প্রথম তিনটি ওয়ান ডে জিতে ছ’ম্যাচের সিরিজ জয়ের সামনে দাঁড়িয়ে ভারত। আর একটা ম্যাচ জিতলেই সিরিজ পকেটে ভারতের। এই পরিস্থিতিতে শনিবার জোহানেসবার্গে দক্ষিণ আফ্রিকার মুখোমুখি হচ্ছে টিম ইন্ডিয়া।

চতুর্থ ওডিআই-তে নামার আগে ফুরফুরে মেজাজে রয়েছেন ভারতীয় ক্রিকেটাররা। প্রোটিয়া বাহিনীর বিরুদ্ধে লাগাতার জয়, বিরাটদের শরীরী ভাষাটাই বদলে দিয়েছে পুরোদস্তুর। তবে ফুরফুরে মেজাজে থাকলেও টিম ইন্ডিয়াকে ভাবাচ্ছে মূলত দু’টি জিনিস।

এক, ওয়ান্ডারার্সের পিচ। টেস্ট সিরিজ চলার সময় এই পিচকে ঘিরেই উঠেছিল একগুচ্ছ প্রশ্ন। পিচের অসমান বাউন্স এবং হঠাৎ হঠাৎ উইকেটের পরিবর্তন নজর কেড়েছিল আইসিসিরও। সেই ম্যাচেই এই মাঠে চোট পান চেতেশ্বর পূজারা থেকে বিরাট কোহালি অনেকেই। বাদ যাননি এবি ডিভিলিয়ার্সও।

দুই, দক্ষিণ আফ্রিকার দলে এবিডি-এর প্রত্যাবর্তন। এই জোহানেসবার্গে তৃতীয় টেস্টে আঙুলে চোট পেয়ে ওডিআই সিরিজ থেকে ছিটকে গিয়েছিলেন এবি। আর সেই জোহানেসবার্গেই চোট কাটিয়ে চতুর্থ ওডিআইতে মাঠে নামতে চলেছেন তিনি। আর এই প্রত্যাবর্তনই চিন্তা বাড়াচ্ছে ভারতীয় থিঙ্ক ট্যাঙ্কের।

সাধারণ ক্রিকেটপ্রেমী হিসেবে মনে হতেই পারে, এত ভাঙাচোড়া টিম নিয়ে ভাবার কি আছে! চোট পেয়ে ছিটকে গিয়েছেন ফাফ দু প্লেসি, নেই কুইন্টন ডি ককও। ফর্ম হাতড়ে বেড়াচ্ছেন হাসিম আমলা-ডেভিড মিলার। রানের ভাঁড়ার ফাঁকা অধিনায়কের দায়িত্ব সামলানো এইডেন মাক্রারামেরও!

আরও পড়ুন: বিরাট-সহ টিম ইন্ডিয়ার বন্দনায় অমরনাথ

আরও পড়ুন: বিরাট-মন্দনা এবং ১৮ নম্বর জার্সি

কিন্তু এই সকল বিষয় থাকা সত্ত্বেও টিম ইন্ডিয়াকে চিন্তায় রেখেছে দক্ষিণ আফ্রিকার দলে এবি ডিভিলিয়ার্সের ফিরে আসা। রবি শাস্ত্রীরা ভাল মতোই জানেন এবিডি একাই যথেষ্ট একটা ম্যাচের মোড় ঘুড়িয়ে দিতে। আর এই ফ্যাক্টরকে মাথায় রেখে নতুন কৌশলে ঘুঁটি সাজাচ্ছে ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্ট।

এই পরিস্থিতিতে প্রস্তুতিতে কৌশল থাকলেও দলে পরিবর্তন আনতে নারাজ রবি শাস্ত্রীরা।

এ দিন ভারতীয় দলের বোলিং কোচ ভরত অরুণ বলেন, “আমাদের বোলাররা ভাল মতোই বুঝে গিয়েছে নিজেদের কাজটা। পরিবেশের এবং পরিস্থিতির সঙ্গেও ওরা মানিয়ে নিয়েছে। আমি শুধু বলতে পারি অত্যন্ত ভাল পারফর্ম করছে।”

অন্য দিকে, দলে ডিভিলিয়ার্স ফিরলেও চিন্তা কমছে না প্রোটিয়া টিম ম্যানেজমেন্টের। কুলদীপ-চাহালের বোলিংয়ের মায়াজাল এখনও বুঝে উঠতে পারেননি প্রোটিয়া ব্যাটসম্যানরা। আর এই জায়গাতেই বারবার মুখ থুবড়ে পড়ছেন মিলাররা।

রিস্ট স্পিনারদের বিরুদ্ধে ভাল খেলার জন্য ইতিমধ্যেই পাঁচ-ছয় জন লোকাল রিস্ট স্পিনারকে দিয়ে অনুশীলন করেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। কেপটাউনে তৃতীয় ওডিআইতে নামার আগে লোকাল রিস্ট স্পিনারদের খেলেও সুবিধা করতে পারেনি প্রোটিয়া ব্যাটসম্যানরা।

ব্যাটিং লাইন আপে একটি ছাড়া আর কোনও পরিবর্তন আনতে নারাজ দক্ষিণ আফ্রিকা। জোন্ডোর পরিবর্তে দলে ঢুকতে চলেছেন এবিডি।

তবে ব্যাটিং লাইনে মাত্র একটি পরিবর্তন আনলেও বোলিং লাইন আপে দু’টি পরিবর্তন প্রায় নিশ্চিত দক্ষিণ আফ্রিকার। ইমরান তাহিরের পরিবর্তে চতুর্থ ওডিআই ম্যাচে দলে ঢুকতে চলেছেন তাব্রেজ শামসি এবং গত ম্যাচে সুযোগ পাওয়া লুঙ্গি এনগিডির পরিবর্তে দলে ঢুকতে চলেছেন মর্নি মর্কেল।