খাজুরাহো মন্দিরের ভিতরে কামসূত্র বই বিক্রি নিষিদ্ধ করার দাবি জানাল বজরঙ্গ সেনা। মঙ্গলবার তারা সেই দাবি জানিয়ে মন্দির কর্তৃপক্ষের হাতে একটি স্মারকলিপি তুলে দিয়েছে। বজরঙ্গ সেনার বক্তব্য, ‘‘মন্দিরের ভিতরে, দর্শনার্থীদের ক্যান্টিনে যে ভাবে প্রকাশ্যে কামসূত্র বই বিক্রি হচ্ছে, তা ভারতীয় সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের পরিপন্থী।’’ সেনার তরফে ছত্রপুর থানাতেও অভিযোগ জানানো হয়েছে। 
মধ্যপ্রদেশের ছত্রপুরে খাজুরাহো মন্দির ‘ইউনেস্কো’র ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইটের অন্যতম। প্রতি দিন এই ঐতিহাসিক ভাস্কর্য দেখতে কয়েক লক্ষ মানুষ সেখানে হাজির হন। সেখানে রয়েছে নারী, পুরুষের মিলনের অভূতপূর্ব সব ভাস্কর্য। তার সঙ্গে সঙ্গতি রেখেই সেখানে বিক্রি হয় কামসূত্র সম্পর্কিত বই। বহু দিন ধরেই চলছে সেই প্রথা। 
বজরঙ্গ সেনার স্থানীয় প্রধান জ্যোতি অগ্রবাল সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন, ‘‘মন্দিরের ভিতরে প্রকাশ্যে কামসূত্র বই ও বিভিন্ন রতিক্রিয়ার মূর্তি বিক্রি যে ভাবে চলছে, তাতে ভারতীয় সংস্কৃতি ও ইতিহ্য সম্পর্কে বিরূপ ধারণা হবে বিদেশিদের।’’
তবে বজরঙ্গ সেনা ওই দাবি জানানোয় দর্শনার্থীরা কার্যত বিভ্রান্তই। কারণ খাজুরাহো মন্দিরে যা আছে, তা পৌরাণিক সময় থেকেই চলছে। এর মধ্যে অশ্লীলতা কী ভাবে এল, সেটাই সাধারণ মানুষ বুঝতে পারছেন না।