চিড়িয়াখানার সঙ্গে প্রায় দীর্ঘ ৫০ বছরের সম্পর্ক তার। নানা খোপে কত বন্ধু এল, গেল। শুধু তাই নয়, স্বজনহারাও হতে হয়েছে তাকে। অলক্ষ্যে দাঁড়িয়ে চিড়িয়াখানার বিবর্তনের সাক্ষী থেকেছে সে। এ বার জাঁকজমক ভাবে তারই জন্মদিন পালন করবেন চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ।

আরও পড়ুন- অতি বর্ষণে সেতু ভেঙে ওডিশায় বিপর্যস্ত ট্রেন

দিল্লি চিড়িয়াখানার সবচেয়ে বয়স্ক ওই সদস্যের নাম রীতা। তবে, ওই শিম্পাঞ্জির জন্ম সম্পর্কিত কোনও তথ্য জানা নেই কর্তৃপক্ষের। সুদূর আমস্টারডাম থেকে ১৯৬৪ সালে নিয়ে আসা হয়েছিল শিম্পাঞ্জিটিকে। ন্যাশনাল জুলজিক্যাল পার্কের সহ অধিকর্তা রাজা রাম সিংহ বলেন, “ও এখানকার সবচেয়ে পুরনো বাসিন্দা। এই পার্কের অন্যতম আকর্ষণও সে। মানুষের নানা প্রবৃত্তি রয়েছে ওর মধ্যে। অনেক সময় দর্শনার্থীদের সঙ্গে নানা অঙ্গভঙ্গি করে ভাব বিনিময়ও করে সে। কিন্তু এখন বয়সের কারণে সে একা থাকতেই পছন্দ করে।” জন্মদিন প্রসঙ্গে ওই অধিকর্তা বলেন, “তাকে নিয়ে গ্র্যান্ড পার্টির এই পরিকল্পনায় জন্মদিনের থেকে অনেক বেশি জড়িয়ে রয়েছে আবেগ। পাশাপাশি দর্শকরা প্রচুর কিছু জানতেও পারবেন।”

৫৬ বছরে এই প্রথম তার জন্মদিন পালন করছে চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ। ছবি- পিটিআই

বয়সের কারণে রীতা এখন আর তেমন ভাবে দর্শকদের সামনে আসে না। কয়েক বছর আগে তার তিনটি সন্তান হয়। আজ তারা কেউ বেঁচে নেই। এমনকী, তার দীর্ঘ দিনের বন্ধু ম্যাক্সকেও জয়পুর চিড়িয়াখানায় স্থানান্তরিত করা হয়ছে। একলাই কাটে তাই রীতার জীবন।