ফেডারেশনের নেতার সঙ্গে গোলমালকে কেন্দ্র করে খোদ দলীয় সাংসদের নামে ফেসবুকে অশালীন মন্তব্য করার অভিযোগে পুলিশের হাতে গ্রেফতার হলেন টিএমসিপির জলপাইগুড়ি শহর ব্লক সভাপতি কিশান চৌধুরী৷ তাঁর সঙ্গেই গ্রেফতার করা হয় আর এক ছাত্র নেতা শুভম বণিককে৷ আদালত দু’জনেরই জামিন মঞ্জুর করেছে৷

রাখি বন্ধন উৎসবের জন্য টাকা তোলার অভিযোগকে ঘিরে তৃণমূল প্রভাবতি রাজ্য সরকারি কর্মচারী সমিতির স্বাস্থ্য শাখার জেলা আহ্বায়ক তথা সিএমওএইচ দফতরের হেড ক্লার্ক সুশোভন রায়ের সঙ্গে কিশানের বিরোধ বেঁধেছিল৷ সুশোভনবাবুর অভিযোগ, থানা মোড়ে রাখি বন্ধন উৎসব করবে জন্য কিশান তাঁর থেকে পাঁচ হাজার টাকা দাবি করেন৷ তিনি তা দিতে অস্বীকার করায় গত রবিবার রাতে রাজবাড়ি পাড়ায় তাঁর সরকারি আবাসনে হামলা করে কিশান৷ তাঁকে প্রাণনাশের হুমকিও দেয়৷

কিশান ঠিকাদারির ব্যবসা করেন। তাঁর পাল্টা অভিযোগ, কদমতলা মোড়ে রাখি বন্ধন উৎসবের জন্য সুশোভনবাবু সাংসদের নাম করে তাঁর থেকে দশ হাজার টাকা দাবি করেন৷ অভিযোগ, টাকা না দিলে স্বাস্থ্য দফতরের একটি কাজের টেন্ডার আটকে দেওয়ারও হুমকি দেন সুশোভবনবাবু৷

বিষয়টি নিয়ে দু’জনই একে অপরের বিরুদ্ধে জলপাইগুড়ি কোতোয়ালি থানায় অভিযোগ দায়ের করেন৷ যা নিয়ে যথেষ্টই বিব্রত ছিলেন দলীয় নেতৃত্বের একাংশ৷ এরই মধ্যে সোমবার এই ঘটনাকে ঘিরে কিশান ও তৃণমূলের আর এক ছাত্র নেতা তথা আইন কলেজের ছাত্র শুভম বণিকের বিরুদ্ধে সাংসদ বিজয়চন্দ্র বর্মনের নামে ফেসবুকে অশালীন মন্তব্য করার অভিযোগ ওঠে৷ বিষয়টি নিয়ে সোমবার গভীর রাতে জলপাইগুড়ি কোতোয়ালি থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন সাংসদ ঘনিষ্ঠ শান্তনু দাস নামের এক ব্যক্তি৷ যার জেরে এদিন সকালে কিশান ও শুভমকে গ্রেফতার করা হয়৷ তাঁদের বিরুদ্ধে আইটি অ্যক্টের ৬৬ ধারা ছাড়াও ভারতীয় দণ্ডবিধির ৫০০ ধারায় মামলা রুজু করা হয়৷ তবে তাঁদের আইনজীবী সন্দীপ দত্ত বলেন, ‘‘সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ অনুযায়ী এই ঘটনায় ৬৬ নম্বর আইটি অ্যাক্টের ধারা খাটে না৷’’ দুই ছাত্র নেতার জামিন মিললেও, গোটা ঘটনায় জলপাইগুড়ির রাজনৈতিক মহলে শোরগোল পড়ে গিয়েছে৷ একই সঙ্গে তৃণমূলের একটি অংশ থেকে কিশানকে আড়াল করার চেষ্টা শুরু হয়েছে বলেও অভিযোগ উঠতে
শুরু করেছে।

যদিও বিষয়টি নিয়ে খুব বেশি কিছু বলতে চাননি সাংসদ বিজয়বাবু৷ তাঁর কথায়, ‘‘তৃণমূলের সম্মানহানি রুখতেই দলের কর্মীরা ওর বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন৷ বিষয়টি আমি দলের সভাপতিকেও লিখিতভাবে জানাব৷’’ তবে এই বিষয়ে টিএমসিপির জেলা সভাপতি অভিজিৎ সিংহ বলেন, ‘‘ফেসবুকে কিশান কোনও অশালীন মন্তব্য করেনি৷ অশালীন মন্তব্য করেছে শুভম বণিক৷ শুভমের সঙ্গে টিএমসিপির কোনও সম্পর্ক নেই৷’’

তৃণমূলের জেলা সভাপতি সৌরভ চক্রবর্তী বলেন, কিশান দলের একজন কর্মী৷ সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতেই পুলিশ তাকে গ্রেফতার করেছে৷ তবে এটা একটা অরাজনৈতিক ব্যাপার৷ কিন্তু ঠিক কী ঘটনা ঘটেছিল তা খোজ নিয়ে দল যা ব্যবস্থা নেওয়ার নেবে৷