×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২৪ জুন ২০২১ ই-পেপার

ঘাটপাড়ের সম্প্রীতির পুজো

নিজস্ব সংবাদদাতা
আলিপুরদুয়ার ২২ অক্টোবর ২০১৪ ০২:০৪

টানা ২৪ বছর ধরে আলিপুরদুয়ারের তোর্সা নদীর ঘাটপাড় রাজীববাজার এলাকায় কালীপুজোর আয়োজন করে আসছেন সোলেমন আলি, আফিজুদ্দিন মিয়াঁরা। মা কালীর আরাধনার সঙ্গে এলাকায় কালী পুজো উপলক্ষ্যে মেলার আয়োজন হয়। প্রতিবছর চাঁদা তোলা থেকে প্রতিমা বিসর্জন,সবেতেই জাত-ধর্ম নির্বিশেষে অংশ নেন এলাকার মানুষেরা। আলিপুরদুয়ার ১ ব্লকের পূর্বকাঠালবাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েতে শীলতোর্সা নদীর পাশের এই কালীপুজো নিয়ে গর্ব বাসিন্দাদের।

পুজো কমিটির সম্পাদক সোলেমন আলি বলেন, “আমাদের কমিটিতে হিন্দু-মুসলমান বলে কিছু নেই। এলাকার সমস্ত মানুষের মুখে উত্‌সবের আনন্দ দিতে আমরা কালী পুজোর আয়োজন করি। কমিটির সভাপতি সহেরুদ্দিন মিয়াঁ, কোষধ্যক্ষ গোপাল আধিকারীরা জানালেন, কালী পুজো ও মেলা মিলিয়ে এ বছর বাজেট প্রায় সাড়ে তিন লক্ষ টাকা। প্রবীন বাসিন্দা আফুজুদ্দিন মিয়াঁ জানান, আগে আশপাশের এলাকায় দুর্গাপুজো, রাসমেলা ও লক্ষী পুজো হত। সেই সব ঘিরে নানা অনুষ্ঠান ও মেলা বসত। আমাদের এলাকাটা ফাঁকা থাকত। এলাকার ছোটবড় সকলের কথা চিন্তা করে ২৪ বছর আগে তোর্সা ইউনাইটেড ক্লাব তৈরী করা হয়। সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়, এলাকায় কালী পুজো এবং মেলা দু’টোই করা হবে। আমার পুজো শুরু করি।”

পুজো কমিটির সদস্য নরেশ বর্মন বলেন, “এখানে সবাই এক সঙ্গে কালীপুজোয় অংশ নেয়।”

Advertisement

মহাবুল আলম, ভম্বল মিয়াঁরা জানান, এ বছর ২৯ অক্টোবর থেকে ৩ নভেম্বর পর্যন্ত মেলা বসবে। সেখানে ভাওয়াইয়া, দোতারা নিয়ে কুষানযাত্রা, কলকাতা থেকে শিল্পী এসে যাত্রা-সহ নানা বিচিত্রা অনুষ্ঠান থাকছে। তার পরে প্রতিমা ভাসান হবে। সোলেমন আলি জানান, পুজোর পরের দিন ভোরে খিচুড়ি খেতে কয়েকশো বাসিন্দা ভীড় জমান। রাতে মণ্ডপ পাহারা দেন আফুজুদ্দিন মিয়াঁ। ফালাকাটার তৃণমূল বিধায়ক অনিল অধিকারী বলেন, “তোর্সা ঘাট পাড় রাজীব বাজারের পুজো জাতি ধর্ম নির্বিশেষে মিলন মেলা।” আলিপুরদুয়ারের কংগ্রেস বিধায়ক দেবপ্রসাদ রায়েরও একই মত।

আজ, বুধবার চর্তুদশীতে মহাকালীর আরাধনা করবে আলিপুরদুয়ার সবুজ সঙ্ঘ। ৩৪ বছর ধরে মহাকালীর আরাধনা করে আসছে তারা। পুজো উদ্যোক্তা তপেন কর বলেন, “মহাকালীর পুজোর সঙ্গে নির্দিষ্ট তিথিতে আমরা শ্যামা পুজো করি। এ বছর পুজোর বাজেট প্রায় পাঁচ লক্ষ টাকা। প্লাইবোর্ড ও কলাপাতা দিয়ে প্রায় ৪৮ ফুট উচু ও ৭২ ফুট চওড়া মণ্ডপ তৈরী হচ্ছে। বুধবারে মহাকালী পুজো ও বৃহস্পতিবার শ্যামা পুজো হবে।” চন্দননগরের আলোকসজ্জাও হবে বলে জানিয়েছেন পুজো উদ্যোক্তারা। ২৮ বছরে পড়ল আলিপুরদুয়ার জংশন সাউথ বয়েজের কালী পুজো। প্রায় ৩ লক্ষ টাকা বাজেটের পুজোয় ওড়িশার ধবলগিরির অনুকরণে মণ্ডপ তৈরী হচ্ছে।

Advertisement