×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

০১ অগস্ট ২০২১ ই-পেপার

মেয়ের কাছে ক্ষমা চাইলেন বাবুল

সুস্মিত হালদার
কৃষ্ণনগর ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ ০০:৪৪
প্রচারে বেরোনোর আগে কৃষ্ণনগরে পিসির বাড়িতে দুপুরের খাওয়া সারছেন বাবুল সুপ্রিয়। সোমবার সুদীপ ভট্টাচার্যের তোলা ছবি।

প্রচারে বেরোনোর আগে কৃষ্ণনগরে পিসির বাড়িতে দুপুরের খাওয়া সারছেন বাবুল সুপ্রিয়। সোমবার সুদীপ ভট্টাচার্যের তোলা ছবি।

সারা দিনের ক্লান্তিতে ঘুমিয়ে পড়েছিলেন তিনি। তাই রাতে আর মেয়েকে ফোন করা হয়নি। সকালে উঠে ফোনে মেয়েকে ‘সরি’ বলেই শান্ত করতে হল বিজেপির সাংসদ বাবুল সুপ্রিয়কে। আর সব শেষে ছোট পিসির কাছ থেকে মায়ের জন্য নিয়ে গেলেন এঁচোড় আর নারকেল। দিল্লির বাংলোয় লাগাবার জন্য নিয়ে গেলেন বাহারি ফুলের গাছ। অকাতরে বিলোলেন অটোগ্রাফ। পিসির বাড়ির সামনে ভিড় করে থাকা ভক্তদের আবদারে তাঁদের সঙ্গে তুললেন অজস্র ছবি। আর সব শেষে যাওয়ার সময় তাঁদেরকে আশ্বস্ত করে বললেন, “আবার আসব।”

রবিবার দুপুর থেকে রাত পর্যন্ত দলীয় প্রার্থীর হয়ে হাঁসখালিতে ‘রোড-শো’ করে রাত প্রায় পৌনে ১০টা নাগাদ কৃষ্ণনগরের পাত্রবাজারে পিসির বাড়িতে হাজির হয়েছিলেন বাবুল সুপ্রিয়। তার আগে পাত্রবাজার মোড়ে কয়েক জন যুবককে ক্যারাম খেলতে দেখে গাড়ি থেকে নেমে পড়েন তিনি। এক বোর্ড ক্যারাম খেলে সোজা পিসির বাড়ি। কৃষ্ণনগরে থাকেন বাবুল সুপ্রিয়র ছোট পিসি নন্দিতা আড্ডি। পিসেমশাই অশোক আড্ডি একজন অবসরপ্রাপ্ত মনোবিদ। এর আগেও একাধিকবার পিসির বাড়িতে এসেছিলেন তিনি। কিন্তু মন্ত্রী হওয়ার পরে এই প্রথম।

কথায় কথায় জানালেন, এখনও নতুন গান শোনানোর পর পিসির মতামতটা তাঁর কাছে খুব মূল্যবান। তাই সোমবার সকাল সাড়ে ৮টার নাগাদ ঘুম থেকে ওঠার পরে তাঁর নতুন রেকর্ড করা সিডি চালিয়ে পিসিকে শুনিয়েছেন। পিসির মতামত নিয়েছেন। বাবুল বলেন, “সকালে উঠে সকলের সঙ্গে গল্প করতে করতে নতুন অ্যালবামটার গানগুলো শুনে নিয়েছি। দু’টো গান এখনও সিলেক্ট করা বাকি রয়েছে যে।” আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি ‘বিকজ আই লাভ ইউ’ অ্যালবামটি আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন বেঙ্কাইয়া নাইডু। এ দিন আড্ডার ফাঁকে তিনি সেই অ্যালবামের ফাইনাল ডিজাইনটাও দেখে নিয়েছেন। মুম্বইয়ে সদ্য রেকর্ডিং করা ‘আমার বেলা যে যায়’ গানের ‘ফাইনাল ভয়েস’ পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। আর তারই ফাঁকে পিসি, পিসেমশাই আর ভাইয়ের সঙ্গে চুটিয়ে গল্প করেন তিনি।

Advertisement

ভাইপো আসবে বলে নন্দিতাদেবী ভাইপোর প্রিয় মালাইকারি আর কষা খাসির মাংস রান্না করে রেখেছিলেন। রাতে সামান্য ফ্রায়েড রাইস আর একটা রুটি দিয়ে খেয়েছেন সেই রান্না। কিন্ত এ বার আর একটার বেশি রুটি খেলেন না বলে বেজায় মন খারাপ পিসির। নন্দিতাদেবী বলেন, “অন্য বার এসে চার-পাঁচটা করে চিংড়ি খেত। কিন্তু এ বার এত বার বলার পরেও একটার বেশি খেল না। মনটা ভাল থাকে বলুন?’’

কিন্তু কেন খাবার নিয়ে এত কড়াকড়ি। দুপুরে খেতে বসে বাবুল সুপ্রিয় বলেন, “ভোটের পরে ওজন অনেকটাই বেড়ে গিয়েছিল। তাই খাওয়ার উপরে একটু নজর রাখতে হচ্ছে।” কড়াকড়ি এতটাই যে সকালে ঘুম থেকে ওঠার পরে লেবু চা আর তার সঙ্গে ডিমের সাদা অংশের ওমলেট। আর দুপুরে নানা সব্জি আর সেদ্ধ মুরগি মাংস। তাই পরম তৃপ্তি করে খেলেন। পরে খাওয়ার জন্য সঙ্গেও কিছু নিলেন।

তিনি জানান, ওই ডায়েট চার্টের কথা অভিনেতা প্রসেনজিত্‌ চট্টোপাধ্যায় তাঁকে জানিয়েছিলেন। খাওয়ার মাঝখানে আসে মেয়ের ফোন। রাতে ফোন না করতে পারার জন্য ‘সরি’ চেয়ে নিয়ে তাকে শান্ত করেন তিনি। গাড়িতে বসে ফোন করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে আবার ব্যস্ত হয়ে পড়লেন খাওয়ায়। পিসির থেকে সুগার ফ্রি রসগোল্লা খেলেন গোটা তিনেক। তারই মধ্যে মেলে মেয়ের পাঠানো অঙ্কের সমাধান করার চেষ্টা। সব শেষে বাড়ি থেকে বের হওয়ার সময় বললেন, “মন্ত্রকের প্রচুর কাজ পড়ে রয়েছে। অনেক মেল আসছে। ঠাকুরনগরে সভাতে যাওয়ার আগে গাড়িতে মন্ত্রকের কাজগুলো সেরে ফেলতে হবে। এই সময়টা পেয়ে ভালই হল।”

একাধারে তিনি ব্যস্ত গায়ক। সেই সঙ্গে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীও। সঙ্গে আবার দলের স্টার প্রচারক। কিন্তু সে সবেরও উপরে তিনি একজন স্নেহশীল বাবা। কথার ফাঁকে যা বারবার ফুটে উঠছিল প্রকট ভাবে। বার বার। আর সবটাই কিন্তু সামলাচ্ছেন দক্ষ হাতে।

Advertisement