ইসলামকে অবমাননা করা হয়েছে, এই অভিযোগে মাশাল খান নামে সাংবাদিকতার এক ছাত্রকে বেধড়ক মারধর করেছিল জনা কয়েক যুবক। পরে ২৩ বছরের ওই ছাত্রকে পাকিস্তানের খাইবার-পাখতুনখাওয়া প্রদেশের আব্দুল ওয়ালি খান বিশ্ববিদ্যালয়ের দোতলা থেকে ছুড়ে ফেলে দেয় অভিযুক্তরা। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয়েছিল ওই ছাত্রের।

এ বার সেই ঘটনায় একজনকে ফাঁসি এবং ৫ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিল পাকিস্তানের আদালত। বুধবার এই রায় দিয়েছে পাকিস্তানের হরিপুরের এক আদালত।

এ দিন সকাল থেকেই জেলের সামনে পড়ুয়াদের পরিবারের লোকজন ভিড় করতে থাকেন। উত্কণ্ঠায় দিন গুনছিলেন তাঁরা। বিচারক অভিযুক্ত ২৫ জনকে তিন বছরের কারাদণ্ড, ৫ জনকে যাবজ্জীবন এবং একজনকে ফাঁসির সাজা শোনান। যদিও এই মামলায় অভিযুক্ত আরও ২৬ জন বেকসুর খালাস পেয়েছেন।

আরও পড়ুন: মাথা না তোলে খুদে পাকিস্তান! উদ্বিগ্ন দিল্লি

পুলিশ সূত্রে খবর, গত বছর ১৩ এপ্রিল ঘটনাটির পরই তার তদন্ত শুরু হয়। সিসিটিভি ফুটেজ দেখে একাধিক ছাত্রকে গ্রেফতার করে পুলিশ। বুধবার ছিল মাশাল হত্যাকাণ্ডের চূড়ান্ত রায় ঘোষণা।