Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৫ অক্টোবর ২০২১ ই-পেপার

৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কের বেহাল দশায় ক্ষোভ মুখ্যমন্ত্রীর

রায়গঞ্জ-ডালখোলা সংস্কার শুরু

নিজস্ব সংবাদদাতা
রায়গঞ্জ ১৮ অগস্ট ২০১৪ ০১:৪৪
৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কের রায়গঞ্জ থেকে ডালখোলা পর্যন্ত প্রায় ৫০ কিলোমিটার বেহাল রাস্তার মেরামতির কাজ শুরু। ছবি: তরুণ দেবনাথ।

৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কের রায়গঞ্জ থেকে ডালখোলা পর্যন্ত প্রায় ৫০ কিলোমিটার বেহাল রাস্তার মেরামতির কাজ শুরু। ছবি: তরুণ দেবনাথ।

জাতীয় সড়কের বেহাল পরিস্থিতি দেখে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ক্ষোভ প্রকাশের চার দিনের মাথায় উত্তর দিনাজপুর জেলার রায়গঞ্জ থেকে ডালখোলা পর্যন্ত বেহাল প্রায় ৫০ কিলোমিটার ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়ক মেরামতির কাজ শুরু করলেন জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষ। গত শনিবার থেকে চার লেন রাস্তা তৈরির কাজে জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষ নিযুক্ত একটি ঠিকাদার সংস্থার উদ্যোগে সড়ক মেরামতির কাজ শুরু হয়েছে। সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে দুর্গা পুজোর আগেই জাতীয় সড়ক মেরামতির কাজ শেষ হয়ে যাবে বলে জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষের তরফে দাবি করা হয়েছে।

জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষের মালদহ ডিভিশনের প্রকল্প অধিকর্তা মহম্মদ সইফুল্লার দাবি, তাঁরা প্রায় দুই মাস আগে জাতীয় সড়ক মেরামতির কাজ শুরু করার সিদ্ধান্ত নেন। কিন্তু বৃষ্টির কারণে সেই কাজ আটকে ছিল। তাঁর কথায়, “মুখ্যমন্ত্রী বেহাল জাতীয় সড়ক দেখে ক্ষোভ প্রকাশ করায় আমরা দুঃখিত। পুজোর আগেই মেরামতির কাজ শেষ করার চেষ্টা চলছে।” তিনি জানান, গত বছরের নভেম্বর মাসে কেন্দ্রীয় সরকার জাতীয় সড়ক মেরামত করার জন্য ৩৬ কোটি টাকা বরাদ্দ করে। সেই টাকা থেকেই মেরামতির কাজ শেষ করা হবে।

প্রশাসনিক সূত্রে খবর, প্রশাসনিক বৈঠকে যোগ দিতে গত ১১ অগস্ট কলকাতা থেকে সড়ক পথে গাড়িতে চেপে মুখ্যমন্ত্রী রায়গঞ্জে আসার সময়ে মালদহে জাতীয় সড়কের বেহাল পরিস্থিতি দেখে ক্ষোভ প্রকাশ করেন! ওই দিন কালিয়াচক থেকে মালদহ পর্যন্ত ২০ কিলোমিটারও বেশি রাস্তা বেহাল থাকায় মুখ্যমন্ত্রীর কনভয় ঘণ্টায় ১৫ থেকে ২০ কিলোমিটার গতিবেগে চলে। পর দিন দক্ষিণ দিনাজপুরের গঙ্গারামপুরে প্রশাসনিক বৈঠকে যোগ দিয়েও মুখ্যমন্ত্রী ক্ষোভ প্রকাশ করে জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষকে অবিলম্বে সড়ক মেরামতির কাজ শুরু করার অনুরোধ করেন। তাঁরা সেই কাজ করতে না পারলে রাজ্য সরকারের হাতে জাতীয় সড়ক তুলে দেওয়ারও প্রস্তাব দেন মুখ্যমন্ত্রী। এর পরেই নড়েচড়ে বসেন জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষ। মুখ্যমন্ত্রীর কনভয় ওই দিন রায়গঞ্জ-ডালখোলা জাতীয় সড়ক দিয়ে না গেলেও বৈঠকে তিনি প্রশাসন মারফত ওই রাস্তার খবর পেয়ে চটে যান। সইফুল্লাবাবুর দাবি, শুধু রায়গঞ্জ থেকে ডালখোলাই নয়, দক্ষিণবঙ্গ থেকে উত্তরবঙ্গ পর্যন্ত যে এলাকায় জাতীয় সড়ক বেহাল রয়েছে তা খুব শীঘ্রই মেরামতির কাজ শুরু হয়ে যাবে।

Advertisement

রায়গঞ্জ থেকে ডালখোলা পর্যন্ত ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়ক প্রায় এক বছর ধরে বেহাল থাকার পর গত বছরের নভেম্বর মাসে কেন্দ্রের ৩৬ কোটি টাকা বরাদ্দে সড়ক মেরামতির কাজ শুরু করেন জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষ। চলতি বছরের এপ্রিল মাসে সেই কাজ শেষ হয়! তিন মাসের মাথায় জুলাই মাসে ফের জাতীয় সড়ক বেহাল হয়ে পড়ে বলে। বর্তমানে রায়গঞ্জ, করণদিঘি, টুঙ্গিদিঘি, ঝাড়বাড়ি, নাগর, বোতল বাড়ি, দোমহনা ও ডালখোলার বিভিন্ন এলাকার জাতীয় সড়কে ছোট বড় গর্ত ও খানাখন্দের সৃষ্টি হয়েছে। কোথাও পিচের চাদর উঠে জাতীয় সড়ক কার্যত চষা জমির চেহারা নিয়েছে।

বাস মালিক এবং ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, এই পরিস্থিতিতে প্রতিদিনই জাতীয় সড়কে যানজট ও দুর্ঘটনার জেরে নিত্যযাত্রীরা দুর্ভোগে পড়ছেন! বাস, ট্রাক ও ট্রেকার সহ বিভিন্ন গাড়ি বিকল হয়ে পড়ায় পরিবহণ মালিকরা লোকসানের শিকার হচ্ছেন। সময়মতো পণ্য আনা নেওয়ার কাজ করতে না পেরে এলাকার ব্যবসায়ীরাও ক্ষতির মুখে পড়েছেন।

জেলা বাস ও মিনিবাস ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সম্পাদক প্লাবন প্রামাণিক ও পশ্চিম দিনাজপুর চেম্বার অব কমার্সের সম্পাদক জয়ন্ত সোম জানান, তাঁরা কিছুদিন আগে জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিত ভাবে সড়ক মেরামতির কাজ শুরু করার দাবি জানিয়েছিলেন। তাঁদের মতে, নিম্ন মানের কাজের জেরে মেরামতির তিন মাসের মাথায় জাতীয় সড়ক বেহাল হয়ে পড়েছে। মুখ্যমন্ত্রী হস্তক্ষেপ না করলে জাতীয় সড়ক মেরামতির কাজ এত তাড়াতাড়ি শুরু হওয়া সম্ভব ছিল না। তাঁদের কটাক্ষ, “মুখ্যমন্ত্রী এক দিন বেহাল জাতীয় সড়কে সফর করে দুর্ভোগে পড়েন। এ রকম প্রতিদিনই শতাধিক যাত্রী দুর্ভোগে পড়ছেন।”

আরও পড়ুন

Advertisement