×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১৯ জানুয়ারি ২০২১ ই-পেপার

১০ হাজার ছাড়াল রাজ্যে মোট মৃত্যু, লাগাম সংক্রমণের হারে

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা১৫ জানুয়ারি ২০২১ ০০:৩৬
গ্রাফিক: শৌভিক দেবনাথ

গ্রাফিক: শৌভিক দেবনাথ

রাজ্যে প্রথম করোনা সংক্রমণ ধরা পড়েছিল ১৮ মার্চ। তার পর থেকে দশ মাসের মাথায় মোট মৃত্যুর সংখ্যা ১০ হাজার ছাড়াল। যদিও বুধবারের থেকে বৃহস্পতিবার মৃতের সংখ্যা আরও এক ধাপ নেমেছে। আশাতীত ভাবে আগের দিনের তুলনায় টেস্ট বাড়লেও নতুন সংক্রমিতের সংখ্যা কমেছে। যার ফলে সংক্রমণের হার এখন হয়েছে ২ শতাংশের সামান্য বেশি।

রাজ্যে করোনায় প্রথম প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছিল ২৩ মার্চ। তার প্রায় ১০ মাস অতিক্রান্ত হওয়ার পর বৃহস্পতিবার রাজ্যে করোনায় মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ১০ হাজার ১০ জন। যদিও বুধবারের তুলনায় এ দিন রাজ্যে করোনায় মৃত্যু কম। এ দিন মৃত্যু হয়েছে ১৭ জনের। এর মধ্যে ৭ জন উত্তর ২৪ পরগনার এবং ৪ জন কলকাতার। এ ছাড়া ২ জন করে প্রাণ হারিয়েছেন হুগলি এবং নদিয়ায়। এমনটাই তথ্য স্বাস্থ্য দফতর প্রকাশিত বুলেটিন অনুযায়ী।

Advertisement

বৃহস্পতিবার রাজ্যে দৈনিক করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৬৮০। এর ফলে রাজ্যে মোট আক্রান্তের সংখ্যা এখন হল ৫ লক্ষ ৬৩ হাজার ৪৭৫ জন। এ দিন উত্তর ২৪ পরগনায় ১৮৬ এবং কলকাতায় ১৫৯ জন নতুন সংক্রমিত। এ ছাড়া বাকি কোনও জেলায় দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা ৫০-এর গণ্ডি স্পর্শ করেনি। এক মাত্র পশ্চিম বর্ধমানে ৪১ জন এ দিন আক্রান্ত হয়েছেন। বুধবারের তুলনায় এ দিন উত্তর ২৪ পরগনার করোনা পরিস্থিতি কিছুটা সন্তোষজনক।

বৃহস্পতিবার রাজ্যে দৈনিক করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৬৮০। এর ফলে রাজ্যে মোট আক্রান্তের সংখ্যা এখন হল ৫ লক্ষ ৬৩ হাজার ৪৭৫ জন। এ দিন উত্তর ২৪ পরগনায় ১৮৬ এবং কলকাতায় ১৫৯ জন নতুন সংক্রমিত। এ ছাড়া বাকি কোনও জেলায় দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা ৫০-এর গণ্ডি স্পর্শ করেনি। এক মাত্র পশ্চিম বর্ধমানে ৪১ জন এ দিন আক্রান্ত হয়েছেন। বুধবারের তুলনায় এ দিন উত্তর ২৪ পরগনার করোনা পরিস্থিতি কিছুটা সন্তোষজনক।

আরও পড়ুন: শোভন-বৈশাখীর প্রচারসূচিতে নেই বেহালা, আপাতত ব্রাত্যই নিজ-কানন

আরও পড়ুন: ফেসবুকে বিক্ষুব্ধ সাংসদ শতাব্দী, শনিবারবেলায় তাকিয়ে তৃণমূল

বৃহস্পতিবার রাজ্যে কোভিড পরীক্ষা হয়েছে ৩২ হাজার ৬১৭ জনের। এর মধ্যে নতুন আক্রান্ত ৬৮০ জন। এর ফলে সংক্রমণের হার হয়েছে ২.০৮ শতাংশ। প্রতিদিন কত সংখ্যক টেস্ট হচ্ছে এবং তার মধ্যে প্রতি ১০০ জনে কত জনের রিপোর্ট পজিটিভ আসছে, সেই পরিসংখ্যানকেই বলা হয় পজিটিভিটি রেট বা সংক্রমণের হার। বুধবার সংক্রমণের হার ছিল ২.৪০ শতাংশ। কিন্তু এ দিন টেস্ট বাড়ার পরেও নতুন সংক্রমিতের সংখ্যা লাগামের মধ্যে থাকা স্বস্তি জোগাল রাজ্যের স্বাস্থ্য কর্তাদের।

বৃহস্পতিবার রাজ্যে কোভিড পরীক্ষা হয়েছে ৩২ হাজার ৬১৭ জনের। এর মধ্যে নতুন আক্রান্ত ৬৮০ জন। এর ফলে সংক্রমণের হার হয়েছে ২.০৮ শতাংশ। প্রতিদিন কত সংখ্যক টেস্ট হচ্ছে এবং তার মধ্যে প্রতি ১০০ জনে কত জনের রিপোর্ট পজিটিভ আসছে, সেই পরিসংখ্যানকেই বলা হয় পজিটিভিটি রেট বা সংক্রমণের হার। বুধবার সংক্রমণের হার ছিল ২.৪০ শতাংশ। কিন্তু এ দিন টেস্ট বাড়ার পরেও নতুন সংক্রমিতের সংখ্যা লাগামের মধ্যে থাকা স্বস্তি জোগাল রাজ্যের স্বাস্থ্য কর্তাদের।

দৈনিক সুস্থ এবং দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যার মধ্যে বৃহস্পতিবার ফারাক সামান্যই। এ দিন পাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়েছেন ৬৯৪ জন। এর ফলে রাজ্যে এ পর্যন্ত সুস্থের সংখ্যা এখন ৫ লক্ষ ৪৬ হাজার ১৯৩ জন। এ দিন সুস্থতার হার আগের দিনের মতোই, ৯৬.৯৩ শতাংশ। রাজ্যে এই মুহূর্তে সক্রিয় করোনা রোগী রয়েছেন ৭ হাজার ২৯২ জন যা বুধবারের তুলনায় মাত্র ৩১ জন কম।

দৈনিক সুস্থ এবং দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যার মধ্যে বৃহস্পতিবার ফারাক সামান্যই। এ দিন পাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়েছেন ৬৯৪ জন। এর ফলে রাজ্যে এ পর্যন্ত সুস্থের সংখ্যা এখন ৫ লক্ষ ৪৬ হাজার ১৯৩ জন। এ দিন সুস্থতার হার আগের দিনের মতোই, ৯৬.৯৩ শতাংশ। রাজ্যে এই মুহূর্তে সক্রিয় করোনা রোগী রয়েছেন ৭ হাজার ২৯২ জন যা বুধবারের তুলনায় মাত্র ৩১ জন কম।

Advertisement