Login
  • প্রথম পাতা
  • কলকাতা
  • দেশ
  • বিদেশ
  • বিনোদন
  • ভিডিয়ো
  • পাত্রপাত্রী

  • Download the latest Anandabazar app
     

    © 2021 ABP Pvt. Ltd.
    Search
    প্রথম পাতা কলকাতা পশ্চিমবঙ্গ দেশ খেলা বিদেশ সম্পাদকের পাতা বিনোদন জীবন+ধারা জীবনরেখা ব্যবসা ভিডিয়ো অন্যান্য পাত্রপাত্রী

    Rupam-Surojit: সর্বনাশা মাদক থেকে দূরে থাকুন, গানে গানে বার্তা দিলেন সুরজিৎ-রূপম

    ২০১৫-য় লেখা গান ইউ টিউব চ্যানেলে প্রকাশ করে মাদকের বিরোধিতায় সোচ্চার হলেন সুরজিৎ-রূপম। গানের কথায় মাদক সেবনের ভয়ানক পরিণতির ছবি।

    ২৭ জুন ২০২২ ০৮:৫০

    সুরজিৎ ও রূপম।
    — ফাইল চিত্র।

    এই বিজ্ঞাপনের পরে আরও খবর

    ‘ছেড়ে যাওয়া ভুলে যাওয়া/ ভাঙা ঘুম আর ভয়ের স্রোতে/ দুঃস্বপ্নের দু’হাতে/

    সাপের ছোবলে রাংতার মোড়কে/ নিষিদ্ধ রাসায়নিক সড়কে /জ্যান্ত মৃতদেহের এ মড়কে’…

    Advertisement

    মাদক-বিরোধী এই গান শোনা যাচ্ছে রূপম ইসলামের ইউটিউব চ্যানেলে। গানের কথায় মাদক সেবনের ভয়ানক পরিণতির ছবি। রূপম ইসলাম ও সুরজিৎ চট্টোপাধ্যায় দু’জনেই গলা মিলিয়েছেন এই গানে। এই যৌথ উদ্যোগ মাদক সেবনের বিরুদ্ধে কতটা সচেতনতা গড়ে তুলতে পারবে বর্তমান ও আগামী প্রজন্মের মধ্যে, জানতে আনন্দবাজার অনলাইন যোগাযোগ করেছিল দু’ই গায়কের সঙ্গে।

    কেন লেখা হয়েছিল মাদক-বিরোধী গান? রূপমের কথায়, ‘‘২০১৫-য় কলকাতা পুলিশের নারকোটিক্স বিভাগের মাদক-বিরোধী এক মিছিলে শামিল হয়েছিলাম। সে দিনই আমার আর সুরজিৎদার কাছে এই বিষয়ে গান লেখার অনুরোধ আসে। ২০১৫ সালে এই গানটা লেখা হলেও কেউ শোনেননি। বিশেষ দিনের কথা মাথায় রেখেই আমি আর সুরজিৎদা গানটাকে আমার ইউটিউব চ্যানেলের মাধ্যমে শ্রোতাদের কাছে পৌঁছে দিলাম। আমার বন্ধু অন্তরূপ চক্রবর্তী ও সায়ন বিশ্বাস এই গানের চলমান ছবি করেছেন।’’ একটা গানের মাধ্যমে কি প্রজন্মকে নেশার বিরুদ্ধে সচেতন করে তোলা সম্ভব? রূপমের উত্তর ‘‘নেশা করার পিছনে এক ধরনের পরিস্থিতি ও মানসিকতার যোগাযোগ ভেবে নেওয়া হয়। চেষ্টা করেছি

    Advertisement

    আরও পড়ুন

    ধারাবাহিকে জনপ্রিয় মুখ, সন্তান হওয়ার পর তবু থিয়েটার মঞ্চেই কেন ফিরেছিলেন স্নেহা


    আমার জীবন দিয়ে বোঝানোর যে, এটা সত্যি নয়।’’ রূপমের ব্যাখ্যা, ‘‘অনেকেই মনে করেন যাঁরা রক গান করেন, তাঁরা নেশা না করে গাইতে পারেন না। আমার সম্পর্কেও অনেকের এমন ধারণা রয়েছে। প্রথমে আমিও মাদক নেওয়ার অনেক প্রস্তাব পেয়েছি। সবিনয়ে প্রত্যাখ্যানও করেছি। পাশ্চাত্য ধারার গান গাইতে আমার নেশা করার প্রয়োজন হয় না।’’

    নারকোটিক্স বিভাগ এই মাদক-বিরোধী গানের জন্য রূপমের সঙ্গেই কেন যোগাযোগ করেছিল? প্রস্তাব পাওয়ার পর একই প্রশ্ন ছিল রূপমেরও। উত্তরে সেই পুলিশকর্তা জানিয়েছিলেন, কলকাতার সব বিখ্যাত মানুষেরাই ওঁদের তালিকায় রয়েছেন। ওঁরা জানেন, কে কী নেশা করছেন। ওঁদের সেই তালিকায় রূপমের নাম নেই।

    কী ভাবে গান লেখা হল, সে সম্পর্কে সুরজিৎ চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘‘প্রথমে গানের কিছুটা অংশ লিখে সুর করে রূপমের কাছে পাঠিয়েছিলাম। বাকি লেখা ও সুর করার কাজটা রূপমই করেছে।’’


    Tags:
    এই বিজ্ঞাপনের পরে আরও খবর

    আরও পড়ুন