গ্রামের মধ্যেই সাইকেল নিয়ে ইতস্তত ঘুরে বেড়াচ্ছিলেন এক যুবক। খোঁজ নিয়ে বাসিন্দারা বুঝতে পারেন, ওই যুবক মূক ও বধির। শেষমেশ ওই যুবকের জন্য আপাতত থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা করলেন গ্রামবাসীরাই। মঙ্গলকোটের পশ্চিম গোপালপুরের ঘটনা।

গ্রামবাসীরা জানান, বৃহস্পতিবার বিকেলে গ্রামেই জিন্সের প্যান্ট ও গেঞ্জি পরা ওই যুবক ঘোরাঘুরি করছিলেন। সন্ধ্যা হয়ে যাওয়ায় এগিয়ে আসেন স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্য মাধব হাজরা-সহ কয়েক জন গ্রামবাসী। তাঁদেরই এক জন সুশান্ত মণ্ডল জানান, সন্ধ্যার পরে ঠাণ্ডায় কাঁপছিলেন ওই যুবক। তাঁকে চাদর ও কম্বল দেওয়া হয়। খবর দেওয়া হয় ভিলেজ পুলিশকেও। ব্যবস্থা করা হয় খাবারেরও। গ্রামবাসীরা জানান, নানা কিছু করেও ওই যুবকের কাছ থেকে তাঁর পরিচয় জানা যায়নি। শেষমেশ তাঁর সামনে একটি কাগজ-কলম দেওয়া হলে ওই যুবক লিখে জানান, তাঁর বাবা-মায়ের নাম, সঞ্চিতা ও সুজন সূত্রধর। কিন্তু নিজের নাম বা কোথাকার বাসিন্দা, তা লিখতে পারেননি বছর কুড়ির ওই যুবক। শুক্রবার গ্রামে গিয়ে দেখা গেল, তখনও ওই যুবকের পরিচয় জানার চেষ্টা চালাচ্ছেন গ্রামবাসী। সেই সঙ্গে সকালে তাঁকে দেওয়া হয়েছে টিফিন, দুপুরে ডিম-ভাত।

বিষয়টি মঙ্গলকোট থানাকে জানানো হয়েছে। ওই যুবকের পরিচয় জানার চেষ্টা করছে পুলিশ। তবে গ্রামবাসীদের এই ভূমিকাকে স্বাগত জানিয়েছেন পুলিশ-প্রশাসনের কর্তারা। বিডিও (মঙ্গলকোট) মুস্তাক আহমেদ বলেন, ‘‘গ্রামবাসী মানবিকতার পরিচয় দিয়েছেন।’’