মাত্র পাঁচ বছর বয়স। তাতে কী? ভ্যালেন্টাইনস্ ডে সেলিব্রেট করল আরাধ্যা বচ্চনও। সঙ্গে ছিলেন ওর ভালবাসার মানুষ। গত ১৪ ফেব্রুয়ারি তাঁর সঙ্গেই ইতালিয়ান রেস্তোরাঁয় গিয়ে পিত্‌জা খায় আরাধ্যা। সেই ব্যক্তিই নিজে গাড়ি চালিয়ে আরাধ্যাকে বাড়িতেও পৌঁছে দেন। নিশ্চয়ই কৌতূহল হচ্ছে, কে আরাধ্যার সেই প্রিয় মানুষ? তিনি আর কেউ নন, আরাধ্যার দাদাজি অমিতাভ বচ্চন।

কী হয়েছিল সে দিন? গোটা ঘটনাটি নিজের ব্লগে শেয়ার করেছেন খোদ বিগ বি।

আরও পড়ুন, ‘বাহুবলী ২’-এর পোস্টারে এই ভুলটা চোখে পড়েছে কি?

অমিতাভ লিখেছেন, ‘আমার নাতনি সে দিন বাড়িতে খুব আবদার করে জানাল, ইতালিয়ান রেস্তোরাঁয় গিয়ে পিত্‌জা খেতে চায়। সঙ্গে ফ্যামিলি ডিনার। আমরা ওকে নিয়ে যাই। সেখানে গিয়ে টেবিলে বসে প্রথমে সুন্দর করে কোলের ওপর ন্যাপকিন পেতে নেয়। তারপর পিত্‌জা অর্ডার করে। খাবার সার্ভ হওয়ার পর ডেলিভারি গার্লকে ও উইশ করে হ্যাপি ভ্যালেন্টাইনস্ ডে। খাওয়া হয়ে যাওয়ার পর আমি ওকে গাড়ি চালিয়ে বাড়িতে নিয়ে আসি। বাড়ি ফেরার পর সকলে ওকে বলে দাদাজিকে থ্যাঙ্ক ইউ বলো। ও বলে ওঠে, আমি কেন ধন্যবাদ দেব? বরং তোমরা আমাকে ধন্যবাদ দাও। কারণ ডিনারের প্ল্যানটা আমিই করেছিলাম। ওর বয়স পাঁচ। অবশ্য সঙ্গে একটা শূন্য যোগ হয়েছে বোধহয়। অর্থাত ৫০!! ভাবার মতো বিষয়।’

অমিতাভ বচ্চন। ছবি: টুইটারের সৌজন্যে।