প্লে-অফ ম্যাচে রিজার্ভ ডে না থাকায় ব্যাপক ক্ষুব্ধ আইপিএল ফ্র্যাঞ্চাইজিরা। আইপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের কাছেও একাধিক অভিযোগ এসেছে ফ্র্যাঞ্চাইজি মালিকদের কাছ থেকে। বিশেষ করে চলতি প্লে-অফের চার দলের পক্ষ থেকে।

প্রস্তাব এসেছে, পরবর্তী আইপিএলে হয় প্লে-অফের ম্যাচগুলোতে অতিরিক্ত দিন রাখা হোক, নয় ম্যাচ এক ঘণ্টা আগে থেকে শুরু করা হোক। অথবা দু’টোই করা হোক। সুপার ওভারে প্লে-অফের নিষ্পত্তি নিয়েও নাকি আপত্তি জানিয়েছে অনেকেই।

বুধবার বেঙ্গালুরুর চিন্নাস্বামী স্টেডিয়ামে ঝড়-বৃষ্টির জন্য কেকেআর-সানরাইজার্স এলিমিনেটর ম্যাচ শেষ রাত প্রায় দেড়টায়। রাত দু’টোয় সাংবাদিক সম্মেলনে আসেন দুই দলের ক্রিকেটার-কোচেরা। নাইটদের অস্ট্রেলীয় পেসার নেথান কুল্টার নাইল মন্তব্য করেন, ‘‘রাত দু’টোয় ক্রিকেট খেলব কেন?’’ এই নিয়ে ক্রিকেটপ্রেমীরা সোশ্যাল মিডিয়াতেও ঝড় তোলেন। সমালোচনা করেন সুনীল গাওস্কর।

চিন্নাস্বামীর ঝড়ের পর ক্রিকেট দুনিয়াতেও ঝড় ওঠায় এ বার নড়ে চড়ে বসেছেন বোর্ডকর্তারা। শুক্রবার দুপুরে আইপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের চেয়ারম্যান রাজীব শুক্ল দিল্লি থেকে ফোনে বলেন, ‘‘ফ্র্যাঞ্চাইজি মালিকেরা অনেকেই আমাকে ফোন করে অভিযোগ জানিয়েছেন। ব্যাপারটা নিয়ে আমরা আলোচনায় বসছি।’’

শনিবার আইপিএল ফাইনালের আগের দিন হায়দরাবাদে গভর্নিং কাউন্সিলের সভায় এই নিয়ে ঝড় ওঠারও সম্ভাবনা আছে বলে জানা গেল। শুক্ল বললেন, ‘‘আমি জানি না এখন কেন এটা নিয়ে সমালোচনা হচ্ছে। আইপিএলের আগে তো সব ফ্র্যাঞ্চাইজিকেই এই নিয়মগুলো জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। রাত ১.২০-তে সুপার ওভারে ম্যাচ নিষ্পত্তি করার নিয়ম আইপিএলের প্লেইং কন্ডিশনেই রয়েছে। তখনই কেউই আপত্তি জানাননি। এখন সবাই বলছেন।’’

প্ল্-অফের প্রথম তিন ম্যাচে রিজার্ভ ডে রাখা গেল না কেন, এই প্রশ্নের উত্তরে আইপিএল চেয়ারম্যান বলেন, ‘‘আসলে এ বারের উইন্ডোটা এতই ঠাসা যে শেষে আমাদের ছ’দিনে চারটে ম্যাচ করতে হচ্ছে। সেই জন্যই শুধু ফাইনাল ছাড়া আর কোনও ম্যাচে রিজার্ভ ডে রাখা সম্ভব হয়নি। তবে পরের বছর যাতে প্লে-অফের সব ম্যাচে রিজার্ভ ডে রাখা হয়, তার ব্যবস্থা নিশ্চয়ই নেওয়া হবে। কয়েকটি ফ্র্যাঞ্চাইজি এক ঘণ্টা আগে প্লে-অফ ম্যাচ শুরুর প্রস্তাব দিয়েছে, সেটা নিয়েও আলোচনা হবে। দেখা যাক সদস্যরা কী বলেন। টিভি সম্প্রচার সংস্থার সঙ্গে এই ব্যাপারে আলোচনা করতে হবে।’’

শুধু প্লে অফের রিজার্ভ ডে নয়, ফের এক দফা প্রশ্ন উঠল ডাকওয়ার্থ লিউইস নিয়েও। সে দিন সানরাইজার্স ৬ ওভারে ৩০ তোলা সত্ত্বেও কেকেআরের টার্গেট কেন ৬ ওভারে ৪৮ হল, প্রশ্ন উঠেছে এই ব্যাপারেও। অন্য কোনও রেন রুল নিয়ে আসা যায় কি না, এই নিয়ে প্রাথমিক আলোচনাও সেরে নিতে চান বোর্ড কর্তারা।