মৌসুমী অক্ষরেখা অবস্থান বদলে সরে এসেছে হিমালয়ের পাদদেশ এলাকায়। তার জেরে জলপাইগুড়ি-শিলিগুড়ি-সহ সিকিমে ভারী থেকে অতিভারী বৃষ্টির সর্তকতা জারি করেছে কেন্দ্রীয় আবহাওয়া দফতর। বুধবার সন্ধে থেকেই বৃষ্টি শুরু হয়েছে শিলিগুড়িতে। আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, আপাতত মৌসুমী অক্ষরেখার অবস্থান পরিবর্তনের কোনও সম্ভাবনা স্পষ্ট নয়। সিকিম এবং উত্তরবঙ্গের পাহাড়ি এলাকায় ধসের আশঙ্কাও করা হচ্ছে। কেন্দ্রীয় আবহাওয়া দফতর থেকে প্রশাসনকেও সর্তকবার্তা জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।

মৌসুমীবায়ুর হাত ধরেই দেশে বর্ষা ঢোকে। মৌসুমী অক্ষরেখার অবস্থান বৃষ্টিপাতের তারতম্য গড়ে দেয়। উপগ্রহ চিত্র বিশ্লেষণ করে দিল্লির মৌসম ভবন জানিয়েছে মৌসুমী অক্ষরেখার অবস্থান এখন হিমালয়ের পাদদেশ এলাকায়। উত্তরবঙ্গের ওপরে নিম্নচাপ তৈরি হওয়ায় বঙ্গোপসাগর-সহ দক্ষিণবঙ্গ থেকে মেঘ ছুটে আসছে এই এলাকায়। তার জেরে শুরু হয়েছে বৃষ্টিপাত। উত্তরবঙ্গ লাগোয়া বিহারেও ভারী বৃষ্টির সম্ভবনা রয়েছে।

কেন অক্ষরেখার অবস্থান বদল? আবহাওয়া দফতর সূত্রে জানানো হয়েছে, সারা দেশেই এখন পশ্চিমী বায়ু প্রবাহ চলছে। সেই সঙ্গে বঙ্গোপসাগরের ওপরেও এখন কোনও নিম্নচাপ নেই। এই দুইয়ের প্রভাবে ক্রমশ উত্তর দিকে সরতে সরতে নিম্নচাপ হিমালয়ের পাদদেশ এলাকায় চলে এসেছে।

কেন্দ্রীয় আবহাওয়া দফতরের সিকিমের আধিকারিক গোপীনাথ রাহা বলেন, ‘‘একমাত্র বঙ্গোপসাগরের ওপরে যদি কোনও নিম্নচাপ তৈরি হয় তবেই তার টানে অক্ষরেখা সরে যেতে পারে। সে সম্ভাবনা এখনই নেই। তাই আপাতত বৃষ্টি চলতে থাকবে।’’

আবহাওয়া দফতরের পূর্বাভাস অনুযায়ী ১৪ অগস্ট পর্যন্ত নাগাড়ে বৃষ্টি হতে পারে বলে আবহাওয়া দফতরের পুর্বাভাসে জানানো হয়েছে। উত্তরবঙ্গের দার্জিলিং, জলপাইগুড়ি এবং কোচবিহারে বেশি পরিমাণে বৃষ্টি হতে পারে বলে সন্দেহ।