বিপদসীমার সঙ্কেত ১১০। তা ছাড়িয়ে গিয়েছে বহু আগেই। সেখানে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার শেষ হিসেব বলছে লস অ্যাঞ্জেলেসের দাবানলের ভয়াবহতা (বার্নিং ইনডেক্স) ছিল ২৯৬। যা সাম্প্রতিক সময়ে সর্বোচ্চ। শুধু তাই নয়, আগামী ২৪ ঘণ্টায় পরিস্থিতি আরও খারাপ হবে বলে সতর্কবার্তা জারি করেছে সেখানকার দমকল বাহিনী।

দমকল প্রধান র‌্যাল্ফ টেরাজাস জানান, লস অ্যাঞ্জেলেসের বিস্তীর্ণ এলাকা জুড়ে শুকনো গাছপালার জঙ্গলে এই দাবানলে রাশ টানা যাচ্ছে না। পরিস্থিতি আরও হাতের বাইরে চলে যাচ্ছে সান্টা আনা থেকে আসা শক্তিশালী হাওয়ায়। ইতিমধ্যেই দক্ষিণ ক্যালিফোর্নিয়ার প্রায় এক লক্ষ একর এলাকা ঝলসে গিয়েছে দাবানলে। কোনও বিরাম ছাড়া এক নাগাড়ে এই বিধ্বংসী আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করে চলেছেন দমকলকর্মীরা।

লস অ্যাঞ্জেলেস থেকে সোশ্যাল মিডিয়ায় যে সমস্ত ভিডিও ভাইরাল হয়েছে, তাতেও দেখা যাচ্ছে জাতীয় সড়কের ধারে বনজঙ্গলে মোড়া ছোট ছোট পাহাড় দাউদাউ করে জ্বলছে। কোনও কোনও জায়গা আবার আগুনের হল্কায় ভয়াল লাল। তার পাশ দিয়েই চলে যাচ্ছে গাড়ি। বেশ কিছু এলাকা ইতিমধ্যেই খালি করে দিতে বলা হয়েছে। বন্ধ একাধিক রাস্তা। দূষিত বাতাসের জন্য স্থানীয় বাসিন্দাদের মাস্ক পরার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে স্কুল।

আগুনে ছারখার হয়ে গিয়েছে লস অ্যাঞ্জেলেসের অন্যতম অভিজাত বসতি বেল এয়ার। ভস্মীভূত হয়ে গিয়েছে সেখানকার ৬টি নামী এস্টেট। তার মধ্যে একটি ছিল মিডিয়া ব্যারন রুপার্ট মার্ডকের মদ তৈরির কারখানা। ওই এলাকা পুরোপুরি খালি করে দেওয়া হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। দমকল সূত্রের খবর, হেলিকপ্টার থেকে বারবার জল ঢেলে আগুন নেভানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। তবে আশঙ্কা, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে আরও ক’দিন সময় লাগবে।