Advertisement
২৭ নভেম্বর ২০২২
Durga Puja 2020

ডন সিলভার বুলেটের প্রথম ছবি প্রকাশ করল রোলস রয়েজ

রোলস রয়েজ-এর ডন সিলভার বুলেট মডেলটি অতীতের নস্ট্যালজিয়ার সঙ্গে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের মেলবন্ধন ঘটাবে।

খোলা রাস্তায় ড্রোন শটের মাধ্যমে চলন্ত গাড়ির ছবি তোলা হয়

খোলা রাস্তায় ড্রোন শটের মাধ্যমে চলন্ত গাড়ির ছবি তোলা হয়

জয়দীপ সুর
কলকাতা শেষ আপডেট: ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ ১৮:১৭
Share: Save:

চলতি বছরের মার্চ মাসে প্রথম ঘোষণা হয়েছিল, এ বার দেখা মিলল ছবির। বিলাসবহুল গাড়ি প্রস্তুতকারক ব্রিটিশ সংস্থা রোলস রয়েজ বিশ্ববাজারে প্রকাশ করল তাদের নতুন মডেল ডন সিলভার বুলেটের প্রথম বাণিজ্যিক ছবি।

Advertisement

ইটালির গার্ডা লেকে দিনের আলোয় ডন সিলভার বুলেটের প্রথম সংস্করণটি চালিয়ে দেখানো হয়। সংস্থার তরফে জানানো হয়েছে, এটি একটি সীমিত সময়ের মডেল। ডন সিলভার বুলেটটি বিশ্বব্যাপী শুধু ৫০টি ইউনিটের মধ্যেই সীমাবদ্ধ।

খোলা রাস্তায় ড্রোন শটের মাধ্যমে চলন্ত গাড়ির ছবি তোলা হয়, যা গাড়িটির নান্দনিক সৌন্দর্যকে আরও ফুটিয়ে তুলেছে।

আরও পড়ুন: বিশ্বের দ্রুততম সিডানের অভিজ্ঞতা দিতে পারে বেন্টলির এই গাড়ি

Advertisement

টাইটানিয়াম উইন্ডব্রেকের সঙ্গে অ্যারো কাউলিং সংযোজন করে চার আসনের রোলস-রয়েজ ড্রপহেড রোডস্টারটিকে দুই আসনের রোডস্টারে রূপান্তরিত করা হয়েছে, যা বিলাসিতার পরিচয় দেয়।

চার চাকাযুক্ত অত্যাধুনিক বুলেটটি চোখে তাক লাগানোর মতো।

সংস্থার তরফে আরও বলা হয়, ১৯২০ সালের বড় রোডস্টার মডেলগুলির দ্বারা এই চার চাকাযুক্ত অত্যাধুনিক বুলেটটি অনুপ্রাণিত। ছবিতে যে রং দেখা যাচ্ছে সেটি ‘ব্রিডস্টার সিলভার’ নামে পরিচিত। এই রংটি বেছে নেওয়ার কারণ হল, রোলস রয়েজ-এর আগের মডেলগুলি, যেমন সিলভার ডন, সিলভার কিং, সিলভার সাইলেন্স এবং সিলভার স্পেকটার-এর জনপ্রিয়তা।

অভ্যন্তরীণ সজ্জার মধ্যে অন্যতম বৈশিষ্ট হল, কেন্দ্রীয় কনসোলকে ঘিরে রয়েছে একটি কার্বন-ফাইবার ড্যাশবোর্ড। এ ছাড়াও এর ইঞ্জিনের ক্ষমতা ৬.৬ লিটার ভি ১২ মোটর থেকে আসে, যা দ্বিগুণ টার্বোচার্জড ৫৭১ এইচপি (হর্স পাওয়ার) উৎপন্ন করে এবং এর অ্যাক্সিলারেশন ক্ষমতা ৫ সেকেন্ডে ০-১০০ কিমি প্রতি ঘণ্টা।

আরও পড়ুন: বর্ষায় লং ড্রাইভ, এই সব বিষয়ে খেয়াল রাখতেই হবে

সংস্থার দাবি, নতুন এই মডেলটি অতীতের নস্ট্যালজিয়ার সঙ্গে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের মেলবন্ধন ঘটাবে এবং একটি ক্লাসিক রোডস্টার স্পিরিট হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠা করবে। রোলস-রয়েজ সব সময় নিজেদের ঐতিহ্যকে এবং সংস্থার ভাবমূর্তির কথা মাথায় রেখে চিরকাল কাজ করেছে।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.