সম্প্রতি কয়েকটি বড় মামলায় এজলাসে একে অপরের উদ্দেশে চিৎকার করেছেন কয়েক জন প্রবীণ আইনজীবী। তাতে ক্ষুব্ধ সুপ্রিম কোর্ট। আজ প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্রের নেতৃত্বাধীন বেঞ্চ জানিয়ে দিল, আইনজীবীরা সংযত না হলে আদালত পদক্ষেপ করতে বাধ্য হবে।

গত দু’দিন কেন্দ্র ও দিল্লি সরকারের মধ্যে ক্ষমতার বিভাজন নিয়ে মামলা এবং রাম জন্মভূমি মামলার শুনানি হয়েছে সুপ্রিম কোর্টে। রাম জন্মভূমি মামলায় উঁচু গলায় সওয়াল করেছেন কপিল সিব্বল, রাজীব ধবন ও দুষ্মন্ত দাভের মতো আইনজীবীরা। এক সময়ে এজলাস ছেড়ে বেরিয়ে যাওয়ার কথাও বলেছিলেন তাঁরা। দিল্লি-কেন্দ্র মামলায় ধবনের সওয়ালেও ক্ষুব্ধ হয় প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন বেঞ্চ।

পার্সি মহিলারা অন্য ধর্মের পুরুষকে বিয়ে করলে তাঁদের ধর্ম পরিবর্তন হয় কি না তা নিয়ে মামলা চলছিল প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্র, বিচারপতি এ কে সিক্রি, বিচারপতি এ এম খানউইলকর, বিচারপতি ডি ওয়াই চন্দ্রচূড় ও বিচারপতি অশোক ভূষণের বেঞ্চে। আজ সেই মামলার শুনানিতে আইনজীবীদের আচরণের  প্রসঙ্গটি তোলেন প্রবীণ আইনজীবী গোপাল সুব্রহ্মণ্যম। তিনি জানান, প্রবীণ আইনজীবীদের মধ্যে চিৎকার করার প্রবণতা বাড়ছে। আইনজীবীদের উচিত আদালতের প্রতি শ্রদ্ধা বজায় রাখা।

এর পরেই প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্র জানান, গত দু’দিনের শুনানিতে যা ঘটেছে তা অনভিপ্রেত। দুর্ভাগ্যবশত এক দল আইনজীবী মনে করেন তাঁেদর চিৎকার করার অধিকার আছে। চেঁচালে অক্ষমতাই প্রকাশ পায়। যুক্তিপূর্ণ সওয়াল করতে হবে। বেঞ্চের বক্তব্য, ‘‘আইনজীবীরা সংবিধানের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয় এমন ভাষায় সওয়াল করলে তা আমরা সহ্য করি। কিন্তু কত দিন তা  সহ্য করা সম্ভব? কৌঁসুলিরা নিজেদের নিয়ন্ত্রণ না করলে আদালত পদক্ষেপ করতে বাধ্য হবে।’’