মঙ্গলবার মনোনয়ন পেশের শেষ দিনের মাত্র এক রাত আগে শাসক দলের উপরাষ্ট্রপতি প্রার্থী ঘোষণা করবে বিজেপি। অথচ সনিয়া গাঁধীরা গোপালকৃষ্ণ গাঁধীর নাম ঘোষণা করে দিয়েছেন সপ্তাহ খানেক আগেই।

বিজেপির এক শীর্ষ নেতা জানান, আগামিকাল রাষ্ট্রপতি নির্বাচন পর্ব মিটে যাওয়ার পর সন্ধ্যায় বিজেপির সংসদীয় বোর্ডের বৈঠক ডেকে উপরাষ্ট্রপতি প্রার্থী ঘোষণা করা হবে। বিরোধীরা যখন তাদের প্রার্থী ঘোষণা করেই দিয়েছে, তখন আর তাদের সঙ্গে আলোচনারও কোনও প্রয়োজন নেই। উপরাষ্ট্রপতি পদের নাম নিয়ে নরেন্দ্র মোদী ও অমিত শাহ যে ভাবে রহস্য জিইয়ে রেখেছেন, তা দেখে বিজেপি শিবিরেই নাম নিয়ে জল্পনা চলছে। কেউ বলছেন নাজমা হেফতুল্লা, মোদী সরকারের মন্ত্রী নির্মলা সীতারামণের কথা। আবার কেউ বলছেন, বেঙ্কাইয়া নায়ডু, রাজ্যপাল বিদ্যাসাগর রাওয়ের কথা। কিন্তু কারও কাছেই সুনির্দিষ্ট তথ্য নেই।

কংগ্রেসের নেতারা বলছেন, আসলে গোপলাকৃষ্ণ গাঁধীর নামে ‘ভয়’ পেয়েই নরেন্দ্র মোদী তাঁদের উপরাষ্ট্রপতি পদের নাম ঘোষণা করতে পারছেন না। আর যাই হোক, মোহনদাস কর্মচন্দ গাঁধীর পৌত্র গোপালকৃষ্ণ গাঁধীকে টক্কর দেওয়ার আগে সাত-পাঁচ ভাবতে হচ্ছে তাঁকে। আজ সনিয়া গাঁধী ও তাঁদের রাষ্ট্রপতি প্রার্থী মীরা কুমারের উপস্থিতিতে গোপালকৃষ্ণ গাঁধী বরং মোদী জমানায় ‘আতঙ্কের’ পরিবেশ নিয়েই সমালোচনা করেন। তবে আরএসএসের সঙ্গে কথা বলে মোদী-শাহ কার নাম ঘোষণা করেন, সেটি জানা যাবে কালই। ঘনিষ্ঠ মহলে বেঙ্কাইয়া অবশ্য আজ বলেছেন, তিনি একেবারেই উপরাষ্ট্রপতি হতে চাননা। রাজনৈতিক জীবনের অবসান হয়ে যাবে তাতে।