চিন-মার্কিন বাণিজ্য যুদ্ধে সন্ধির সম্ভাবনার মধ্যেই ভারতের বিরুদ্ধে সুর চড়িয়েছে আমেরিকা। হুমকি দিয়েছে, রফতানি ক্ষেত্রে ভারতকে দেওয়া বিশেষ সুবিধা (জিএসপি) প্রত্যাহারের। এই ছাড় উঠলে দাম বৃদ্ধির জেরে ব্যবসা হারানোর আশঙ্কা করছে দেশের রফতানিকারী সংস্থাগুলি। সিঁদুরে মেঘ দেখছে রাজ্যের হস্ত ও চর্ম শিল্প মহলও।

কেন্দ্রের দাবি, মার্কিন সিদ্ধান্তে দেশে কম প্রভাব পড়বে। তবে রফতানি শিল্পের দাবি ছিল, ধাক্কা খাবে বিভিন্ন ক্ষেত্র। একই মত এক্সপোর্ট প্রোমোশন কাউন্সিল ফর হ্যান্ডিক্র্যাফটসের (ইপিসিএইচ) চেয়ারম্যান ও পি প্রহ্লাদকা এবং কাউন্সিল ফর লেদার এক্সপোর্টসের (সিএলই) পূর্বাঞ্চলের চেয়ারম্যান রমেশ জুনেজারও।

প্রহ্লাদকা বলেন, ‘‘রাজ্যের অনেক হস্তশিল্প সংস্থা সরাসরি আমেরিকায় রফতানি করে। ভিন্‌ রাজ্যের সংস্থাও রফতানির জন্য পশ্চিমবঙ্গের সংস্থাকে বরাত দেয়। যেমন, সবচেয়ে বেশি ইমিটেশন গয়না তৈরি হয় এ রাজ্যেই। তাই ভিন্‌ রাজ্যের সংস্থার রফতানি কমলে, এখানকার ব্যবসাও কমবে।’’ তাঁর দাবি, খুব বেশি হলে ১০% মুনাফা হয়। শুল্ক তাতে ভাগ বসালে, অনেক সংস্থার ব্যবসাই লাভজনক থাকবে না।

অন্য দিকে, শুল্ক যুদ্ধের জেরে চিনা চর্মপণ্যের দাম বাড়ায়, বাড়তি ব্যবসার আশা করছিল ভারতের চর্মশিল্প। গত বছর পশ্চিমবঙ্গ-সহ কিছু রাজ্যের প্রতিনিধিরা আমেরিকায় যান। এ বছরে সে দেশের প্রতিনিধিরা কলকাতায় এসে বানতলা চর্মনগরীতে শিল্পকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেন। রাজ্য থেকে আরও বেশি পণ্য আমদানির আগ্রহও প্রকাশ করেন অনেকে। শুল্ক বাড়লে তঁারাও নতুন বরাত দেবেন কি না, তা নিয়ে শঙ্কায় জুনেজা। দুই শিল্পই তাই চায়, কথা বলে সমস্যার সমাধান হোক। সেজন্য তাঁরা মার্কিন দূতাবাস ও কেন্দ্রের কাছে সমস্যা তুলে ধরবেন।