তাকে দেখে ভয় পেয়ে গিয়েছিলেন মা। চিৎকার করে নার্সদের বলছিলেন, “আমার চোখের সামনে থেকে সরিয়ে নিয়ে যাও।” নিজের সন্তানকে দেখে এতটাই চমকে গিয়েছিলেন ৩৫ বছরের খালেদা বেগম।

গত সোমবার রাতে পুত্র সন্তানের জন্ম দিয়েছেন বিহারের কাটিহারের বাসিন্দা খালেদা। চিকিৎসকরা জানাচ্ছেন, জন্মের পর থেকেই খালেদার সন্তান হার্লিকুইন ইচথয়োসিস নামক বিরল রোগে আক্রান্ত। আর এই রোগের কারণেই ‘অদ্ভুত দর্শন’ এই শিশু। অত্যন্ত মোটা ত্বক, ছোট মাথা আর বিস্ফারিত চোখের জন্য তাকে দেখতে সাধারণ শিশুদের থেকে অনেকটাই আলাদা। তবে শুধু হার্লিকুইন ইচথয়োসিস-ই নয়, শিশুটির মধ্যে অ্যানেনসেফালির লক্ষণও দেখা গিয়েছে। অ্যানেনসেফালিতে আক্রান্তদের মস্তিষ্কের বিকাশ ঠিকমতো হয় না।

আরও পড়ুন: ভারতের কনিষ্ঠতম বাবা হলেন ১২ বছরের বালক, মায়ের বয়স ১৭!

নবজাতককে দেখতে খালিদার বাড়িতে ভিড়। ছবি: সংগৃহীত

সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন জানাচ্ছে, দেখা গিয়েছে ১০ হাজার সদ্যজাতের মধ্যে তিন জন অ্যানেনসেফালিতে আক্রান্ত হয়। আমেরিকায় প্রতি বছর হার্লিকুইন ইচথয়োসিস রোগে আক্রান্ত পাঁচ জন শিশুর জন্ম হয়। এক্ষেত্রে শিশুর শরীরের অন্যান্য অংশ পরিণত হলেও মস্তিষ্ক অপরিণত থেকে যায়।

হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফেরার পর থেকেই স্থানীয় বাসিন্দাদের ভিড়ে উপচে পড়ছে খালেদাদের বাড়ি। কেউ বলছেন ওই শিশু হনুমানজির অবতার। কারও মতে নবজাতক সাধারণ মানুষ নয়, ভিনগ্রহী। সদ্যোজাতকে দেখতে দূর-দূরান্ত থেকেও পাড়ি জমাচ্ছেন উৎসাহীরা।