রক্ষণ পোক্ত করতে ত্রিনিদাদ অ্যান্ড টোব্যাগো থেকে আনা হয়েছিল সেন্ট্রাল ডিফেন্ডার কার্লাইল ডিওন মিচেল-কে। কিন্তু অনুশীলনে চোট পাওয়ায় আই লিগে তাঁকে পাওয়া নিয়ে চিন্তায় ইস্টবেঙ্গল শিবির।

মিচেলের চোট খতিয়ে দেখেছেন ক্লাবের চিকিৎসক ও সহ-সচিব শান্তিরঞ্জন দাশগুপ্ত। বৃহস্পতিবার তিনি বললেন, ‘‘হ্যামস্ট্রিং-এ বাইসেপস ফিমোরিস পেশির তন্তু ছিঁড়ে গিয়েছে মিচেলের। গ্রেড টু টিয়ার হয়েছে ওর। ওই জায়গায় ওর পুরনো চোট ছিল। সেখানেই ফের লাগায় গুরুতর আকার নিয়েছে। এ ধরনের চোট সারতে সময় লাগে।’’

সূত্রের খবর, চোট সারতে কমপক্ষে আট সপ্তাহ সময় লাগবে মিচেলের। নভেম্বরের মাঝামাঝি আই লিগ শুরু হবে। মিচেলের চোট না সারলে শুরুতে তাঁকে বাদ দিয়েই নামতে হতে পারে ইস্টবেঙ্গলকে। যদি তাঁর চোট সেরেও যায়, তা হলেও ম্যাচ ফিট হয়ে মাঠে নামতে ডিসেম্বরের মাঝামাঝি হয়ে যেতে পারে। তখন প্রথম কয়েকটি ম্যাচে তাঁকে বাদ দিয়েই দল গড়তে হবে।

আরও পড়ুন: চোকার নয়, প্রমাণ করল ফুটবলের জাদুকর

জানা গিয়েছে, মিচেলকে পাওয়ার সম্ভাবনা নেই ধরেই এগোচ্ছেন ইস্টবেঙ্গল কোচ খালিদ জামিল। মিচেল নিজেও হয়তো চোট পাওয়ার পরেই ভারতে তাঁর ফুটবল ভবিষ্যতের দেওয়াল লিখন পড়ে ফেলেছেন। চোট পাওয়ার দিনে হাওড়া স্টেডিয়ামে মাঠের মধ্যেই কেঁদে ফেলেছিলেন তিনি। সতীর্থদের কাছে নাকি তিনি নিজের উদ্বেগও প্রকাশ করেন। ইতিমধ্যেই ক্যারিবিয়ান ডিফেন্ডারের বিকল্প হিসেবে কলকাতা লিগে সাদার্ন সমিতির হয়ে খেলা মোহনবাগানের প্রাক্তন স্টপার ইচেজোনা-কে অনুশীলনে ডাকা হয়েছে। গত দু’দিন হাওড়া স্টেডিয়ামে দলের সঙ্গে অনুশীলনও করেছেন গত বছর আই লিগে চেন্নাই সিটি এফসি-র হয়ে খেলা এই ডিফেন্ডার। পাশাপাশি, কলকাতা লিগে খেলা পাঠচক্রের স্টপার ভিক্টর কামহুকা-সহ বেশ কয়েক জন বিদেশি ডিফেন্ডারের দিকে নজর রয়েছে খালিদ এবং ইস্টবেঙ্গলের কর্তাদের। তবে কারও নাম চূড়ান্ত হয়নি এখনও।

এর মধ্যে এ দিনই ইস্টবেঙ্গল জানিয়ে দিল, ১৫ অক্টোবর (রবিবার) রাতে শহরে আসছেন কাতসুমি ইউসা। সোমবার থেকে অনুশীলনে নামতে পারেন তিনি।