নাটোরের বড়াইগ্রামের নিখোঁজ যাজককে সিলেট থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। বাংলাদেশ পুলিশের ধারণা, পোপ ফ্রান্সিসের বাংলাদেশ সফরের সময়ে খ্রিস্টান যাজক ফাদার উইলিয়াম ওয়াল্টার রোজারিও-র এই অপহরণের পিছনে রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র রয়েছে। তবে সফর শেষ হওয়ার আগেই অক্ষত অবস্থায় যাজককে ফেরাতে পেয়ে তাঁরা হাঁফ ছেড়েছেন। কারা অপহরণ করেছিল, এই তিন-চার দিন কোথায় রাখা হয়েছিল, সে বিষয়ে ফাদারকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ।

ফাদার রোজারিও সেন্ট লুইস উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক। সোমবার সকালে বনপাড়ায় নিজের বাড়ি থেকে মোটরসাইকেলে তিনি স্কুলে আসার জন্য বেরোলেও তিনি সেখানে পৌঁছননি। সন্ধ্যায় তাঁর ভাই থানায় ডায়েরি করার পরে পুলিশ তদন্ত শুরু করে। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় তিন লক্ষ টাকা মুক্তিপণ চেয়ে ফাদারের ভাইয়ের মোবাইল ও তাঁর বাড়ির নম্বরে ফোন আসে। কিন্তু যেখানে টাকা দিয়ে আসার কথা ছিল, সাদা পোশাকের পুলিশ সেখানে গিয়ে কাউকে পায়নি।

শুক্রবার বিকেল চারটে নাগাদ সিলেটের এক বাসগুমটিতে পৌঁছে ভাইয়ের মোবাইলে ফোন করেন ফাদার। জানান, একটি গাড়িতে করে তাঁকে নিয়ে যাওয়ার সময়ে সে’টি থামামাত্র তিনি কৌশলে পালিয়েছেন। তার পরে গুমটিতে নিজের পরিচয় দিয়ে পুলিশে যোগাযোগ করতে বলেন। বাড়িতেও ফোন করেন। খবর পেয়ে পুলিশ তাঁকে উদ্ধার করে করে ঢাকায় নিয়ে আসে। পুলিশ জানিয়েছে, ফাদার সুস্থ আছেন। ঢাকায় তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদের পরে নাটোরের বাড়িতে পৌঁছে দেওয়া হবে।