• প্রথম পাতা
  • নীলবাড়ির লড়াই
  • কলকাতা
  • দেশ
  • বিদেশ
  • খেলা
  • বিনোদন
  • ফোটো
  • পাত্রপাত্রী

  • Download the latest Anandabazar app
     

    © 2021 ABP Pvt. Ltd.
    Search
    প্রথম পাতা নীলবাড়ির লড়াই কলকাতা পশ্চিমবঙ্গ দেশ বিদেশ সম্পাদকের পাতা খেলা বিনোদন জীবন+ধারা জীবনরেখা ফোটো অন্যান্য পাত্রপাত্রী
    আন্তর্জাতিক

    দাড়ি না বাইসনের শিং! আজব স্টাইলে ‘বছরের বেস্ট’ জনসন

    নিজস্ব প্রতিবেদন
    ২১ জানুয়ারি ২০২১ ১২:১৭
    /১৮

    বয়ঃসন্ধিকালে দাড়ি গজানোর সময় প্রায় সমস্ত কিশোরই বিব্রত বোধ করে। খুব কম জনই এটাকে ফ্যাশনের পর্যায়ে নিয়ে যেতে পারে।

    Advertisement
    /১৮

    মিনেসোটার এমজে জনসনের ক্ষেত্রে কিন্তু ঘটেছে ঠিক উল্টো ঘটনা। দাড়িই তাঁর পরিচয় হয়ে উঠেছে। তাঁর বাইসনের শিঙের মতো উপরের দিকে বাঁকানো বিশালাকার দাড়ি দূর থেকেও সহজে নজরে পড়ে যায়।

    /১৮

    ১১ বছর বয়সে প্রথম যখন তাঁর মুখে দাড়ির রেখা দেখা যায়, তখন থেকেই এর প্রতি একটা ভালবাসা তৈরি হয় জনসনের।

    Advertisement
    /১৮

    প্রথম প্রথম তিনি এটাকে মজার পর্যায়ে নিয়ে গিয়েছিলেন। তিনি যখন দাড়ি বাড়াতে শুরু করেছিলেন তাঁকে দেখে সকলেই হাসাহাসি করতেন।

    /১৮

    সেই মজার ভাগ নিতেন জনসনও। নিজেই জানিয়েছেন, কখনও আবার দাড়ি দিয়ে বান্ধবীদের প্রভাবিত করারও চেষ্টা করতেন। ছোটদের ছিল তাঁর দাড়ি নিয়ে প্রচুর কৌতূহল।

    Advertisement
    /১৮

    তখনও জনসন ভাবেননি তিনি কোনও দিন ‘দাড়ি মানব’ বলে পরিচিত হবেন। দাড়ি দিয়েই নিজের পরিচয় গড়ে তোলার কথা তখন কল্পনাতেও ছিল না তাঁর।

    /১৮

    সালটা ছিল ২০০৯। ইন্টারনেটে নানান বিষয় নিয়ে পড়াশোনা করছিলেন তিনি। তখন হঠাৎ করেই তাঁর চোখ পড়ে যায় দাড়ি প্রতিযোগিতার বিষয়টি।

    Advertisement
    /১৮

    রংবেরঙের, নানা আকার এবং দৈর্ঘ্যের সে সব দাড়ি প্রভাবিত করে জনসনকে। দাড়ির প্রতি ভালবাসা তো ছিলই, এ বার সেই ভালবাসাকেই আরও কয়েক ধাপ এগিয়ে নিয়ে যান তিনি।

    /১৮

    এখন জনসনের যে দাড়ি আমরা দেখি তা বানানো শুরু হয়েছিল সেই ২০০৯ সাল থেকেই।

    ১০ /১৮

    ১২ বছরের এই দাড়ি দেখে অনেকে গোঁফ বলেও ভুল করতে পারেন। কারণ সরাসরি গোঁফের সঙ্গেই যোগ রয়েছে তাঁর দাড়ির। আর থুতনিতে দাড়ির জায়গা পুরোপুরি ফাঁকা।

    ১১ /১৮

    তাঁর দাড়ির দৈর্ঘ্য দেড় ফুট! যে কেউ সেটিকে বাঁকানো শিং বলেও ভুল করতে পারেন।

    ১২ /১৮

    তিনি ২০২০ সালে আমেরিকায় অনুষ্ঠিত দাড়ি প্রতিযোগিতায় ‘ম্যান উইথ বেস্ট বিয়ার্ড’-এর খেতাব পেযেছেন। এই প্রতিযোগিতায় মূলত তিনটি বিষয় বিচার করে থাকেন বিচারকেরা। প্রথমত দাড়ির দৈর্ঘ্য, দ্বিতীয় দাড়ির স্টাইল এবং তৃতীয় স্টেজ পারফরম্যান্স।

    ১৩ /১৮

    তার উপর ১৬ রকমের (ছোট, লম্বা, ফ্রি স্টাইল ইত্যাদি) দাড়ির ক্যাটেগরি রয়েছে এই প্রতিযোগিতায়। তার মধ্যে যে কোনও একটি ক্যাটেগরি প্রতিযোগীকে বেছে নিতে হবে।

    ১৪ /১৮

    এমন অদ্ভুত দাড়ি দেখে তাঁর স্ত্রী কী বলেন? জনসন জানান, স্ত্রী এবং সন্তানের অনুপ্রেরণা এবং ভালবাসা ছাড়া এটা সম্ভব হত না।

    ১৫ /১৮

    প্রতি সপ্তাহে স্ত্রীর দামি হেয়ার কন্ডিশনার দাড়িতে লাগান তিনি। এ নিয়ে স্ত্রীর কোনও অভিযোগ নেই। বরং স্ত্রী তাঁর দাড়ি পছন্দ করেন।

    ১৬ /১৮

    যেখানেই যান জনসনের দাড়ি দেখার জন্য সকলেই কাছে চলে আসেন। দাড়ি ছুঁয়ে দেখতে চান। এ রকম দাড়ি কী ভাবে করা সম্ভব সে সব টিপসও নেন।

    ১৭ /১৮

    প্রচুর পুরস্কার পেয়েছেন জনসন। প্রচুর দাড়ি প্রযোগিতায় বিচারক হয়েও গিয়েছেন। যা তাঁর কাছে খুবই গর্বের।

    ১৮ /১৮

    দাড়ি কমিউনিটির এক জন হতে পেরে দারুণ খুশি জনসন। কারণ তিনি মনে করেন, এই কমিউনিটির প্রতিটা মানুষ খুব খোলামেলা মনের। ভাল বন্ধুদের সঙ্গে অত্যন্ত ভাল সময় কাটাতে পারেন।

    Tags:

    আরও গ্যালারি