ে যোগ দেওয়া যায় কলেজে শিক্ষক হিসেবে। বিভিন্ন নার্সিং হোমেও ডায়েটিশিয়ান হিসেবে যোগ দেওয়া যায়।