যতটা উৎসাহ ইংরেজি নববর্ষ নিয়ে, পয়লা বৈশাখ নিয়েও কি ততটা? না কি হুজুগের বিচারে ইংরেজি গোল দিচ্ছে বাংলাকে? টলিউডের নায়িকা শ্রাবন্তী সাধারণ বাঙালি পরিবারে বড় হয়েছেন। বললেন, ‘‘আমরা যত আধুনিক হই না কেন, পয়লা বৈশাখের দিন সাবেকি সাজ মাস্ট!’’

বছরের প্রথম দিন নিজেকে শাড়িতেই সাজিয়ে তোলা ভাল। সকালের দিকে হলে সুতি, তাঁত, ঢাকাই কিংবা শিফন বাছতে পারেন, বিকেলে উজ্জ্বল ভারী সিল্ক। শ্রাবন্তীর পরনের নীল রঙা ময়ূর মোটিফ দেওয়া  সাউথ সিল্ক সন্ধের অনুষ্ঠানে বা বিয়েবাড়িতে পরা যেতে পারে।

সঙ্গে ছোট দুল আর চোকার পরেছেন। হলুদ রঙা কাঞ্জিভরমে পাড়ে ম্যাজেন্টা সরু বর্ডার। ফ্লোরাল মোটিফে ও পাড়ে রয়েছে বেগুনি ও সবুজ। জমকালো সিল্কটির সঙ্গে ভারী দুলই যথেষ্ট। ছিমছাম সাজে শাড়ির বাহার বেশি খোলতাই হয়েছে।

বছরের প্রথম দিন একটু লাল না পরলে চলে! কলকা প্রিন্টের এই ক্রেপ শাড়ি সকালের অনুষ্ঠানেও পরতে পারেন। নয়তো রাতের পার্টিতে। সকালের দিকে পরলে অ্যাকসেসরি ছিমছাম। রাতের অনুষ্ঠানে ভারী সাজ চলতে পারে। শ্রাবন্তী গলায় দু’রকম হার।

আরও পড়ুন:বলেছিল আর কলকাতায় যাব না

সাবেকি ছোঁয়ায় লাল টিপ। শ্রাবন্তী অবশ্য পয়লা বৈশাখের জন্য কিছু কেনেননি। হাসতে-হাসতে বললেন, ‘‘আমার মা তো কিছু না কিছু কিনবেই।’’ ছেলে অভিমন্যুর জন্য কী কিনলেন? ‘‘ও আমার জন্য অপেক্ষা করে নাকি? নিজেই কিনে নেয়,’’ বললেন শ্রাবন্তী।

 

শাড়ি: আনন্দ শাড়ি, রাসেল স্ট্রিট

গয়না: আম্রপালি, ফোরাম কোর্টইয়ার্ড

স্টাইলিং: অয়ন হোড়

মেকআপ: নন্দ মজুমদার

হেয়ার: সোমা সাহা

ছবি: সোমনাথ রায়