Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৬ মে ২০২২ ই-পেপার

URL Copied
Something isn't right! Please refresh.

কমিটিকে এড়িয়ে টাকা ফেরত কেন

বিভিন্ন বেআইনি অর্থ লগ্নি সংস্থার আমানতকারীদের টাকা ফেরাতে কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশে একটি কমিটি গত বছরের গোড়া থেকে কাজ করে চলেছে। তা সত্ত্

শিবাজী দে সরকার ও শমীক ঘোষ
কলকাতা ৩০ মার্চ ২০১৭ ০৩:০১
Save
Something isn't right! Please refresh.
Popup Close

বিভিন্ন বেআইনি অর্থ লগ্নি সংস্থার আমানতকারীদের টাকা ফেরাতে কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশে একটি কমিটি গত বছরের গোড়া থেকে কাজ করে চলেছে। তা সত্ত্বেও অন্য একটি সংস্থাকে একই কাজের দায়িত্ব দিয়েছে রাজ্য সরকার। এবং কোর্ট-কমিটিকে এড়িয়ে সেই দায়িত্ব অন্য সংস্থাকে দিয়ে প্রশ্নের মুখে পড়ছে তারা।

উচ্চ আদালতের নির্দেশে গড়া বিধিবদ্ধ কমিটি থাকতে সরকার নিয়োজিত ‘আর্থিক অপরাধ দমন শাখা’ কী ভাবে ওই টাকা ফেরতের কাজ করতে পারে, সেই প্রশ্ন উঠেছে রাজ্য প্রশাসনের অন্দরেই।

প্রশাসনিক সূত্রের খবর, নবান্নের নির্দেশে অপরাধ দমন শাখা ইতিমধ্যে রিস্তা ফিশারিজ নামে একটি লগ্নি সংস্থার সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার কাজ শুরু করেছে। তৃণমূল সাংসদ কেডি সিংহের অ্যালকেমিস্ট-সহ আরও চারটি বেআইনি অর্থ লগ্নির সংস্থার সম্পত্তি অধিগ্রহণ এবং বাজেয়াপ্ত করার দিকেও এগোচ্ছে তারা।

Advertisement

অন্য দিকে, হাইকোর্টের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি শৈলেন্দ্রপ্রসাদ তালুকদারের নেতৃত্বে আদালত যে-কমিটি গঠন করেছে, তারাও বেশ কিছু লগ্নি সংস্থার সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার প্রক্রিয়া শুরু করেছে। তাদের তালিকায় রয়েছে আইকোর সংস্থা। আইকোরের সম্পত্তি নিয়ে সিআইডি-কে হলফনামা দিতে বলেছে ওই কমিটি। আবার আর্থিক অপরাধ দমন শাখাও আইকোরের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার প্রক্রিয়া শুরু করেছে! এই টানাপড়েনের জেরে প্রশ্ন উঠেছে সরকারের এক্তিয়ার নিয়েই।

আইনজ্ঞদের বক্তব্য, কমিটি গড়ার আগে হাইকোর্ট সব পক্ষের মতামত নিয়েছিল। তার মধ্যে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি), সিবিআই, সিকিওরিটিজ এক্সচেঞ্জ বোর্ড অব ইন্ডিয়া (সেবি) কমিটি গড়ার পক্ষে মত দেয়। একই মত ছিল রাজ্য সরকারেরও। পরে রাজ্য তাদের নতুন আইনের সাহায্যে আমানতকারীদের টাকা ফেরতের দাবি জানায় আদালতে। তা খারিজ হয়ে যায়।

প্রবীণ আইনজীবী বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য জানান, হাইকোর্ট কমিটি গড়ে দেওয়ার পরে সুপ্রিম কোর্টে মামলা করে ইডি বলে, বেআইনি অর্থ লগ্নি সংস্থার সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার অধিকার আছে একমাত্র তাদেরই। তাই হাইকোর্ট নিযুক্ত কমিটির বদলে ইডি-র হাতে টাকা ফেরতের দায়িত্ব তুলে দিক আদালত। সুপ্রিম কোর্ট সেই আবেদন খারিজ করে দেয়।

হাইকোর্টের এক অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি বলেন, ‘‘সংবিধানের দেওয়া ক্ষমতাবলেই কলকাতা হাইকোর্টের প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি মঞ্জুলা চেল্লুর ওই কমিটি গঠন করে টাকা ফেরতের ব্যবস্থা করেন। এখন সেই কমিটিকে পাশ কাটিয়ে রাজ্য সরকার কী ভাবে টাকা ফেরানোর ব্যবস্থা করতে পারে!?’’

রাজ্য প্রশাসনের বক্তব্য, ২০১৩ সালে সরকার যে-নতুন আইন তৈরি করেছে, তাতে সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করে হাইকোর্টের অনুমোদন নিয়ে তা আমানতকারীদের ফেরত দেওয়ার অধিকার দেওয়া হয়েছে আর্থিক অপরাধ দমন শাখাকে।

আমানতকারীদের আইনজীবী শুভাশিস চক্রবর্তীর অভিযোগ, আদালতের নির্দেশে কাজ করছে কমিটি। অথচ রাজ্য সরকার এখন বেআইনি ভাবে লগ্নি সংস্থার সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার চেষ্টা চালাচ্ছে।



Something isn't right! Please refresh.

Advertisement