সোমবার দুপুরে নবান্নে এসে  মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে দেখা করলেন অ্যাপোলো-র এগ্‌জিকিউটিভ ভাইস চেয়ারম্যান পৃথা রেড্ডি। ঘণ্টাখানেক দু’জনের মধ্যে কথা হয়। অ্যাপোলো হাসপাতালে চিকিৎসা পরিষেবার ক্ষেত্রে গত কয়েক মাসে যে কিছু খামতি হয়েছে, পরে সাংবাদিকদের কাছে পৃথা কার্যত তা মেনেও নেন। তিনি বলেন, ‘‘আমাদের যে সব খামতি রয়েছে, তা আমরা দ্রুত শুধরে নেওয়ার চেষ্টা করব।’’

মুখ্যমন্ত্রী তাঁকে মানুষের আর্থিক সাধ্যের কথা মাথায় রেখে পরিষেবা দেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন বলে জানিয়ে পৃথা বলেন, ‘‘আমরা সেই পরামর্শ মেনে চলব।’’ তিনি জানিয়েছেন, অ্যাপোলোর বিল তৈরির যে পরিকাঠামো রয়েছে তা-ও ঠিক করা হবে। নতুন স্বাস্থ্য কমিশনকেও এ দিন স্বাগত জানিয়েছেন পৃথা।

মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে এ দিন যখন নবান্নে পৃথা কথা বলছেন, তখন লালবাজার ব্যস্ত ছিল অ্যাপোলোর বিরুদ্ধে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের নিয়ে একটি ‘মেডিক্যাল ফোরাম’ তৈরির কাজে। পুলিশ সূত্রের খবর, সঞ্জয় রায়ের চিকিৎসায় গাফিলতি এবং চিকিৎসার টাকা নেওয়ার নামে তোলাবাজির অভিযোগের তদন্তেই ওই ফোরাম তৈরি হচ্ছে। ফোরামে একাধিক অস্থি বিশারদ ও হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ থাকবেন। তাঁরা অ্যাপোলোর জমা দেওয়া নথি পরীক্ষা করে রিপোর্ট জমা দেবেন।

মেডিকার বিরুদ্ধে গাফিলতির যে অভিযোগ উঠেছে, সে ব্যাপারে এ দিন পূর্ব যাদবপুর থানায় তাদের লিখিত ব্যাখ্যা জমা দিয়েছে ওই হাসপাতাল। মৃত সুনীল পাণ্ডের কাটা পা ময়নাতদন্ত না-করে নষ্ট করে ফেলার ব্যাপারেই জানিয়েছে তারা।