দায়িত্ব নিয়েই জোড়া নির্দেশিকা জারি করলেন উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের প্রথম মহিলা সুপার। সকাল ৯টার মধ্যে বহির্বিভাগে দায়িত্বে থাকা চিকিৎসকদের হাজির হতে হবে বলে জানিয়ে দিয়েছেন তিনি। না হলে কড়া পদক্ষেপের হুঁশিয়ারি দিয়েছেন। রোগীদের ছুটি দেওয়ার সময় ওষুধ যেন সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড থেকেই দেওয়া হয় এটা নিশ্চিত করারও নির্দেশ দিয়েছেন মৈত্রেয়ীদেবী।

অবশ্য অতীতেও হাসপাতাল সাফাই থেকে, করিডর সংস্কার, অগ্নিনির্বাপন ব্যবস্থার হাল ফেরানোর মতো বহু নির্দেশ জারি হয়েছে। কিন্তু অধিকাংশ ক্ষেত্রেই তা কার্যকর হয়নি। নতুন ‘ম্যাডাম’ মৈত্রেয়ী কর সেই অবস্থার পরিবর্তন ঘটাতে চান বলে চিকিৎসক ও কর্মীদের একটা অংশ আশাবাদী। আর তাই মঙ্গলবার সুপার হিসাবে দায়িত্ব নেওয়ার পর বুধবারই নির্দেশিকা জারি করে হাল ধরার কাজ শুরু

করে দিলেন বলে মনে করা হচ্ছে। 

মৈত্রেয়ীদেবী বলেন, ‘‘দশ-পনেরো মিনিট চিকিৎসক আসতে দেরি করলে তা মেনে নেওয়া যায়। কিন্তু নিয়মিত এক ঘণ্টা দেড় ঘণ্টা ধরে রোগীরা দাঁড়িয়ে থাকবেন আর চিকিৎসক থাকবেন না সেটা মেনে নেওয়া মুশকিল।’’ এত দিন রোগীদের ছুটি হওয়ার পর ওষুধের জন্য বহির্বিভাগে গিয়ে কাউন্টারে দাঁড়িয়ে ওষুধ নিতে হত রোগী এবং পরিবারের লোকদের। এখন থেকে ছুটি দেওয়ার সময় রোগীদের ওষুধ ওয়ার্ড থেকে দেওয়ার সিদ্ধান্তকেও স্বাগত জানিয়েছেন অনেকেই।

গত কয়েক বছর ধরে উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ডিন (স্টুডেন্ট অ্যাফেয়ার্স) হিসাবে দায়িত্ব সামলাচ্ছেন এখনও ওই দায়িত্বে রয়েছেন। সেখানে তার দফতরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছবিও রেখেছেন। উত্তরবঙ্গ মেডিক্যালের হাল ফেরাতে উদ্যোগী তিনিও। তিনি যে উদ্যোগ গ্রহণ করলেন তা কার্যকর কতটা হবে তা অবশ্য সময়ই বলবে।