৪ বছর পর দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদ নির্বাচনে বড়সড় ধাক্কা খেল সঙ্ঘ পরিবারের ছাত্র সংগঠন অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদ (এবিভিপি)। সংসদের দু’টি শীর্ষ পদে হেরে গেলেন এবিভিপি প্রার্থীরা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদের সভাপতি ও সহ সভাপতি দু’টি শীর্ষ পদই এবিভিপি’র কাছ থেকে ছিনিয়ে নিল কংগ্রেস সমর্থিত ছাত্র সংগঠন ন্যাশনাল স্টুডেন্টস ইউনিয়ন অফ ইন্ডিয়া (এনএসইউআই)। এবিভিপি পেল শুধু সাধারণ সম্পাদক আর যুগ্ম সম্পাদক পদদু’টি।

গত বছর দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদের নির্বাচনে এনএসইউআই প্রার্থী শুধু জিতেছিলেন যুগ্ম সম্পাদক পদে। সভাপতি, সহ সভাপতি আর সাধারণ সম্পাদক, এই তিনটি পদেই জয়ী হয়েছিলেন এবিভিপি প্রার্থীরা। ফলাফল ছিল এবিভিপি’র পক্ষে ৩-১। দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদে কয়েক বছর ধরে এবিভিপি’র লাগাতার আধিপত্যের পর এ বারের ফলাফল রীতিমতো নজরকাড়া। দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদের নতুন সভাপতি হয়েছেন রকি তুসির। যদিও এনএসইউআইয়ের তরফে জানানো হয়েছে, তাঁরা তিনটি পদে (যুগ্ম সম্পাদক পদেও) জিতেছিলেন। কিন্তু গণনায় কারচুপি হয়েছে। প্রতিবাদে তাঁরা যাচ্ছেন দিল্লি হাইকোর্টে।


দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়।- ফাইল চিত্র।

দিল্লির জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের (জেএনইউ) ছাত্র সংসদও ছিল এ বার এবিভিপি’র টার্গেট। কিন্তু সেখানে এ বারও আধিপত্য বজার রাখতে পেরেছেন বামপন্থী ছাত্ররা। এআইএসএ, এসএফআই ও ডিএসএফ সহ বামপন্থী ছাত্রদের জোট ইউনাইটেড লেফট অ্যালায়েন্স সংসদের ৪টি শীর্ষ পদেই জয়ী হয়েছে।

আরও পড়ুন- কাশীপুরের চিলতে ঘরে আপাদমস্তক বাঙালি ভোজ অমিত শাহদের জন্য

আরও পড়ুন- হিন্দু শিক্ষিকাকে অপহরণ, ধর্মান্তরিত করে জোর করে বিয়ে পাকিস্তানে?

এ বারের ভোটে সভাপতি আর সহ সভাপতি দু’টি শীর্ষ পদেই এনএসইউআইয়ের প্রার্থীরা জয়ী হওয়ায় দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদের শীর্ষ ৪টি পদের নির্বাচনে ফলাফল হল ২-২।

কংগ্রেস সমর্থিত এনএসইউআইয়ের কাছে যেটা সুখবর, তা হল, ছাত্র সংসদের দু’টি শীর্ষ পদই তারা প্রতিদ্বন্দ্বী এবিভিপি’র কাছ থেকে ছিনিয়ে নিতে পেরেছে।

বস্তুত, ২০১২ সালের পর এই প্রথম দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদের সভাপতি পদটি পেল এনএসইউআই।

ছাত্র সংসদের তরফে এটাকে ‘উল্লেখযোগ্য প্রত্যাবর্তন’ বলা হয়েছে। বলা হয়েছে, ‘‘এই ফলাফল প্রমাণ করল ছাত্ররা কংগ্রেস ও রাজীব গাঁধীর ওপর ভরসা রাখেন।’’

এবিভিপি’র তরফে বলা হয়েছে, ‘‘কংগ্রেস ও বামপন্থীরা গোপনে ফন্দি এঁটেই এটা করেছে। বামপন্থীরা ভোটে ডামি প্রার্থী দিয়ে কংগ্রেস সমর্থিত এনএসইউআই প্রার্থীদের জিতিয়ে দিয়েছে।’’