ইরানের চাবাহার বন্দরের নবনির্মিত অংশের আজ উদ্বোধন করলেন সে দেশের প্রেসিডেন্ট হাসান রৌহানি। ইরান ও আফগানিস্তানে ভারতীয় পণ্য সরবরাহের ক্ষেত্রে এই বন্দর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নেবে বলে আশা দিল্লির।

মাত্র ৮০ কিলোমিটার দূরে পাকিস্তানের গ্বদর বন্দর। যা তৈরিতে সাহায্য করেছে চিন। ফলে চাবাহার বন্দর তৈরিতে ভারতের অংশীদারিত্ব মধ্য এশিয়ায় কূটনৈতিক ল়ড়াইতেও দিল্লিকে সুবিধেজনক অবস্থানে রেখেছে বলে দাবি সাউথ ব্লকের। কূটনৈতিক ভারসাম্য বজায় রাখতে গ্বদর বন্দরকেও স্বাগত জানান রৌহানি। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে হাজির ছিলেন ভারত, কাতার, আফগানিস্তান, পাকিস্তান এবং অন্য দেশের প্রতিনিধিরা। এই অংশটির নাম রাখা হয়েছে শাহিদ বেহেস্তি বন্দর। আগামী বছরের শেষে দিকে মাল ওঠানামার কাজ শুরু হবে এই বন্দরে। এখন এই বন্দরের দু’টি বার্থ ব্যবহার করবে ভারত। বন্দরের এই নয়া অংশে রয়েছে পাঁচটি নয়া জেটি।

আরও পড়ুন: উত্তর কাশ্মীরে পালাচ্ছে জঙ্গিরা

আফগানিস্তানের পুর্নগঠনে ভারত বিপুল সাহায্য করছে। তার জন্য সে দেশে প্রয়োজনীয় জিনিস পাঠাতে হয় ভারতকে। কিন্তু এই কাজের জন্য পাকিস্তান তাদের জমি এবং আকাশসীমা ভারতকে ব্যবহার করতে দেয় না। এ বার ওমান উপসাগরের তীরে চাবাহারে ভারত-ইরানের যৌথ উদ্যোগে তৈরি এই বন্দরের মাধ্যমে পাকিস্তানের ভূখণ্ড ব্যবহার না করেই মধ্য এশিয়ার দেশগুলির সঙ্গে বাণিজ্যিক সম্পর্ক জোরদার করে তুলতে পারবে দিল্লি।