বিয়ের দু’মাসের মধ্যেই পণের দাবিতে এক বধূকে খুনের অভিযোগ উঠল। সোমবার রাতে ইসলামপুর থানার হাটগাও এলাকায় উদ্ধার হয় তাহেরা খাতুনের (২১) ঝুলন্ত দেহ। পণের দাবিতে অত্যাচার করে তাঁকে খুন করা হয়েছে বলে থানায় অভিযোগ করেছেন তাহেরার পরিজনেরা। পুলিশ জানিয়েছে, মৃতের শ্বশুরবাড়ির লোকেরা সকলেই পলাতক। তাদের খোঁজ চলছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, মাস দু’য়েক আগে হাটগাওয়ের বাসিন্দা মতিবুল রহমানের সঙ্গে বিয়ে হয় তাহেরার। তাঁর পরিজনদের দাবি, সেই সময় প্রায় ৫০ হাজার টাকা নগদ নিয়েছিলেন মতিবুরের পরিবারের লোকেরা। তবে বিয়ের পর থেকেই ফের টাকা চেয়ে তাহেরার উপরে অত্যাচার শুরু হয় বলে অভিযোগ। এক বার ২০ হাজার টাকা ও এক বার দুহাজার টাকা দেওয়া হয়েছিল বলে জানিয়েছেন মৃতের বাবা তামিজুদ্দিন। তাঁর কথায়, ‘‘বিয়ের পর থেকেই পণের দাবিতে অত্যাচার চলত।’’

সোমবার সন্ধ্যায় তাহেরার আত্মহত্যার খবর পেয়ে তাঁর বাপের বাড়ির লোকেরা শ্বশুরবাড়িতে যান। সেখান থেকেই তাঁকে উদ্ধার করে ইসলামপুর হাসপাতালে ভর্তি করলে চিকিত্সকেরা তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। বিয়ের দু’মাসের মধ্যে মৃত্যুর ঘটনা ঘটায় মঙ্গলবার দেহটি সুরহতহাল করেন ইসলামপুরের বিডিও। ইসলামপুর থানায় মতিবুরের বিরুদ্ধে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন তাহেরার পরিজনেরা। পুলিশ জানিয়েছে, ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলে পুরো বিষয়টি স্পষ্ট হবে। অভিযোগ খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।