বছরের শেষ দিনে মোহনবাগানের হয়ে খেলতে কলকাতায় পা দিয়েছিলেন তিনি। আর নতুন বছরের প্রথম দিনেই ক্লান্তিকে উপেক্ষা করে মোহনবাগান অনুশীলনে নেমে পড়লেন দিয়েগো ফেরিরা-র পরিবর্ত হিসেবে খেলতে আসা স্কটিশ-অস্ট্রেলীয় ফুটবলার ক্যামেরন ওয়াটসন।

প্রথম দিন সনি নর্দে, আনসুমানা ক্রোমাদের সঙ্গে অনুশীলনের পরেই সবুজ-মেরুন শিবিরের নবাগত বিদেশির প্রতিক্রিয়া, ‘‘আই লিগে এখনও প্রচুর খেলা বাকি রয়েছে। এখনও লিগ টেবলে অনেক ওঠানামা হবে। এ বারের মোহনবাগান দলে অনেক ভাল ফুটবলার রয়েছে। ফলে আমরা আই লিগ খেতাব জয়ের দৌড়ে বেশ ভালভাবেই রয়েছি।’’

গত মরসুমে সুনীল ছেত্রীদের বেঙ্গালুরু এফসি-র মাঝমাঠে খেলেছিলেন ক্যামেরন। কিন্তু এ বার তাঁকে আইএসএল-এর দলে রাখেননি বেঙ্গালুরু কোচ আলবের্তো রোকা। ফলে ভারত থেকে ফিরে গিয়ে ইন্দোনেশিয়ার ক্লাব মাদুরো এফসি-তে গত সেপ্টেম্বর পর্যন্ত খেলেছেন ওয়াটসন। কিন্তু তার পরে সেই ক্লাব ছেড়ে মেলবোর্নে চলে যান তিনি। এ দিন সাংবাদিকদের ওয়াটসন বলেন, ‘‘সেপ্টেম্বরে ইন্দোনেশিয়ায় শেষ প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচ খেললেও ক্রিসমাস পর্যন্ত মেলবোর্নে ফিট থাকতে অনুশীলন করেছি আর্থার পাপাসের কাছে। আই লিগে গত বার খেলে গিয়েছি। সনি-সহ মোহনবাগানের অনেককেই চিনি। ওদের সঙ্গে বেশ হাসি-ঠাট্টাও হল এ দিন। ফলে আই লিগে সবুজ-মেরুন জার্সিতে মানিয়ে নিতে অসুবিধা হবে না।’’ এ দিন অনুশীলনে ওয়াটসনকে প্রথমে দলের ফুটবলারদের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেন মোহনবাগান কোচ সঞ্জয় সেন। তবে এ দিন দলের সঙ্গে অনুশীলন করেননি তিনি। ফিজিও-র সঙ্গেই পুরো সময় কাটান তিনি। পরে বাড়ি ফেরার সময় বলে যান, ‘‘মোহনবাগানের জার্সি গায়ে আই লিগে ভাল ফল করার চ্যালেঞ্জ নিয়েছি। মঙ্গলবার ক্লাবের মাঠে দলের প্রথম ম্যাচটাও আশা করি জিতব।’’