শক্তিগড় রবীন্দ্র মঞ্চ উদ্বোধন নিয়ে তরজা চলছেই। শুক্রবার মঞ্চ পরিদর্শনে গিয়ে তা তালা বন্ধ দেখে আগামী ১৪ অক্টোবর নতুন রূপে তার উদ্বোধন অনুষ্ঠান আপাতত স্থগিত করল শিলিগুড়ি পুর কর্তৃপক্ষ। শনিবার এ কথা জানান শিলিগুড়ির মেয়র অশোক ভট্টাচার্য।

বৃহস্পতিবারই তিনি উদ্বোধনের দিন ঘোষণা করেছিলেন। অথচ শুক্রবার প্রস্তুতি দেখতে গিয়ে দেখেন মঞ্চ তালাবন্ধ। তাঁর অভিযোগ, বুধবার মঞ্চে উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দফতরের তরফে অনুষ্ঠান হয়েছিল। পুরসভার ওই মঞ্চে অনুমতি ছাড়াই অনুষ্ঠান হয়। অনুষ্ঠান শেষে সমস্ত দরজা তালা বন্ধ করে চলে যাওয়ায় নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন মেয়র অশোক ভট্টাচার্য। তিনি বলেন, ‘‘এটা কী ধরনের সৌজন্যতা জানা নেই। একে অসভ্যতা বলা হবে কি না মানুষই বলবেন। তালা ভেঙে আমরা খুলে নিতে পারতাম। কিন্তু আমরা চাই উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দফতরই মঞ্চের  তালা খুলুক।’’

উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দফতরের মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ জানান, এখনই এ ব্যাপারে তিনি কিছু বলতে চান না। তাঁর কথায়, ‘‘সময় মতোই যা জানানোর জানাবো।’’ দফতরের একটি সূত্রেই জানা গিয়েছে, এখনও সংস্কার কাজের কিছু অংশ বাকি রয়ে গিয়েছে। তা সম্পূর্ণ না হলে চবি দেওয়া হবে না।

মেয়র জানান, ওই দিন পরিদর্শনে গিয়ে রবীন্দ্র মঞ্চ তালা বন্ধ দেখে তিনি পুলিশ কমিশনারকে ফোন করেছিলেন। পুলিশ কমিশনার তাঁকে জানিয়েছেন তাঁরা এ ব্যাপারে কিছু জানেন না। ঠিক হয়েছে, শিলিগুড়ি পুর কমিশনার বিষয়টি জানিয়ে উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দফতরের কমিশনারকে চিঠি দেবেন। কেন না উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দফতরের তরফে শক্তিগড় রবীন্দ্র মঞ্চ সংস্কারের পর তিনি চিঠি দেন। সেই মতো ১১ অগস্ট পুরসভাকে হস্তান্তর করা হয়।

তার পরে এ ধরনের ঘটনা নিয়ে মেয়র বলেন, ‘‘রবীন্দ্র মঞ্চ যদি তারা নিয়ে নিতে চান তা হলেও সেটা চিঠি দিয়ে জানান। কেন না আমরা তো তাদের কখনই কিছু বলিনি। তারাই চিঠি দিয়ে সংস্কারের পর ওই মঞ্চটি পুরসভার হাতে তুলে দিয়েছিল।’’

পুর কর্তৃপক্ষ জানান, এই অবস্থায় অনুষ্ঠান করতে শিল্পীদের ডাকা হলে তাঁদের নিয়ে সমস্যার মধ্যে পড়তে হতে পারে। তাই আপাতত অনুষ্ঠান স্থগিত রাখা হয়েছে।