ভোটে লড়াই করার কথা ঘোষণা করলেন ২৬/১১ মুম্বই হামলার মাস্টারমাইন্ড হাফিজ সইদ। আগামী বছর পাকিস্তানের সাধারণ নির্বাচন। তাতে অংশ নেবে হাফিজের মিল্লি মুসলিম লিগ (এমএমএল)। এমএমএলের হয়ে ভোটে লড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন হাফিজ। শনিবার নিজের বাড়িতে সাংবাদিক সম্মেলন করে এ কথা ঘোষণা করেছেন জঙ্গি নেতা।

গত কাল দলের সদর দফতরে বসে হাফিজ জানান, এমএমএল আগামী বছরের সাধারণ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য সব রকম প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছে। হাফিজের দল অবশ্য এখনও নির্বাচন কমিশনের স্বীকৃতি পায়নি। নির্বাচনে অংশ নেওয়ার পাশাপাশি ভারতের বিরুদ্ধেও হুঙ্কার ছেড়েছেন মুম্বই হামলার মূল চক্রী। বলেন, ‘‘ভারতকে বলতে চাই কাশ্মীরীদের প্রতি আমাদের সমর্থন অব্যাহত থাকবে। ভারত কাশ্মীরীদের কন্ঠস্বর আটকাতে চাইছে। সে জন্য পাকিস্তানের উপর চাপ তৈরি করছে।’’ এ প্রসঙ্গে নওয়াজ শরিফ প্রশাসনকে তাঁর উপদেশ, ‘‘পর্দার আড়ালে কূটনীতি আসলে কাশ্মীরের সংগ্রামকেই ক্ষতিগ্রস্ত করবে।’’

আরও পড়ুন: নির্বাচন ঘিরে হন্ডুরাস অশান্ত, জারি কার্ফু

হাফিজের আরও দাবি, তাঁকে ও কাশ্মীরের হুরিয়ত নেতাদের আটক রাখাটা আসলে আন্তর্জাতিক অ্যাজেন্ডার অংশ। কাশ্মীর আন্দোলনকে দুর্বল করতে এই পদক্ষেপ করা হচ্ছে বলেও অভিযোগ এই জঙ্গি নেতার। কাশ্মীরে ‘অত্যাচার’ বন্ধ না হলে আন্দোলন আরও জোরালো হবে এবং তার ফল ভুগতে হবে বলে নয়াদিল্লির দিকে হুমকিও ছেড়েছেন সইদ।

আরও পড়ুন: পার্ল হারবারে হত ১০০-র পরিচয় মিলল ৭৬ বছর পর

টানা ১১ মাস গৃহবন্দি থাকার পর পাক আদালতের নির্দেশে সপ্তাহ দু’য়েক আগে মুক্তি পেয়েছিলেন সইদ। যা নিয়ে নয়াদিল্লির পাশাপাশি, ক্ষোভ প্রকাশ করে ওয়াশিংটনও। গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে মার্কিন বিদেশ দফতরের তরফে জানিয়ে দেওয়া হয়, অবিলম্বে গ্রেফতার করতে হবে ওই জঙ্গি নেতাকে। সেই মার্কিন চাপেই বাধ্য হয়েই ফের সইদকে গ্রেফতার করে পাক প্রশাসন।