২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২
Education

বাংলায় প্রশিক্ষণ, দেশ জুড়ে চাকরির সুযোগ

দীর্ঘ ২ বছর পরে উচ্চশিক্ষা বিভাগ, ম্যাকাউট, এবং পশ্চিমবঙ্গ জয়েন্ট এন্ট্রান্স বোর্ডের সহায়তায় এপিএআই আয়োজন করছে প্রি-কাউন্সেলিং মেলার।

অনুষ্ঠানের শুভ সূচনা

অনুষ্ঠানের শুভ সূচনা

এবিপি ডিজিটাল ব্র্যান্ড স্টুডিয়ো
শেষ আপডেট: ১৭ অগস্ট ২০২২ ২৩:১৭
Share: Save:

অতিমারি পরবর্তী সময়ে গোটা বিশ্বে এসেছে ব্যাপক পরিবর্তন। বিশেষ করে বিগত দু’বছরে অনেকখানি বদলে গিয়েছে শিক্ষার জগত। কোভিড যেভাবে বিশ্বের বিভিন্ন ক্ষেত্রকে দুমড়ে-মুষড়ে এক অন্য চেহারায় নিয়ে গিয়েছিল, সেখান থেকে অনেকখানি বেরিয়ে আসতে পেরেছি আমরা। তবে এখন শান্ত হয়ে বসে থাকার সময় নয়।

ভবিষ্যত প্রজন্মকে ফের হাতে-কলমে গড়তে দীর্ঘ ২ বছর পরে উচ্চশিক্ষা বিভাগ, ম্যাকাউট, এবং পশ্চিমবঙ্গ জয়েন্ট এন্ট্রান্স বোর্ডের সহায়তায় এপিএআই (APAI) আয়োজন করছে প্রি-কাউন্সেলিং মেলার। এপিএআই (APAI) একটি অলাভজনক সংস্থা। যারা রাজ্যের কারিগরি শিক্ষার উন্নতির জন্য প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছে। প্রতি বছর এপিএআই শিক্ষার্থীদের জন্য এই মেলার আয়োজন করে। যেখান থেকে পছন্দসই কলেজ এবং পড়াশোনার জন্য সঠিক কোর্স খুব সহজেই বেছে নিতে পারে শিক্ষার্থীরা। বিগত বছরগুলিতে বহু শিক্ষার্থীদের কাছে এই মেলাই ছিল কেরিয়ার তৈরির অন্যতম সেরা ঠিকানা।

পশ্চিমবঙ্গের মতো রাজ্যে শিক্ষা সর্বদাই দেশের অ্য়াকাডেমিক পরিকাঠামোর উন্নয়নে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছে। সারা বিশ্বে প্রযুক্তিগত অগ্রগতির সঙ্গে সঙ্গে, বিভিন্ন ক্ষেত্রে নতুন কেরিয়ার তৈরির সুযোগ তৈরি হয়েছে। যেখানে প্রাধান্য পাচ্ছে শিক্ষা ও শিল্পের মেলবন্ধন, কর্মসংস্থান এবং সর্বোপরি উদ্ভাবন।

বর্তমান সময়ের চাকরির বাজারে যে ধরনের কৌশল ও রিসোর্স প্রয়োজন হচ্ছে, তার সবটাই নতুন যুগের প্রযুক্তির সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ। ম্যাকাউট (MAKAUT)-এর অধীনে কলেজগুলি বাস্তব প্রেক্ষাপটে সেই চাহিদার কথা মাথায় রেখে প্রাসঙ্গিক এবং প্রয়োজনীয় বিষয়গুলিকে পাঠ্যক্রমে অন্তর্ভুক্ত করছে৷ এআইসিটিই (AICTE) দ্বারা নির্ধারিত মানগুলি আন্তর্জাতিক মানের সঙ্গে সুসংগত। আর সেই কারণে বাংলায় কারিগরি কোর্সের শিক্ষার্থীদের, চাকরির বাজারে একটি অতিরিক্ত সুবিধা থাকা অপরিহার্য।

অনুষ্ঠান কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, এই ৩ দিনের অনুষ্ঠানটি বাংলার প্রকৌশল এবং প্রযুক্তিগত শিক্ষার সুযোগকে প্রতিফলিত করবে। শুধুমাত্র পছন্দের কেরিয়ারই বাছাই নয়, প্রতিদিন লটারির মাধ্যমে বেছে নেওয়া হবে ৫০ জন শিক্ষার্থীদের। যাদেরকে স্কলারশিপ হিসেবে ১০,০০০টাকা করে দেওয়া হবে।

চারপাশে এত রকম বিকল্পের মধ্যে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই শিক্ষার্থী ও অভিভাবক, দু’জনেই হারিয়ে যেতে পারেন। বলা ভাল, ঠিক করতে পারেন না কোনটা বেছে নেবেন? সেক্ষেত্রে প্রি-কাউন্সেলিং ফেয়ার সঠিক ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ চয়নের ক্ষেত্রে একটি গাইড হিসেবে কাজ করতে পারে। এই অনুষ্ঠানের মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা সংশ্লিষ্ট ইনস্টিটিউটের অবস্থান, অনুষদের গুণমান, উপলব্ধ পরিকাঠামোগত সুবিধা, স্থান নির্ধারণের সাফল্যের হার ইত্যাদি সম্পর্কে একত্রিত তথ্য পেয়ে থাকে।

পশ্চিমবঙ্গে এপিএআই-এর সাধারণ সম্পাদক, সত্যম রায়চৌধুরী এই বিষয়টি নিয়ে কথা বলতে গিয়ে বলেন, “অতিমারির জন্য প্রায় দুই বছরের দীর্ঘ ব্যবধানের পরে ফের ফিরে এসেছি আমরা। এই বছর ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ক্ষেত্রে উচ্চাকাঙ্ক্ষী শিক্ষার্থীদের লক্ষ্য পূরণ করতে বিভিন্ন ধরনের কলেজকে একত্রিত করতে পেরেছি আমরা। আমরা এটিকে আরও একটি হাইব্রিডে স্থানান্তরিত করেছি যাতে সারা দেশে যত বেশি সম্ভব ছাত্র-ছাত্রীরা এই অনুষ্ঠানে অংশ নিতে পারে। তবেই আমাদের এই প্রচেষ্টা সফল হবে বলে আমার বিশ্বাস।”

এই বছর অনুষ্ঠানে থাকছে —

  • ৩ দিনের জন্য সম্পূর্ণ অনুষ্ঠানটির লাইভ স্ট্রিমিং
  • ‘APAI প্রি-কাউন্সেলিং সেশন’-এর ৩৬০ ডিগ্রি ভিউ/ট্যুর
  • ভিডিয়ো ওয়াল, যার মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা গুরুত্বপূর্ণ রেকর্ড করা লাইভ সেশন দেখতে পারবে
  • শিক্ষার্থীদের জন্য দূরবর্তী অনলাইন ভিত্তিক কাউন্সেলিং
  • ওয়েবসাইটে চ্যাটের মাধ্যমে সাধারণ প্রশ্নের উত্তর দিতে রয়েছে এআই বট (AI BOT)

এটি একটি স্পনসর্ড প্রতিবেদন এবং এপিএআই-‌এর সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে প্রকাশিত।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.