শ্রম আইন সংস্কারে প্রথম পদক্ষেপটি করতে চলেছে নরেন্দ্র মোদী সরকার।

এ দেশে চালু শ্রম আইনগুলিকে সাজিয়ে চারটি বিধি তৈরির পরিকল্পনা নিয়েছিল কেন্দ্র। এর মধ্যে বেতন সংক্রান্ত বিধি তৈরির কাজ শেষ। বাকি শুধু মন্ত্রিসভার অনুমোদন। তার পরেই বাদল অধিবেশনে এই বিধি পেশ করবে মোদী সরকার।

কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে, শিল্প মহলের সুবিধার জন্যই শ্রম ক্ষেত্রের আইনগুলির সরলীকরণের সিদ্ধান্ত হয়েছিল। ঠিক হয়েছিল বেতন, শিল্প সম্পর্ক, সামাজিক সুরক্ষা ও নিরাপত্তা, এই চারটি বিধি তৈরি করে তার মধ্যেই সমস্ত আইনের ধারাগুলিকে নিয়ে আসা হবে। যেমন, বেতন সংক্রান্ত বিধির মধ্যে ন্যূনতম বেতন আইন, বেতন প্রদান আইন, বোনাস প্রদান আইন, সমান ভাতা আইনগুলি চলে আসবে। শ্রম মন্ত্রকের বক্তব্য, এই বিধির ফলে সব শিল্প ক্ষেত্রেই এবং সব শ্রমিকদের জন্যই ন্যূনতন বেতন নিশ্চিত হবে। কেন্দ্র রাজ্যগুলিকে ন্যূনতম বেতন ঠিক করার জন্য নির্দেশ দিতে পারবে। রাজ্য চাইলে অবশ্য কেন্দ্রের নির্ধারিত বেতনের থেকে বেশি হারে বেতন দিতে পারবে। যারা মাসিক ১৮ হাজার টাকার বেশি বেতন পান, তারাও এর আওতায় আসবেন।

শ্রম মন্ত্রকের সচিব এম সত্যবতীর বক্তব্য, অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলির নেতৃত্বাধীন মন্ত্রিগোষ্ঠী ইতিমধ্যেই বেতন বিধিতে অনুমোদন দিয়েছে। এ বার মন্ত্রিসভার অনুমোদনের জন্য তা পাঠানো হবে। এখন মন্ত্রিগোষ্ঠীতে শিল্প সম্পর্ক সংক্রান্ত বিধি নিয়ে আলোচনা চলছে। এই বিধির মধ্যে শিল্প বিবাদ আইন, ট্রেড ইউনিয়ন আইন, শিল্প কর্মসংস্থান আইন চলে আসবে।

আরও পড়ুন: নাগা সন্ন্যাসীদের আখড়া নিয়ে নিষেধাজ্ঞা কামাখ্যায়

শ্রম মন্ত্রক সূত্রের খবর, দেশের কর্মসংস্থানের সঠিক পরিসংখ্যানের জন্য নীতি আয়োগের উপাধ্যক্ষ অরবিন্দ পানাগড়িয়ার নেতৃত্বে যে টাস্ক ফোর্স তৈরি হয়েছে, আগামী সপ্তাহেই সেই তার রিপোর্ট জমা পড়বে। মোদী সরকার মনে করছে, দেশে যে কর্মসংস্থান তৈরি হচ্ছে, এখনকার পরিসংখ্যানে তার সঠিক চিত্র ফুটে উঠছে না। অথচ মুদ্রা যোজনার মতো বিভিন্ন প্রকল্পে যথেষ্ট কর্মসংস্থান তৈরি হয়েছে। নতুন পরিসংখ্যন তৈরির পদ্ধতি কী হবে, মূলত তা-ই ঠিক করবে পানাগড়িয়ার টাস্ক ফোর্স।