Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৫ মে ২০২২ ই-পেপার

Exercises: ঘরে থেকে কাজ করতে করতে শরীরে জমছে মেদ? সুস্থ থাকতে কী করবেন

যাতায়াতের ধকল নিতে হয় না। রাস্তায় সময় নষ্টও হয় না। বাড়িতে থেকে কাজ করার এ সব সুবিধা আছে। কিন্তু শরীরচর্চাও যে হয় না মোটে!

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২২ ১৮:৩৯

ঘরেই করুন শরীরচর্চা

যাতায়াতের ধকল নিতে হয় না। রাস্তায় সময়ও নষ্ট হয় না। বাড়িতে থেকে কাজ করার এই বিশেষ সুবিধা থাকলেও অসুবিধা হল এই যে, এমন পরিস্থিতিতে শরীরচর্চা হয় না মোটেই। মেদ জমে যায় অল্প দিনেই। কিন্তু ফিট থাকার জন্য ঘরে বসে অল্প কিছু কসরত করতে পারেন। এতে শরীর সুস্থ থাকবে এবং চেহারাও থাকবে ঝরঝরে।

১। নড়াচড়া করার জন্য আমরা যত বার হাত ও পায়ের ব্যবহার করি, ততখানি সচল থাকে না শরীরের কাঁধ বা সমস্ত ঊর্ধ্বাঙ্গ। সামগ্রিক ভাবে শরীরের কলকব্জা সচল রাখতে আপনি দুই কাঁধকে একসঙ্গে পিছিয়ে নিয়ে যান এবং দশ সেকেন্ড পর আবার এগিয়ে আনুন। এই প্রক্রিয়া বেশ কয়েক বার করলে হাতের গিঁটে যে ব্যথা হয়, তাও কমে যাবে অনেকখানি। তবে হৃদ্‌যন্ত্রের সমস্যা থাকলে এই ব্যায়ামটি না করাই ভাল।

Advertisement
পায়ের ব্যায়ামও কিন্তু এই সময়ে অত্যন্ত জরুরি

পায়ের ব্যায়ামও কিন্তু এই সময়ে অত্যন্ত জরুরি


২। শরীরের পাশাপাশি মুখের ব্যায়ামও জরুরি। কাজ করতে করতেই এই কসরত আপনি করতে পারেন। আপনার ভ্রূ নীচের দিকে ঠেলে যতটা সম্ভব গভীর ভাবে ভ্রূকুটি করুন। আবার পাঁচ সেকেন্ড পরই ভ্রূ দু’টি কপালের যতটা উপরে তোলা যায়, তুলে রাখুন। এই প্রক্রিয়া পাঁচ থেকে দশ বার করুন। এতে মুখের পেশির আরামও হবে।

৩। শরীরচর্চা করার জন্য কাজ ফেলে উঠবেন না। বরং কাজের জায়গায় থাকা অল্প ভারী জিনিস, যেমন জল ভর্তি বোতল বা মোটা কোনও বই এক হাতে তুলে হাতটি আপনার উরুর সঙ্গে সমান্তরাল ভাবে ধরে রাখুন। আস্তে আস্তে কনুই বেঁকিয়ে একটি সমকোণে বস্তুটিকে ধরুন। একই প্রক্রিয়ার পুনরাবৃত্তি করুন অন্য হাত দিয়েও। মাঝেমধ্যে ওজন বেশি বা কম এমন বস্তুর সঙ্গে এই কসরতটি করতে পারেন। এতে হাতের পেশিতে রক্তসঞ্চালন প্রক্রিয়া স্বাভাবিক হবে এবং আঙুলগুলিও সক্রিয় থাকবে।

৪। পায়ের ব্যায়ামও কিন্তু এই সময়ে অত্যন্ত জরুরি। এর জন্য সকালে ঘরেই অল্প জগিং বা স্কিপিং করতে পারেন। তা ছাড়াও কাজ করতে করতে যা করতে পারেন, তা হল আপনার পা মেঝে থেকে তুলে নিন। দু’টি পা-ই সোজা করুন এবং দশ সেকেন্ডের জন্য স্থির রাখুন। তার পরে, ধীরে ধীরে আপনার পা মেঝেতে রাখুন এবং এই প্রক্রিয়া অন্তত দশ বার পুনরাবৃত্তি করুন। শুরুতে সহজ মনে হলেও বারবার এই ব্যায়াম করতে বেশ পরিশ্রম হয়। কিন্তু একই সঙ্গে এর ফলে পায়ের পেশি সচল থাকে। অতিরিক্ত মেদ শরীরে বাসা বাঁধতে পারে না।

Advertisement