ঠিক ২৪ ঘণ্টা আগের ঘটনা। ম্যাচ হেরে সাংবাদিক সম্মেলনে এসে জানিয়ে দিয়েছেন মোহনবাগান কোচের পদ ছাড়ছেন সঞ্জয় সেন। তার এক ঘণ্টার মধ্যেই ক্লাব কর্তারা জানিয়ে দেন কোচের ইস্তফাপত্র গ্রহণ করেছেন তাঁরা। আর দ্রুত নতুন কোচের নাম জানিয়ে দেবেন। দ্রুত মানে, ২৪ ঘণ্টা তা কে ভেবেছিল। কিন্তু এক সন্ধেয় সঞ্জয় সেনের ইস্তফা গ্রহণ করার পরের সন্ধেতেই সহকারি কোচ শঙ্করলাল চক্রবর্তীর নাম হেড কোচ হিসেবে ঘোষণা করে দিলেন বাগান কর্তারা।

চেন্নাই সিটির কাছে ২-১ গোলে হারের মুখ দেখতে হয়েছে মোহনবাগানকে। কিন্তু ধিকিধিকি আগুনটা গ্যালারিতে জ্বলতে শুরু করেছিল অনেক আগে থেকেই। পর পর ড্র। একটি, দুটি নয় ড্রয়ের হ্যাটট্রিক সেরে ফেলেছিল মোহনবাগান। তাও আবার বিদেশিহীন ইন্ডিয়ান অ্যারোজের বিপক্ষে। এখানেই শেষ নয়, অ্যারোজ একটা সময় খেলেছে ১০ জনে। কিন্তু সেই অ্যারোজকে হারাতে ব্যর্থ সঞ্জয় সেনের ছেলেরা। সে দিনই গ্যালারিতে ‘গো ব্যাক’ সঞ্জয় স্লোগান তুলে দিয়েছিলেন সমর্থকরা।

যেটা মেনে নিতে পারেননি সঞ্জয় সেন। মেনে নিতে পারারও কথা নয়। এই কোচের হাত ধরেই তো বহুদিন পর সাফল্যের মুখ দেখেছিল মোহনবাগান। কলকাতায় এসেছিল আই লিগ। সেই কোচ কী করে মেনে নেবেন ‘গো ব্যাক’ স্লোগান। অপেক্ষা ছিল আর একটি ম্যাচের। যদি জয় আসত হয়ত থেকে যেতেন তিনি। কিন্তু না, তিন ম্যাচে ড্রয়ের পর হেরে যেতে হল মোহনবাগান। আবারও ‘গো ব্যাক’ স্লোগান উঠল। উড়ে এল থুতু। সেই সঞ্জয় সেনকে লক্ষ্য করে যাঁর হাত ধরে দীর্ঘদিন পর ক্লাবে এসেছিল আই লিগ। তাই শেষ পর্যন্ত সরে যেতেই হল তাঁকে। বৃহস্পতিবার থেকে নতুন কোচের অধীনে অনুশীলন শুরু করবে মোহনবাগান দল। 

আরও পড়ুন
গোয়ায় আটকে এফসি গোয়া, খেলা পিছিয়ে রাত ১০টার পর