টিভি-র যন্ত্রাংশ। বলা হয় ‘এলসি়ডি সেপারেটর’। তারই ভিতরে লুকোনো ছিল মোবাইল ফোনের সিম, মেমোরি কার্ড এবং পেন ড্রাইভ। সব মিলিয়ে এমন ২ কোটি টাকার মাল বাজেয়াপ্ত করল শুল্ক দফতরের স্পেশ্যাল ইনভেস্টিগেশন ব্রাঞ্চ। মঙ্গলবার, কলকাতা বিমানবন্দরের পণ্য বিভাগ থেকে।

শুল্ক অফিসারেরা জানিয়েছেন, বিদেশ থেকে আসা মালপত্র কলকাতা বিমানবন্দর থেকে লুকিয়ে বাইরে পাচার করার অভিযোগ ওঠে কয়েক মাস আগে। তদন্তে নেমে স্পেশ্যাল ইনভেস্টিগেশন ব্রাঞ্চ জানতে পারে, ভুয়ো সংস্থা দেখিয়ে বিদেশ থেকে বিভিন্ন মালপত্র আমদানি করার সঙ্গে বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষের অফিসারদের একাংশ জড়িত। অভিযোগ, শুল্ক দফতরের চোখ এড়িয়ে সেই সব মাল শুল্ক কর ফাঁকি দিয়ে বিমানবন্দরের বাইরে পাচার করে দেওয়া হত। এই অভিযোগে অক্টোবর মাসে কর্তৃপক্ষের এক সুপারইন্টেন্ডেন্ট এবং এক যুগ্ম জেনারেল ম্যানেজারকে গ্রেফতারও করা হয়।

ওই তদন্ত চলাকালীনই অফিসারেরা দেখেন, বিদেশ থেকে আসা প্রচুর জিনিস পড়ে রয়েছে পণ্য বিভাগে। তার মধ্যে বেশ কিছু জিনিস বাজেয়াপ্ত করেছেন তদন্তকারীরা। সেই বাজেয়াপ্ত করা জিনিসপত্রের মধ্যে গত নভেম্বরে কম্পিউটারের দু’টি ইউপিএস-এর ভিতর থেকে ১০ কিলোগ্রাম সোনা পান শুল্ক অফিসারেরা। যার বাজারদর প্রায় ৩ কোটি টাকা বলে মনে করা হচ্ছে। পড়ে থাকা বাকি মালপত্রের ভিতর থেকে এ বার পাওয়া গেল প্রায় ২ কোটি টাকা মূল্যের মোবাইলের যন্ত্রাংশ।