Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৮ জানুয়ারি ২০২২ ই-পেপার

নতুন দলের ঘোষণা অতুলের

ভাঙনের আভাস পাওয়া গিয়েছিল। সোমবার আনুষ্ঠানিক ভাবে নতুন দল গড়ার কথা ঘোষণা করল কামতাপুর পিপলস পার্টি (কেপিপি)-এর নেতা অতুল রায়। তিনি নতুন দলের

নিজস্ব সংবাদদাতা
শিলিগুড়ি ০৮ জুলাই ২০১৪ ০২:১৮

ভাঙনের আভাস পাওয়া গিয়েছিল। সোমবার আনুষ্ঠানিক ভাবে নতুন দল গড়ার কথা ঘোষণা করল কামতাপুর পিপলস পার্টি (কেপিপি)-এর নেতা অতুল রায়। তিনি নতুন দলের নাম দিয়েছেন অল কামতাপুর পিপলস পার্টি (একেপিপি)। এদিন শিলিগুড়িতে সাংবাদিক বৈঠক করে দল গঠনের কথা ঘোষণা করেন অতুল রায় গোষ্ঠী। তাঁর দাবি, তাঁর দলই মূল কেপিপি। তাঁরা দলের রূপান্তর করেছেন মাত্র। নতুন দলে উত্তরবঙ্গের সাতটি জেলা সহ সীমান্ত সংলগ্ন অন্য রাজ্যগুলির প্রতিনিধিরা যোগ দিয়েছেন বলে তিনি জানিয়েছেন। তার মধ্যে মেঘালয়ের প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রীও রয়েছেন।

গত লোকসভা নির্বাচনের সময় থেকেই কেপিপির দুই গোষ্ঠীর মধ্যে বিজেপিকে সমর্থনের প্রশ্নে বিভাজন তৈরি হয়। অতুল গোষ্ঠী বিজেপিকে সরাসরি সমর্থন করেন। যা পছন্দ হয়নি নিখিল রায় ও তার অনুগামীদের। এনডিএ সরকার গড়ার পর কেপিপিকে জোট শরিক হিসেবে প্রকাশ করে। বিতর্ক চরমে ওঠে। তারই ভিত্তিতে রবিবার ময়নাগুড়িতে বৈঠক ডেকে সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যের উপস্থিতিতে অতুলবাবুকে দল থেকে বহিষ্কার করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়।

তবে অতুলবাবুর দাবি, “আমাকে কেউ বহিষ্কার করেনি। দলটি আমার। আমরা আগের কমিটি ভেঙে দিয়েছি। নতুন কমিটি তৈরি হয়েছে। তাতে অসম ও মেঘালয় থেকে প্রতিনিধি নেওয়া হয়েছে।” এই প্রতিনিধিরা কামতাপুর রাজ্যের দাবিতে তাঁদের সঙ্গেই রয়েছেন বলেও তিনি এ দিন দাবি করেন। অল কামতাপুর পিপলস পার্টিতে যোগ দেওয়া মেঘালয়ের কোপিন চন্দ্র বোরো বলেন, “বহুদিন ধরেই অতুলবাবুরা পৃথক কামতাপুর রাজ্যের দাবিতে লড়াই চালাচ্ছেন। এই দাবিকে সমর্থন করেই আমরা তাঁদের দলে যোগ দিয়েছি।” উত্তরবঙ্গের বোরোদেরও তিনি সংগঠিত করতে চান বলে জানান।

Advertisement

রবিবার শিলিগুড়িতে বৈঠক করে ১৪ জনের কেন্দ্রীয় কমিটি তৈরি করা হয়েছে। তাতে অতুল রায় সভাপতি নির্বাচিত হন। সম্পাদক পদে দুজনকে নির্বাচিত করা হয়েছে। উত্তম রায় ও আনারুল শেখ। কোপিনুকে মুখপাত্র করা হয়েছে। কেপিপিকে রূপান্তরিত করা হয়েছে দাবি করলেও, নিখিল রায়ের নেতৃত্বে একটা বড় অংশ নিয়ে কেপিপির অন্য গোষ্ঠী তাঁকেই মূল কেপিপি থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে জানিয়েছেন। তা নিয়ে এদিন কোনও মন্তব্য করতে চাননি তিনি।

এ দিন নতুন দল গঠন করেই বিভিন্ন দাবি তুলে রাজনৈতিক ভাবে নিজেদের প্রভাব বিস্তার করা চেষ্টা করেন তাঁরা। জলপাইগুড়ি বজরাপাড়ায় বোমা বিস্ফোরণের গোয়েন্দা রিপোর্ট পেশ, রায়গঞ্জেই এইমস করা, ঘোষপুকুর-সলসলাবাড়ি রাস্তা কাজ দ্রুত শেষ করা ও ভাষা ও সংস্কৃতির ভিত্তিতে কামতাপুর নিয়ে বিজেপির নির্বাচনের আগে দেওয়া প্রতিশ্রুতি রক্ষার দাবিতে স্বরাস্ট্রমন্ত্রকের কাছে এক সপ্তাহের মধ্যে দাবিপত্র পাঠাবেন বলে এ দিন জানানো হয়। দাবি পূরণ না হলে আন্দোলনের হুমকি দেন তিনি।

আরও পড়ুন

Advertisement