Follow us on
Powered by
Co-Powered by
Co-Sponsors
Powered by
Co-Powered by
Co-Sponsors

ডিজিটাল কনসার্ট কী ভবিষ্যৎ? কী বলছেন বাংলা গানের নক্ষত্ররা

অডিটোরিয়ামে বা যে কোনও লাইভ কনসার্টে সঙ্গীত পরিবেশন আমাকে আলাদা উদ্দীপনা এবং অনুপ্রেরণা দেয়, বললেন লগ্নজিতা

শর্মিষ্ঠা ঘোষ চক্রবর্তী
কলকাতা| ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ১৬:০৮ শেষ আপডেট: ০২ মার্চ ২০২১ ১৮:০৭
প্রতীকী চিত্র
প্রতীকী চিত্র

লগ্নজিতা চক্রবর্তী

আমি ডিজিটাল কনসার্ট খুব কম করেছি। ব‌্যক্তিগত ভাবে মনে হয় যে, কোনও শিল্পী বিশেষ করে যাঁরা গান-বাজনার জগতে রয়েছেন তাঁদের একটা ফিডব‌্যাকের ভীষণ প্রয়োজন রয়েছে। অডিটোরিয়ামে বা যে কোনও লাইভ কনসার্টে সঙ্গীত পরিবেশন আমাকে আলাদা উদ্দীপনা এবং অনুপ্রেরণা দেয়। ডিজিটাল কনসার্টে সেই আনন্দ পাই না। শ্রোতা যেখানে খুব ইমপর্টেন্ট একটা পার্ট, সেখানে শ্রোতাবিহীন কনসার্টে মন খারাপ হয় আমার। আমার মত সবার সঙ্গে নাও মিলতে পারে। আমার অনেক বন্ধুবান্ধবই ডিজিটাল কনসার্ট পছন্দ করেন। কারণ, স্টেজে দাঁড়িয়ে নিজের মনের মতো গান সব সময় গাওয়ার সুযোগ পাওয়া সম্ভব নয়। এটা অবশ‌্যই তাঁদের ব‌্যক্তিগত মত। আমি অবশ‌্যই গান গাওয়ার সময় আমার সামনে শ্রোতা, অনুরাগীদের পেলে খুশি হই। তবে নিউনর্মাল পরিস্থিতিতে এটাও একটা পরিবর্তন। আবার হয়তো লাইভ শো শুরু হবে, ডিজিটাল কনসার্টও থাকবে। সবটা নিয়েই চলতে হবে।

ইমন চক্রবর্তী

আমি ব‌্যক্তিগতভাবে মনে করি, সময়ের দাবি মেনে চলা উচিত। এতগুলো বছর অডিটোরিয়ামে শো করেছি, দর্শক-শ্রোতার মুখোমুখি। কিন্তু পরিস্থিতির চাপে ডিজিটাল কনসার্ট-ই নর্মাল। মন্দ কী! হঠাৎ বিদেশের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গিয়েছিল। ডিজিটাল কনসার্ট শুরু হওয়ায় বিদেশে না গিয়েও তাদের কাছে পৌঁছে যাওয়া সম্ভব হয়েছে। এটা শিল্পীদের রুজি-রুটিরও প্রশ্ন। পেশার কথাটাও তো ভাবতে হবে। বাস্তবকে মেনে নিতে অসুবিধে কোথায়! আমি করেছি ডিজিটাল কনসার্ট। ভাল লেগেছে। অতিমারির জন‌্য সব্বাই গৃহবন্দি। অফিস, স্কুল সবই উঠে এসেছে বাড়ির চার দেওয়ালে। অনলাইনে যদি সবটাই হতে পারে, তা হলে কনসার্টই বা হবে না কেন? যদিও পাবলিক কনসার্টের বিকল্প নেই। আবার ধীরে ধীরে আগের অবস্থা ফিরেও আসছে। দু’ধরনের ব‌্যবস্থার সহাবস্থানই কাম্য।

লোপামুদ্রা মিত্র

আমি একটা সময় নাটক করতাম। তার পর গান। আমি এমনই গান গাই, যার সঙ্গে কথা রয়েছে। দর্শকদের সঙ্গে ইন্টার‌্যাকশন ছাড়া আমি সঙ্গীত পরিবেশন করতে পারি না। তাই ডিজিটাল কনসার্ট আমার জন‌্য নয়। আমি ডিজিটাল কনসার্ট করেছি। করতে গিয়ে খুবই অসুবিধে হয়েছে। আমার মনে হয়েছে, যেন দেওয়ালের সামনে গান গাইছি। আনন্দ, পরিতৃপ্তি কোনওটাই আসেনি। সবটাই সময়ের দাবি। এমন একটা সময়ের মধ্যে দিয়ে আমরা চলেছি, যখন ডিজিটাল কনসার্টটাই প্রাসঙ্গিক। তাও বলব, এতে প্রাণের অভাব রয়েছে। ডিজিটাল কনসার্টের মাধ‌্যমে শিল্পীরা গোটা পৃথিবীর কাছে পৌঁছে যেতে পারছে, এই পরিস্থিতিতে এটা খুবই পজিটিভ । তবে আমার মনে হয়, এটা একটা সাময়িক ব‌্যবস্থা আবার সবটাই আগের মতো স্বাভাবিক হয়ে উঠবে।

জয় সরকার

আমি মনে করি, এটা খুব সাময়িক একটা বিষয়। পরিস্থিতি ক্রমে স্বাভাবিক হচ্ছে। সবচেয়ে বড় কথা হল, খারাপ সময়টা আমরা কাটিয়ে ফেলেছি। যে সময় পাবলিক গ‌্যাদারিং বন্ধ ছিল,‌ ডিজিটাল কনসার্টই ছিল ভরসা। কিন্তু লাইভ কনসার্টের বিকল্প কখনওই ডিজিটাল কনসার্ট নয়, কারণ লাইভ কনসার্টের স্পিরিটটাই তৈরি হয় দু’পক্ষ, অর্থাৎ যারা পারফর্ম করছে তারা আর যারা শুনছে এই দুইয়ের আদান-প্রদানের মাধ‌্যমে। ডিজিটাল কনসার্টের যেটা ভাল সেটা হল, সারা পৃথিবীর মানুষ দেখতে পাচ্ছে। সেটা শুধু গান-বাজনা নয়, সিনেমা, সিরিজ সব ক্ষেত্রেই। কিন্তু লাইভ কনসার্টের কখনওই পারফেক্ট সাবস্টিটিউট নয় ডিজিটাল কনসার্ট। আমি তিনটে কনসার্ট করেছি। লাইভ কনসার্টের ভাইবসটাই ছিল না। তাই একজন পারফর্মার হিসেবে আমার খুব ভাল লাগেনি।

আরও পড়ুন