Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৯ জুন ২০২২ ই-পেপার

Sarees: সিল্ক-তসরের সময় চলে যাচ্ছে? বসন্তের কলকাতায় কেমন শাড়ি পরবেন

এই বসন্তে শীতের অল্প আমেজ এবং বাড়তে থাকা তাপমাত্রার কথা মাথায় রেখে বাইরে যাওয়ার জন্য আপনি কী শাড়ি পরবেন তা নিয়ে কিন্তু সচেতন থাকতেই হবে।

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২২ ১২:৫৩

এমন ধরনের শাড়ি নির্বাচন করুন, যা একই সঙ্গে হবে আরামদায়ক এবং দৃষ্টিনন্দন

শাড়ি ছাড়া ভারতীয় মহিলাদের পোশাক নিয়ে আলোচনা শুরু করাই সম্ভব নয়। গত কয়েক দশক ধরেই শাড়ি নিয়ে বিবিধ পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালাচ্ছে বাঙালি। এক-এক ঋতুতে কলকাতা শহরের মানুষ শাড়ি বেছে নেন এক এক রকম। আর এই বসন্তে শীতের অল্প আমেজ এবং বাড়তে থাকা তাপমাত্রার কথা মাথায় রেখে বাইরে যাওয়ার জন্য আপনি কী শাড়ি পরবেন, তা নিয়ে কিন্তু সচেতন থাকতেই হবে। এমন ধরনের শাড়ি নির্বাচন করুন, যা একই সঙ্গে হবে আরামদায়ক এবং দৃষ্টিনন্দন। এ ক্ষেত্রে কলকাতা শহরে এখনকার সবচেয়ে জনপ্রিয় শাড়িগুলি সম্পর্কে আগে জেনে রাখা প্রয়োজন।

জামদানি শাড়ি

জামদানি নামটি ফার্সি বংশোদ্ভূত এবং এটি মুঘল প্রভাবের ইঙ্গিত দেয়। এই ধরনের শাড়ির প্রথম উল্লেখ পাওয়া যায় চাণক্যের অর্থশাস্ত্রে, খ্রিস্টপূর্ব তৃতীয় শতাব্দীতে। এটিকে বাংলা এবং পুন্ড্র অঞ্চলের কিছু সূক্ষ্ম কাপড় হিসাবে উল্লেখ করা হয়েছে সেখানে। এ হেন জামদানি কিন্তু আজও কলকাতার শাড়িপ্রেমীদের কাছে অত্যন্ত প্রিয়। এটি বিশ্বের অন্যতম মূল্যবান কাপড় হিসাবে বিবেচিত হয়। যথাযথ একটি জামদানির বয়ন সময়সাপেক্ষ এবং শ্রমসাধ্য। কিন্তু এর নরম জমি এবং রং ধরে রাখার আশ্চর্য ক্ষমতা একে বিখ্যাত করে তুলেছে। কলকাতার সাধারণ মানুষ তো বটেই, এমনকি তারকাদেরও বিশেষ পছন্দের এই জামদানি শাড়ি। এই বসন্তে পরার জন্য বিশেষ উপযুক্ত এটি।

Advertisement

ধনেখালি শাড়ি

ধনেখালি শাড়ি খাঁটি তুলো দিয়ে তৈরি, যা হুগলি জেলার ধনিয়াখালি গ্রাম থেকে উদ্ভূত। এর উপাদান বেশ মোটা এবং ভারী। বেশির ভাগ ধনেখালি ১০০ মিটার তুলা দিয়ে তৈরি হয়। বিশেষজ্ঞদের মতে, একটি সাশ্রয়ী মূল্যের ধনেখালি শাড়ি বুনতে ন্যূনতম দুই থেকে পাঁচ দিন সময় লাগে। ফরমাল কাজের পোশাকের জন্য এ সব শাড়ি বেশি মানানসই। এটি উচ্চ মানের তাঁতের শাড়ি। ধনেখালি শাড়ি কিন্তু আপনি দীর্ঘ সময় ব্যবহার করতে পারবেন।

মলমলের শাড়িগুলি মূলত এই দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের হলেও বাংলায় এখন অত্যন্ত জনপ্রিয়

মলমলের শাড়িগুলি মূলত এই দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের হলেও বাংলায় এখন অত্যন্ত জনপ্রিয়


বেগমপুরি শাড়ি

বাংলার এই সুন্দর শাড়িগুলি হাতে বোনা এবং সুতির তৈরি। কলকাতায়ও খুব জনপ্রিয়। বেগমপুরি শাড়ি স্থানীয় ভাবে বোনা হয়। এই শাড়িতে যে তুলো ব্যবহার হয়, তাতে খুব বেশি স্টার্চ লাগে না। বেগমপুরি শাড়ির পাড়ের নকশা সরু এবং রঙিন সুতো দিয়ে হয়। এগুলির ওজন যথেষ্ট হালকা।

মলমল শাড়ি

মলমলের শাড়িগুলি মূলত এই দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের হলেও বাংলায় এখন অত্যন্ত জনপ্রিয়। কলকাতা শহরের বসন্তে এই শাড়ির উজ্জ্বল রং ভাল রাখবে মনও। এই শাড়িতে ব্যবহৃত কাপড় খুব নরম। নিয়মিত যাঁরা কাজে বেরোন, তাঁদের জন্য আরামদায়ক। বসন্ত বা গ্রীষ্মকালের জন্য এই শাড়ি আদর্শ। মলমলের শাড়ির আর্দ্রতা এবং ঘাম শোষণ করার একটি স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্য রয়েছে। মলমল শাড়ির আর একটি বৈশিষ্ট্য হল, এটি ধোয়ার পর আরও নরম হয়ে যায়।

খেশ শাড়ি

বীরভূমের তাঁতিরা বিশেষ ভাবে তৈরি করেন এই খেশের শাড়ি। নতুন সুতো আর পাতলা কাপড়ের টুকরো দিয়ে এই শাড়ি বোনা হয়। এই শাড়ির জমি হয় নরম। আর মূলত উজ্জ্বল বিভিন্ন রঙেই বোনা হয়। সব মিলে শীত শেষের কলকাতায় এই শাড়ি বেশ মানানসই।

Advertisement