রোগী সুস্থ হয়ে গিয়েছেন। অথচ তাঁর চিকিৎসার খরচের বিল মেটানো হয়নি। এমন অবস্থায় অনেক হাসপাতালই তাঁকে আটকে রেখে তাঁর পরিবারের উপর চাপ তৈরি করে। এমন উদাহরণ ভূরি ভূরি।

কিন্তু এ বার এর বিরুদ্ধেই কড়া বার্তা দিল বম্বে হাইকোর্ট। জানিয়ে দিল, সুস্থ হয়ে যাওয়া কোনও ব্যক্তিকে বিল না মেটানোর কারণে আটকে রাখতে পারে না কোনও হাসপাতাল। জোরজবরদস্তি এ ভাবে আটকে রাখা বেআইনি।

শুক্রবার ‘রোগী’ আটকে রাখা সংক্রান্ত দু’টি জনস্বার্থ মামলার শুনানি ছিল হাইকোর্টে। সেই মামলার শুনানি চলাকালীন, বিচারপতি এসসি ধর্মাধিকারী এবং ভারতী দাংড়ের বেঞ্চের প্রশ্ন, কোনও ব্যক্তিকে ফিট সার্টিফিকেট দেওয়ার পরও কী ভাবে কোনও হাসপাতাল শুধুমাত্র বিল না মেটানোর কারণে আটকে রাখতে পারে? তার পরেই সমস্ত হাসপাতালের উদ্দেশ্যে তাঁরা জানান, এটা ব্যক্তিগত স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ। এটা যে বেআইনি তা দেশের প্রত্যেকটা মানুষের জানা উচিত।

আরও পড়ুন: ঠিকানার প্রমাণপত্র হিসাবে গ্রাহ্য হবে না পাসপোর্ট

তবে বেঞ্চ এ বিষয়ে হাসপাতালগুলিকে সরাসরি কোনও আইনি নির্দেশ দেয়নি। পরিবর্তে মহারাষ্ট্রের স্বাস্থ্য বিভাগকেই তাদের ওয়েবসাইটে এ বিষয়ে যাবতীয় খুঁটিনাটি নোটিস দিয়ে জনগণকে জানাতে বলেছে। রোগীর অধিকার এবং বেআইনি কাজে হাসপাতালগুলির বিরুদ্ধে কী আইনি ব্যবস্থা নেওয়া যেতে পারে, সবটাই বিস্তারিত ওই ওয়েবসাইটে প্রকাশ করতে হবে, নির্দেশ বেঞ্চের।