ভারতীয় মহিলাদের মধ্যে সবচেয়ে বড় শারীরিক সমস্যা অ্যানিমিয়া বা রক্তাল্পতা। ভারতের প্রায় সিংহ ভাগ মহিলাই এই সমস্যায় ভোগেন। অপুষ্টিকর খাবার, মাতৃত্ব যেমন এর কারণ, তেমনই এর অন্যতম বড় কারণ মহিলাদের শরীরে আয়রনের প্রয়োজনীয়তা। শারীরিক গঠনগত কারণেই পুরুষদের তুলনায় মহিলাদের বেশি আয়রন প্রয়োজন। তাই অধিকাংশ ক্ষেত্রেই তাদের শরীরে আয়রনের ঘাটতি থেকে যায়।

নিউট্রিশনিস্ট রূপালি দত্ত জানাচ্ছেন, পুরুষ বা মহিলা, সকলের জন্যই আয়রন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু একজন প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষের যেখানে প্রতি দিন ৮ মিলিগ্রাম আয়রনের প্রয়োজন, সেখানে একজন প্রাপ্তবয়স্ক মহিলার শরীরে প্রতি দিন আয়রনের প্রয়োজন ১৮ মিলিগ্রাম। যা প্রেগন্যান্সির সময় গিয়ে দাঁড়ায় ২৭ মিলিগ্রামে। গর্ভাবস্থায় প্লাসেন্টার গঠনের জন্য আয়রন অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। শুধু মায়ের জন্য নয়, শিশুর বৃদ্ধির জন্যও আয়রন জরুরি। মায়ের শরীর থেকে শিশু যে আয়রন পায়, তা জন্মের পর ৬ মাস পর্যন্ত শিশুর বৃদ্ধিতে সাহায্য করে।

মহিলাদের শরীরে আয়রনের প্রয়োজনীয়তার অন্যতম বড় কারণ মেনস্ট্রুয়েশন বা ঋতুচক্র। প্রতি মাসে শরীর থেকে প্রচুর পরিমাণ রক্তক্ষরণ হয়। যার ফলে শরীর আয়রনের ঘাটতি হয়। যা পূরণ করতে আয়রন সমৃদ্ধ খাবার খাওয়া উচিত।

আরও পড়ুন: শিশুর জন্মের আগে অবশ্যই করুন এই ৫ ‘রিয়্যালিটি চেক’

আরও পড়ুন: পিরিয়ডের সময় অবশ্যই মেনে চলুন এই ৫ হাইজিন টিপস

আয়রনের অভাব

শরীরে আয়রনের অভাব হলে রক্তে অক্সিজেনের অভাব হয়। যার ফলে অ্যানিমিয়া হতে পারে। অতিরিক্ত ক্লান্তি অ্যানিমিয়ার প্রাথমিক লক্ষণ। তাই ডায়েটে পর্যাপ্ত পরিমাণ আয়রন সমৃদ্ধ খাবার রাখুন। যেমন সবুজ শাক-সব্জি, ডিম, ড্রাই ফ্রুট, বাদাম, ডাল, বিনস, বীজ জাতীয় খাবার, গোটা শস্য, মাছ।