×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২০ জুন ২০২১ ই-পেপার

ফাইনাল পরীক্ষার জটে উচ্চশিক্ষায় যাওয়া ছাত্রেরা

মধুমিতা দত্ত
কলকাতা ১০ জুন ২০২১ ০৬:১৯
প্রতীকী ছবি।

প্রতীকী ছবি।

কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতকোত্তর ফাইনাল সিমেস্টারের পরীক্ষা নেওয়ার কথা রয়েছে অগস্টে। কিন্তু সে ক্ষেত্রে রীতিমতো অসুবিধার মুখে পড়বেন উচ্চশিক্ষার জন্য বিদেশে বা দেশের অন্যান্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যেতে চাওয়া পড়ুয়ারা। ইতিমধ্যে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কাছে এ নিয়ে আবেদনও করেছেন তাঁরা।

এ বছরেও কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের বহু পড়ুয়া স্নাতকোত্তরের পরে ইউরোপ-আমেরিকা সহ বিভিন্ন দেশের বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চশিক্ষার জন্য যাচ্ছেন। এঁদের অনেককে অগস্টের মধ্যেই সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে পৌঁছতে হবে। কিন্তু ফাইনাল সিমেস্টারের পরীক্ষা অগস্টে হলে তাঁরা সময়ের মধ্যে ক্যাম্পাসে পৌঁছবেন কী ভাবে, সেই প্রশ্ন তুলছেন পড়ুয়াদের একাংশ।

যদিও বিদেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলির নিয়ম অনুযায়ী, পড়ুয়ারা আগে এসে ক্লাসে যোগ দিতে পারেন। সে ক্ষেত্রে অক্টোবর-নভেম্বরের মধ্যে স্নাতকোত্তরে উত্তীর্ণ হওয়ার প্রমাণপত্র জমা দিলেও হয়। কিন্তু অগস্টে পরীক্ষা হলে এবং একই মাসে উচ্চশিক্ষার জন্য বিদেশে পাড়ি দিতে হলে কী ভাবে আদৌ পরীক্ষাটা দেওয়া সম্ভব, সেই প্রশ্ন তুলছেন কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়াদের একাংশ।

Advertisement

সূত্রের খবর, গত সেপ্টেম্বরের ইউজিসি-র নির্দেশ মেনে ফাইনাল পরীক্ষা অগস্টে করার কথা জানিয়েছে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়। যদিও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক মহলের একাংশের বক্তব্য, ইউজিসি-র ওই নির্দেশে শুধুমাত্র প্রথম বর্ষের দ্বিতীয় সিমেস্টারের পরীক্ষা অগস্টে নেওয়ার কথা বলা হয়েছিল। এর আগে গত এপ্রিলে ফাইনাল সিমেস্টার-সহ অন্য ইভেন সিমেস্টারের পরীক্ষা চলতি বছরের জুলাইয়ের মধ্যে শেষ করতে নির্দেশ দেয় ইউজিসি। সেই নির্দেশের কোনও বদল পরে করেনি তারা।

তাই শিক্ষকদের দাবি, পরীক্ষার সময় নিয়ে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে কোনও ভুল বোঝাবুঝি হচ্ছে। বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে ভাবা প্রয়োজন কর্তৃপক্ষের। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির (কুটা) সাধারণ সম্পাদক সাংখ্যায়ন চৌধুরী বুধবার জানান, প্রযুক্তি ফ্যাকাল্টির ক্ষেত্রে অন্যান্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলির সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে পরীক্ষাসূচি না-হলে ছাত্রছাত্রীদের সমস্যা হবে। তিনি বলেন, ‘‘বিষয়টি নিয়ে আমরা ওয়াকিবহাল। এ নিয়ে কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করছি।’’ তিনি আরও জানান, বিদেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে যে সব পড়ুয়া উচ্চশিক্ষার জন্য ইতিমধ্যেই মনোনীত, তাঁদের অনেকেরই চলতি মাসের শেষে ‘কোর্স কমপ্লিশন সার্টিফিকেট’ চাই। কিন্তু অগস্টে পরীক্ষা হলে তা সম্ভব নয়।

কুটার সভাপতি পার্থিব বসু বলেন, ‘‘ইউজিসি-র নিয়ম মেনে অবিলম্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের ফ্যাকাল্টি কাউন্সিলগুলি এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিক। এই পরিস্থিতিতে কর্তৃপক্ষকে ছাত্রছাত্রীদের স্বার্থ খেয়াল রাখতে হবে।’’

যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় অবশ্য জুন-জুলাইয়ের মধ্যে ফাইনাল সিমেস্টারের সব পরীক্ষা নিচ্ছে। এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির (জুটা) সাধারণ সম্পাদক পার্থপ্রতিম রায় বলেন, ‘‘যাদবপুরে ইউজিসি-র নির্দেশ অনুসারে প্রথম বর্ষ বাদে সব পরীক্ষা চলতি মাস থেকে শুরু হচ্ছে। প্রথমে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর স্তরের ফাইনাল সিমেস্টারের উপরে। প্রথম বর্ষ ছাড়া সব পরীক্ষা জুলাইয়ের মধ্যে শেষ হয়ে যাবে, যাতে পড়ুয়ারা বিদেশে বা দেশের অন্যত্র গিয়ে কোর্স কমপ্লিশন সার্টিফিকেট জমা দিতে পারেন।’’ তবে এ নিয়ে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহ-উপাচার্য (শিক্ষা) আশিস চট্টোপাধ্যায়কে ফোন এবং মেসেজ করা হলেও উত্তর মেলেনি।



Tags:

Advertisement