Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৪ জানুয়ারি ২০২২ ই-পেপার

হারলেও উন্নয়নে পাশে থাকার আশ্বাস দেবের

ডেবরা, পিংলার পর এ বার সবং। ঘাটাল লোকসভা আসনে তৃণমূলের অভিনেতা-প্রার্থী দেব বৃহস্পতিবার অন্যতম প্রতিদ্বন্দ্বী কংগ্রেসের মানস ভঁুইয়ার খাসতালু

দেবমাল্য বাগচি
সবং ১৮ এপ্রিল ২০১৪ ০১:৪৪
সবংয়ের এগারো মাইলে হাত মেলাচ্ছেন দেব। ছবি: রামপ্রসাদ সাউ।

সবংয়ের এগারো মাইলে হাত মেলাচ্ছেন দেব। ছবি: রামপ্রসাদ সাউ।

ডেবরা, পিংলার পর এ বার সবং। ঘাটাল লোকসভা আসনে তৃণমূলের অভিনেতা-প্রার্থী দেব বৃহস্পতিবার অন্যতম প্রতিদ্বন্দ্বী কংগ্রেসের মানস ভঁুইয়ার খাসতালুক সবংয়ে এসে উন্নয়নের স্বার্থে মিলেমিশে কাজ করার বার্তা দিলেন।

এ দিন সবং বিধানসভার ৯টি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় রোড-শো ছিল এই তারকা প্রার্থীর। কর্মসূচি শেষে সাংবাদিক বৈঠকে তাঁর বার্তা, “শত্রুতা করে তো লাভ নেই। মিলে মিশে কাজ করতে হবে। যিনিই জিতুন না কেন, তাঁকে ঘাটালের উন্নয়ন করতে হবে।” তাঁর প্রতিশ্রুতি, “যদি হেরে যাই, আমি ওঁদের সঙ্গে থাকব। কিন্তু জিতলে আমিও চাইব, ওঁরাও যেন উন্নয়নের জন্য আমার পাশে থাকেন। সব শেষে মানুষের যেন ভাল হয়।”

পিংলা ব্লকের এগারো মাইল থেকে এ দিন শুরু হয় দেবের রোড-শো। হুডখোলা গাড়িতে সবজে রঙের টি-শার্ট আর জিনস্‌ প্যান্টে বেশ প্রাণবন্ত লাগছিল টলিউডের হার্টথ্রবকে। পাশে ছিলেন জেলা সভাপতি দীনেন রায়, বিধানসভার দলের নির্বাচনী চেয়ারম্যান অমূল্য মাইতি, জেলা কার্যকরী সভাপতি নির্মল ঘোষ। রোড-শো তেঁতুলমুড়ি হয়ে করকাইতে পৌঁছতে সালো মাণ্ডি, লক্ষ্মী কিস্কুরা আদিবাসী নৃত্যের সঙ্গে প্রিয় তারকাকে বরণ করে নেন। হাত-দশেক এগোতেই ক’য়েক হাজার মানুষের ভিড় উপচে পড়ে দেবের হুডখোলা গাড়ির উপর। অবস্থা দেখে গাড়ি থেকে নেমে রাস্তার ধারেই মঞ্চে উঠে পড়েন তৃণমূল প্রার্থী। দেব বলেন, “সব ঠিকঠাক তো! ১২ মে সবাই ভোট দিচ্ছেন তো? আবার আসব কথা দিচ্ছি। আই লাভ ইউ।”

Advertisement

এই সময় তুমুল উন্মাদনায়, অনুরাগীদের ঠেলাঠেলিতে দেবের ডান হাতের কড়ে আঙুলে সামান্য কেটে যায়। সবংয়ের পানিথরে পৌঁছেও বজায় ছিল চেনা উচ্ছ্বাস। সিন্দুরদা, হিতালজোড়, বলপাই, তিলপাড়া, রানিচক, শ্যামসুন্দরপুর হয়ে রোড-শো পৌঁছায় দুবরাজপুর। এ দিনের রোড-শো যতই এগিয়েছে চড়া রোদ সত্ত্বেও ততই বেড়েছে জনস্রোত।

দুবরাজপুরের একটি ময়দানে হুড খোলা গাড়ির বদলে নিজের গাড়িতে গিয়ে বসেন দেব। সেখান থেকে ওই গাড়িতেই মোহাড়ে পৌঁছন তিনি। ওই ৫ কিলোমিটার পথের দু’ধারেই ছিলেন দেবভক্তেরা। উল্লেখ্য, নির্বাচনী কেন্দ্র ঘাটালে এই প্রথম পদযাত্রা করলেন দেব। এখানেই বেলা বিশ্রাম নেন তিনি। বিকেল চারটে নাগাদ ফের তিনি বেরিয়ে পড়েন কাঁটাখালি, আমরাখালি, লাঙলকাটা, বিষ্ণুপুর, বুড়াল, খেপাল, সবং হয়ে তেমাথানির দিকে। রোড-শো শেষ হয় সন্ধ্যে সাতটা নাগাদ। কেমন লাগছে এতটা পথ পেরিয়ে? ‘অক্লান্ত’ দেব বলেছেন, “মনের জোরটাই বড় কথা। এত অনুরাগীকে দেখতে পেয়ে ভাল লাগছে।”

বস্তুত, বুধবার ও বৃহস্পতি পরপর এই দু’দিন পিংলা এবং সবং ব্লকের প্রত্যন্ত এলাকায় চষে বেরিয়েছেন দেব। সফরের অধিকাংশ পথ ছিল মোরামের। পুষ্পবৃষ্টির সঙ্গে গায়ে এসে লেগেছে লাল ধুলো। কানে এসেছে মানুষের বিস্তর অভাব অভিযোগ। দুপুরে বিশ্রামের ফাঁকেই সেরেছেন সাংবাদিক বৈঠকও। দেবের কথায়, “জিতলে আমার প্রথম কাজই হবে রাস্তা সংস্কার।” কেন এমন ভাবনা তা-ও জানিয়েছেন তিনি। দেব বলেন, “প্রত্যন্ত এলাকায় সবচেয়ে বড় সমস্যা রাস্তা। অনেক জায়গায় এখনও রয়েছে মোরাম রাস্তা।” ঘাটালে প্রতি বছরই নিয়ম করে বন্যা পরিস্থিতি তৈরি হওয়ায় রাস্তাঘাট আরও খারাপ হয় তা-ও জানেন এই তারকা প্রার্থী। তাই তিনি পাখির চোখ করেছেন রাস্তা সংস্কারই।

তবে, জিতলে ঘাটালের সার্বিক উন্নয়নেও জোর দেবেন বলে এ দিন স্পষ্ট করেছেন দেব। প্রত্যয়ের সঙ্গে দেব এ দিন বলেন, “আগে পাঁচ বছর যিনি ছিলেন, তাঁর সঙ্গে আমার সময়কাল মিলিয়ে দেখে নেবেন কাজ হল কি না!”

আরও পড়ুন

Advertisement