Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৪ জানুয়ারি ২০২২ ই-পেপার

নিষ্ক্রিয় পুলিশ, থানা ঘেরাও বিজেপির

নিজস্ব সংবাদদাতা
খড়্গপুর ১৯ জুলাই ২০১৪ ০১:১১
চলছে দাঁতন থানা ঘেরাও কর্মসূচি। —নিজস্ব চিত্র

চলছে দাঁতন থানা ঘেরাও কর্মসূচি। —নিজস্ব চিত্র

তৃণমূলের সন্ত্রাস ও পুলিশি নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগ তুলে থানা ঘেরাও করল বিজেপি’র নেতা-কর্মীরা। শুক্রবার দাঁতন থানায় বিজেপির পক্ষ থেকে একটি স্মারকলিপিও জমা দেওয়া হয়। শুক্রবার থানা ঘেরাও কর্মসূচিতে নেতৃত্বে দেন বিজেপির জেলা সভাপতি তুষার মুখোপাধ্যায়, জাতীয় পরিষদের সদস্য প্রদীপ পট্টনায়েক, মণ্ডল সভাপতি বিবেকানন্দ বিশ্বাস, দলীয় নেতা বিশ্বজিৎ নন্দ প্রমুখ।

শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টায় দাঁতন থানার সামনে বিজেপি নেতা-কর্মীরা জমায়েত করেন। বিজেপি’র অভিযোগ, দাঁতন থানা এলাকার গ্রামগুলিতে তৃণমূলের সন্ত্রাসে সাধারণ মানুষ বিপর্যস্ত। তৃণমূলের লোকেরা জোর করে সাধারণ মানুষের জমি কেড়ে নিচ্ছে। প্রতিবাদ করলে বিজেপি কর্মীদের মারধর, তাঁদের বাড়ি ভাঙচুর করা হচ্ছে।

বিজেপি’র আরও অভিযোগ, তৃণমূলের সন্ত্রাসের বিষয়ে পুলিশে অভিযোগ জানানো সত্বেও পুলিশ নির্বিকার। উল্টে বিজেপি কর্মীদেরই পুলিশ গ্রেফতার করছে। গত ২২ জুন দাঁতন ব্লকের চকইসমাইল গ্রাম পঞ্চায়েতের বরঙ্গি গ্রামে বিজেপি-তৃণমূল সংঘর্ষে জখম হন দু’পক্ষের ৬ জন। দু’পক্ষই পুলিশে ঘটনার অভিযোগ দায়ের করে। তবে বিজেপির ৮ জনকে পুলিশ গ্রেফতার করলেও তৃণমূলের কেউ গ্রেফতার হয়নি। ঘটনায় ক্ষুদ্ধ কর্মীরা শুক্রবার পুলিশের বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগে সরব হন।

Advertisement

তাছাড়াও নির্বাচনের পরে শালিকোটার কুহুরা গ্রামে বিজেপির একটি দলীয় কার্যালয় দখল, ওই গ্রাম পঞ্চায়েতেই নির্বাচনের আগে দলের এক কর্মীকে মারধর, চকইসমাইলপুরে কর্মীদের মারধরের ঘটনায় তৃণমূলের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলেছিল বিজেপি। কিন্তু পুলিশ এই ঘটনাগুলিতেও কোনও ব্যবস্থা নেয়নি বলে অভিযোগ।

জেলা বিজেপি সভাপতি তুষার মুখোপাধ্যায় অভিযোগ করেন, “এই জেলার প্রতিটি থানা এসপি-র নির্দেশ পালন করে পক্ষপাতিত্ব করছে। পুলিশ আমাদের অভিযোগ নিচ্ছে না। আর অভিযোগ নিলেও উল্টে আমাদের কর্মীদের গ্রেফতার করা হচ্ছে। আমাদের দলীয় কর্মসূচির অনুমতি দেওয়া হচ্ছে না।” তিনি আরও বলেন, “পুলিশে তৃণমূলকে আড়াল করার এই প্রবণতার বিরুদ্ধেই আমাদের এই প্রতিবাদ কর্মসূচি।” আজ, শুক্রবার মোহনপুর ব্লকেও বিজেপি বিক্ষোভ কর্মসূচি নিয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

সিপিএমের উদ্যোগ। সিপিএমের গোয়ালতোড় জোনাল কমিটির উদ্যোগে শুক্রবার এক রক্তদান শিবিরের আয়োজন করা হয়। সবমিলিয়ে ৪৩ জন রক্তদান করেন। এই উপলক্ষে সভা হয়। সভা থেকে গাজায় ইজরায়েলের লাগাতার আক্রমণের প্রতিবাদ করেন নেতৃত্ব। ছিলেন সিপিএম নেতা নির্মল ঘোষ, বিজয় পাল, কৃষ্ণপ্রসাদ দুলে প্রমুখ।

আরও পড়ুন

Advertisement