Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

১৫ অগস্ট ২০২২ ই-পেপার

URL Copied
Something isn't right! Please refresh.

সৌহার্দ্যের ফোঁটা শহরের বৃহত্তর পরিবারে

এক সময় ভিক্ষে করেই দিন চালাতেন। এখন তাদের ছেলেমেয়েদের অনেকে বিভিন্ন গ্যারেজে, দোকানে বা অন্যত্র কাজকর্ম করছেন। তাই বলে সমীর সিংহ, প্রকাশ সরক

নিজস্ব প্রতিবেদন
২৬ অক্টোবর ২০১৪ ০০:৫৪
Save
Something isn't right! Please refresh.
চেতনা কুষ্ঠ আশ্রমে ভাইফোঁটা দিচ্ছে অনুভবের পড়ুয়ারা। আবাসিকেরা।

চেতনা কুষ্ঠ আশ্রমে ভাইফোঁটা দিচ্ছে অনুভবের পড়ুয়ারা। আবাসিকেরা।

Popup Close

এক সময় ভিক্ষে করেই দিন চালাতেন। এখন তাদের ছেলেমেয়েদের অনেকে বিভিন্ন গ্যারেজে, দোকানে বা অন্যত্র কাজকর্ম করছেন। তাই বলে সমীর সিংহ, প্রকাশ সরকার, সঞ্জয় ঋষিদেবদের মতো চেতনা কুষ্ঠ আশ্রমের বাসিন্দা বিভিন্ন পরিবারগুলির কচিকাঁচারা ভাইফোঁটার আনন্দ থেকে দূরে থাকবে? তা যাতে না হয় সেটা অনুভব করেই প্রতিবন্ধীদের জন্য তৈরি শিলিগুড়ির একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা ‘অনুভব’-এর উদ্যোগে শনিবার চেতনা কুষ্ঠ আশ্রমে ভাইফোঁটার আয়োজন করা হয়। অনুভবের পড়ুয়া মানসিক প্রতিবন্ধী মানসী সাহা, টিঙ্কু দাস, নীলম সাহার মতো মেয়েরা চেতনার বাসিন্দা প্রকাশ সরকার, বিবেক ঋষিদেব, সাব্বিথদের ভাইফোঁটা দিল। ফোঁটা দিয়ে মিষ্টি খাইয়ে তাদের মুখে হাসি ফোটাল।

গত প্রায় ১০ বছর ধরে এ ভাবেই এখানে ভাইফোঁটার আয়োজন করা হচ্ছে বলে অনুভবের তরফে জানানো হয়। এদিনও আশ্রম চত্বরে খোলা আকাশের নিচে আসন বিছিয়ে দেওয়া হয়। সার দিয়ে সেখানে বসেন সঞ্জয়, প্রকাশদের মতো কচিকাঁচা থেকে রমেশ সিংহ, খরকা সিংহের মতো যুবকেরাও। ফোঁটা দিতে এ দিন সকাল থেকে উপোস ছিল মীরা, মানসীরা। রীতি মেনেই এ দিন ফোঁটা দেয় তারা। এসেছিলেন রানা দাস, আব্দুল রহমান, সান্ত্বনা দাসদের মতো অনুভবের অন্যান্য প্রতিবন্ধী ছেলেমেয়েরাও। পুলিশ কমিশনার বলেন, “এই উদ্যোগ প্রশংসনীয়। তা ছাড়া কুষ্ঠ রোগ যে ছোঁয়াচে নয়, এবং চিকিত্‌সায় এই রোগ ভাল হয় সেই বার্তা দিতে পেরে আমি খুশি।”

Advertisement



শিলিগুড়িতে সিনির ‘মুক্তাশ্রয় আপনাঘরে’র বালিকাদের ভাইফোঁটা। ছবি: বিশ্বরূপ বসাক।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন শিলিগুড়ির বিধায়ক রুদ্রনাথ ভট্টাচার্য, পুলিশ কমিশনার জগমোহন, শিলিগুড়ির পুরসভার প্রাক্তন চেয়ারম্যান নান্টু পাল, জেলা মহিলা কমিশনের প্রাক্তন সদস্য জোত্‌স্না অগ্রবাল। এই কুষ্ঠ আশ্রম তৈরির ব্যাপারে শুরুতে উদ্যোগ নিেয়েছিলেন রুদ্রবাবু। রুদ্রবাবু বলেন,“ কুষ্ঠ ছোঁয়াচে নয়। এখানকার বাসিন্দা ছেলেমেয়েদের জন্য এগিয়ে আসা দরকার। এ দিনের অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে এই অনুভবটাই যেন বাসিন্দাদের মধ্যে ছড়িয়ে যায়। ”

শিলিগুড়ি পুলিশের কপালে ফোঁটা দিয়ে ভাইফোঁটা পালন করল স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা চাইল্ড ইন নিড ইনস্টিটিউট (সিনি)-র শিশু-কিশোর-কিশোরীরা। শনিবার সকালে শিলিগুড়ির পুলিশ কমিশনার জগমোহন সহ প্রায় ৫০ জন পুলিশ কর্মী হাজির ছিলেন ফোঁটা নিতে। ছিলেন সংবাদ মাধ্যমের কর্মীরাও। তাঁদের কপালে ফোঁটা দেন ১৭ জন কিশোরী। পুলিশ কমিশনার এমন একটি উদ্যোগ নেওয়ার জন্য সিনি কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানান। সিনির উত্তরবঙ্গের কো অর্ডিনেটর শেখর সাহাও এদিনের অনুষ্ঠান সফল হয়েছে বলে দাবি করেন। তিনি বলেন, “পুলিশ ও সংবাদমাধ্যম আমাদের ডাকে সাড়া দেওয়ায় আমরা আপ্লুত। এই মেয়েদের বিভিন্ন জায়গা থেকে উদ্ধার করে এখানে রাখা হয়। সেই কাজে সহযোগিতা করে পুলিশ ও সংবাদমাধ্যম। তাই এবারে তাঁদের নিয়েই উত্‌সবের আয়োজন করেছিলাম।”

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)


Something isn't right! Please refresh.

Advertisement